জার্মানিতে লোকসংস্কৃতি বলতে ঠিক কী বোঝায়? | আলাপ | DW | 26.12.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগ

জার্মানিতে লোকসংস্কৃতি বলতে ঠিক কী বোঝায়?

ইউরোপ মানে প্রায় তিন হাজার বছরের একটানা ইতিহাস৷ জার্মানির মতো একটি ইউরোপীয় দেশের লোকসংস্কৃতিতে অতীতের হাজার পদচিহ্ন আঁকা রয়েছে৷ বাণিজ্য আর শিল্পায়েনের চাপে সেই পদচিহ্ন কি আজ মুছে যেতে চলেছে?

জার্মানির স্যাক্সনি রাজ্য আর চেক প্রজাতন্ত্রের বোহেমিয়ার মধ্যে পাওয়া যাবে তথাকথিত এর্ৎস পর্বতমালাকে৷ পর্বতমালা বলতে মাঝারি উচ্চতার কিছু পাহাড়ি – খুব আহামরি কিছু নয়, এককালের গরিব এলাকাই বটে৷ কিন্তু ক্রিসমাসের মরশুম এলে এই এর্ৎস বা আকর পর্বতমালার দু'টি জিনিসকে বাদ দিয়ে জার্মানির চলবে না৷ প্রথমটি হলো নাটক্র্যাকার বা বাদাম ভাঙার জাঁতি – তবে জাঁতির মতো দেখতে নয়, বরং পুরনো আমলের প্রাশিয়ান সৈন্যদের আদলে একটি কাঠের মূর্তি, যার চোয়ালের মধ্যে আখরোট রেখে চাপ দিয়ে সেই বাদাম ভাঙা যায়৷ জার্মান রূপকথা-উপকথায় নাটক্র্যাকারের উপস্থিতি সর্বত্র; পশ্চিমি মার্গসংগীতের জগতেও পাবেন প্রখ্যাত নাটক্র্যাকার সিম্ফনি৷

এর্ৎস পাহাড়ি থেকে আর আসে তথাকথিত ক্রিসমাস পিরামিড৷ এ হলো এক ধরনের ছোট রথ, যার চূড়ায় বসানো প্রপেলারটি মোমবাতির শিখার উত্তাপে ঘুরপাক খায় ও গোটা পিরামিডটিকে ঘোরায়৷ পিরামিডের প্রতিটি তলায় পরী আর পুতুলদের ভিড়৷ ক্রিসমাসে ঘর সাজানোর জন্য এত সুন্দর আর এক টুকরো লোকসংস্কৃতি জার্মানিতে খুঁজে পাওয়া ভার৷

এসে পড়া গেল আমাদের ব্লগের মূল বিষয়ে: লোকসংস্কৃতি৷ নাৎসি আমলের বাড়াবাড়ির পর জার্মানির মানুষজন বহুদিন লোকসংস্কৃতি থেকে একটু গা বাঁচিয়েই চলেছেন৷ আজ সে দ্বিধা ঘুচেছে বটে, কিন্তু তার জায়গায় এসেছে বাণিজ্য ও শিল্পায়নের চাপ – অর্থাৎ আপনার নাটক্র্যাকার বা ক্রিসমাস পিরামিড যদি শেষমেষ মেড ইন চায়না হয়, তো আশ্চর্য হবেন না৷ বলতে কি, গোটা জার্মানির ক্রিসমাস ডেকরেশানের কতো শতাংশ যে চীন থেকে আসে, সেকথা ভাবলে আর নাটক্র্যাকারের ওপর রাগ করতে পারবেন না, লোকসংস্কৃতির ওপরে তো নয়ই৷

আবার চীন দেশের মানুষ যে শুধু জার্মান লোকসংস্কৃতির বুনিয়াদি রসদ সরবরাহ করেই ক্ষান্ত হচ্ছে, এমন তো নয়৷ চীনের মানুষ আজ সমৃদ্ধির মুখ দেখেছেন, তারা ইউরোপীয়দের মতো দুনিয়াটাকে ঘুরে দেখতে চান – বিশেষ করে ইউরোপকে৷ আর ইউরোপ – ধরুন জার্মানি, মানেই তো তার লোকসংস্কৃতি, নয় কি? কাজেই ট্রেন-ট্রেন চীনা টুরিস্ট ব্ল্যাক ফরেস্টে গিয়ে সেখানকার প্রথাগত ‘কাকু ক্লক' কিনে ফেলছেন, সেই ‘কোকিল ঘড়ি' শেষমেষ চীনে তৈরি কিনা, তা পরখ না করেই৷ টিটিজে লেকের পাশের সুভেনিরের দোকানের জার্মান মালিকও খুশি, কেননা টুরিজমের চাকা ঘোরাচ্ছে লোকসংস্কৃতি...৷

অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

অরুণ শঙ্কর চৌধুরী, ডয়চে ভেলে

ধরুন নুরেমবার্গের সুবিখ্যাত লেবকুখেন বা ক্রিসমাস বিস্কুট অর্থাৎ জিঞ্জারব্রেড৷ বস্তটি আজ শুধু বড়দিনে নয়, বরং প্রায় সারা বছর ধরে পাওয়া যায়; বড় বড় কারখানায় বড় বড় মেশিনে তৈরি কোটি কোটি লেবকুখেন প্যাকেটে ভর্তি হয়ে বিক্রির জন্য যায় হাজার হাজার সুপারমার্কেটে৷ যার অর্থ, লেবকুখেন চিরকালই জার্মান লোকসংস্কৃতির অঙ্গ ছিল এবং আজও আছে – অন্তত জার্মান বাণিজ্যের অঙ্গ হিসেবে, বিশেষ করে যদি অরিজিনাল জার্মান লেবকুখেনের রপ্তানির পরিমাণটাও দেখেন৷

বিশেষ বিশেষ পণ্যের কথা না বলে আসা যাক সর্বজনপ্রিয় ‘ফোল্ক্সফেস্ট' বা মোচ্ছবে – যেমন কোলোনের কার্নিভাল কিবা মিউনিখের অক্টোবরফেস্ট৷ দ্বিতীয়টিতে পুরুষদের লেডারহোজে আর মহিলাদের ডির্ন্ডল পোশাক তো প্রায় বাধ্যতামূলক বলা চলে৷ বাভেরীয়দের প্রিয় মেলা হলো বিশ্বের বৃহত্তম ফোল্কসফেস্ট; ১৮১০ সাল থেকে চলে আসছে; ২০১৭ সালের অক্টোবরফেস্টে এসেছিলেন প্রায় ৭২ লাখ অতিথি, তারা পান করেছেন ৭০ লাখ লিটার বিয়ার৷ অক্টোবরফেস্টের আয়োজক হলো মিউনিখ পৌর প্রশাসনের শ্রম ও অর্থনীতি বিভাগ৷ মিউনিখের কিছু কিছু ব্রুয়ারি অক্টোবরফেস্টের জন্য একটি বিশেষ বিয়ার বাজারে ছাড়তে শুরু করেছে...৷

লোক সংস্কৃতির হদ্দ আর কি!

এ বিষয়ে আপনার কিছু বলার থাকলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন