জার্মানিতে মৃত্যুযজ্ঞের মাঝেও আশার আলো | বিশ্ব | DW | 19.04.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

জার্মানিতে মৃত্যুযজ্ঞের মাঝেও আশার আলো

অন্যদিকে করোনা টিকা সরবরাহ বাড়ায় মে মাস থেকেই সব প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য টিকার সুযোগের আশা বাড়ছে৷

প্রায় আট কোটি মানুষের দেশে ৮০ হাজার মৃত্যুর ঘটনা সত্যি পীড়াদায়ক৷ জার্মান প্রেসিডেন্ট ফ্রাংক-ভাল্টার স্টাইনমায়ার, চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল-সহ নেতারা রোববার বার্লিনে এক জাতীয় শোকসভায় প্রায় গত এক বছর ধরে করোনা ভাইরাসের কারণে মৃতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানালেন৷ জার্মান প্রেসিডেন্ট চলমান করোনা মহামারির মুখে সমাজে ঐক্যের ডাক দেন৷ তার মতে, এই মহামারি গভীর ক্ষত সৃষ্টি করেছে৷ মহামারির বোঝা এবং সেই সংকট থেকে বের হবার সঠিক পথ নিয়ে তর্ক বিতর্ক থেকে এক মুহূর্তের বিরতি নিয়ে তিনি মানবিক ট্র্যাজিডির প্রতি মনোযোগ দেবার ডাক দেন৷ একে অপরের দোষারোপ করার বদলে সর্বশক্তি প্রয়োগ করে মহামারি থেকে নিষ্কৃতির লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান জানান স্টাইনমায়ার৷

বেড়ে চলা সংক্রমণ মোকাবিলায় দেশজুড়ে অভিন্ন পদক্ষেপের লক্ষ্যে সংক্রমণ সংক্রান্ত আইন সংশোধনের প্রক্রিয়া চলতি সপ্তাহে গতি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ তবে সংসদের দুই কক্ষ ও প্রেসিডেন্টের অনুমোদনের অপেক্ষায় না থেকে জার্মানির বিভিন্ন প্রান্তে রাতে কারফিউসহ কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে৷ কোলন শহরে গত শুক্রবার থেকেই রাতে কারফিউ জারি করা হয়েছে৷ আইনটি কার্যকর হলে বিচ্ছিন্ন পদক্ষেপ নিয়ে বিভ্রান্তি শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ তখন সংক্রমণের হার অনুযায়ী গোটা দেশে নির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেওয়া বাধ্যতামূলক হবে৷

এমন সংকটের মাঝেও কিছুটা আশার আলো দেখা যাচ্ছে৷ জার্মানির ডাক্তারদের এক সংগঠন মনে করছে আগামী মে মাস থেকেই দেশের সব প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ করোনা টিকা নেবার সুযোগ পাবেন৷ প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী টিকার সরবরাহ চালু থাকলে শুধু বয়স্ক ও ঝুঁকিপূর্ণ মানুষের জন্য টিকা সীমিত রাখার প্রয়োজন থাকবে না৷ তাছাড়া মে মাস থেকে জেনারেল ফিজিশিয়নের পাশাপাশি বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের চেম্বারেও টিকা দেওয়া শুরু হবার কথা৷ ফলে ধাপে ধাপে সব ধরনের মানুষের জন্য টিকা নেবার সুযোগ খুলে দেওয়া হবে বলে মনে করছেন সংগঠনের সভাপতি আন্দ্রেয়াস গাসেন৷

এখনো পর্যন্ত জার্মানিতে প্রায় এক কোটি ৬০ লাখ মানুষ করোনা টিকার প্রথম ডোজ  পেয়েছেন৷ প্রায় ৫০ লাখ মানুষ দুটি ডোজই পেয়ে গেছেন৷ মে মাসে প্রতি সপ্তাহে ৪০ থেকে ৪৫ লাখ টিকা সরবরাহ সম্ভব হলে সব বয়স্ক ও ঝুঁকিপূর্ণ মানুষ টিকার সুযোগ পেয়ে যাবেন৷ এখনই ৬০ বছরের বেশি বয়সের মানুষ টিকা পেতে শুরু করেছেন৷ ফলে বয়স্ক মানুষের মধ্যে করোনার তীব্রতা কমে যাচ্ছে৷ হাসপাতালে আইসিইউ-র মধ্যেও ৪০ থেকে ৬০ বছর বয়সিদের সংখ্যাই বেশি৷

এসবি/কেএম (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়