জার্মানিতে ভ্যাকসিন দেয়ার শুরুতেই বিপত্তি | বিষয় | DW | 28.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

জার্মানিতে ভ্যাকসিন দেয়ার শুরুতেই বিপত্তি

জার্মানিতে করোনা ভাইরাস ভ্যাকসিন দেয়ার কর্মসূচি শুরুতেই সমস্যায় পড়েছে৷ ভ্যাকসিন যথেষ্ট ঠান্ডায় রাখা হয়নি- এ অভিযোগ বেশ কিছু শহরের৷ ভ্যাকসিন পৌঁছাতে দেরির অভিযোগও জানিয়েছে কয়েকটি নগর প্রশাসন৷

তৈরির পর থেকে নির্দিষ্ট রাজ্য বা শহর কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছানো পর্যন্ত বায়োনটেক-ফাইজার ভ্যাকসিন একটা নির্দিষ্ট ব্যবস্থায় প্রয়োজনীয় মাত্রায় ঠান্ডা রাখার কথা৷ সেই প্রক্রিয়ায় ভ্যাকসিন বিতরণে একেবারে শুরুর পর্যায়েই ধরা পড়েছে সমস্যা৷ দেখা যাচ্ছে, বেশ কিছু ক্ষেত্রে ভ্যাকসিন পর্যাপ্ত ঠান্ডায় রাখা যায়নি৷ এক বিবৃতিতে বাভারিয়ার লিশ্টেনফেলস জেলা কর্তৃপক্ষ বলেছে, কুল বক্সে ন্যূনতম যে তাপমাত্রার উল্লেখ করা হয়েছে তার সঙ্গে মেলাতে গিয়েই প্রথমে সমস্যাটা চোখে পড়ে৷

ভ্যাকসিন ঠান্ডা এবং কার্যকর রাখার জন্য মআরএনএ প্রযুক্তি ব্যবহার করে বায়োনটেক-ফাইজার৷ এর সহায়তায় ভ্যাকসিন কুল বক্সে রাখার আগ পর্যন্ত মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা মাইনাস ১১২ ডিগ্রি ফারেনহাইটের কাছাকাছি তাপমাত্রায় রাখাতে হয়্৷ আর আলট্রা-লো টেম্পারেচার, অর্থাৎ অতি শীতল তাপমাত্রা থেকে বের করে আনার পর ভ্যাকসিনগুলো দুই থেকে আট ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার মধ্যে রাখা অত্যাবশ্যক৷ সেভাবে রাখা হলে ভ্যাকসিন অন্তত পাঁচদিন কার্যকর থাকে৷

কিন্তু বাভারিয়ার লিশ্টেনফেলস জেলা কর্তৃপক্ষ একটা কুল বক্সের ভ্যাকসিন পেয়েছে ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায়৷ এর ফলে অন্তত হাজার খানেক ডোজ এখন কার্যকারীতা হারানোর ঝুঁকিতে৷ ভ্যাকসিনগুলো এখন কাউকে দেয়া ঠিক হবে কিনা লিশ্টেনফেলস জেলা কর্তৃপক্ষ তা বুঝতে পারছে না৷ লিশ্টেনফেলসের এক মুখপাত্র জানান, এ বিষয়ে পরামর্শের জন্য বায়োনটেকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও এখনো কোনো সাড়া মেলেনি৷

বাভারিয়ার কোবুর্গ, ক্রোনাখ, কুল্মবাখ, হফ, বায়রয়েথ এবং ভুনজিডেল জেলা কর্তৃপক্ষও ভ্যাকসিন নিয়ে এখন একই সমস্যায়৷ প্রয়োজনের চেয়ে বেশি তাপমাত্রায় কুলবক্সে পাওয়া ভ্যাকসিন কাউকে দেয়া ঠিক হবে কিনা এ বিষয়ে তারাও সংশয়ে৷

এর আগে এক বিবৃতিতে বায়োনটেক জানিয়েছিল, জার্মানিরনির্ধারিত ২৫টি স্থানে ব্যবহারযোগ্য অবস্থায় ভ্যাকসিন পৌঁছে দেয়ার যাবতীয় দাযিত্ব তাদের৷ পৌঁছানোর পর সংরক্ষণ এবং ভ্যাকসিন দেয়ার কর্মসূচি শুরুর বিষয়টি সংশ্লিষ্ট রাজ্য বা স্থানীয় কর্তৃপক্ষের বলেও সেই বিবৃতিতে জানানো হয়েছিল৷

এসিবি/কেএম (এএফপি, এপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

সংশ্লিষ্ট বিষয়