জার্মানিতে চিকিৎসাখাতে ভালো করছেন বাংলাদেশিরা | বিশ্ব | DW | 28.08.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ডিডাব্লিউ ক্যাম্পাস

জার্মানিতে চিকিৎসাখাতে ভালো করছেন বাংলাদেশিরা

জার্মানিতে ডাক্তারি পড়ার পাশাপাশি চিকিৎসাখাতের গবেষণাতেও খুব ভালো করছেন বাংলাদেশিরা৷ এখানকার পড়াশোনা ও গবেষণার মান বিশ্ব মানের হওয়ায় আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নাম করার সুযোগ রয়েছে এই বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের৷

এইচএসসি পাশ করে একাই জার্মানিতে চলে এসেছেন উর্মি রহমান৷ উদ্দেশ্য ডাক্তারি পড়া৷

‘‘আমি এখানে এসে প্রথমে ভাষা শিখি৷ তারপর স্টুডিয়েনকলেগ (ব্যাচেলর পড়ার প্রস্তুতি কোর্স) করি৷ তারপর ডাক্তারি পড়া শুরু করি,'' বলেন ঊর্মি৷ 

বাংলাদেশের এই শিক্ষার্থী এখন ডাক্তারি পড়ছেন জার্মানির হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল ফ্যাকাল্টিতে৷ আর তিন বছর লাগবে ডাক্তারি পাশ করতে৷ কাজটা কঠিন ছিল ঊর্মির কাছে৷ কিন্তু সেই কঠিন কাজটিই করেছেন ধৈর্য্যের সঙ্গে৷

‘‘আমরা তো বাংলাদেশে পরিবারের সহযোগিতা নিয়ে সবকিছু করে অভ্যস্ত৷ তাই এটা একটা চ্যালেঞ্জ ছিল,'' বলেন তিনি৷ ‘‘সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল ভাষা শেখা৷ আর আমার পড়া যেহেতু জার্মান ভাষায়, তাই চ্যালেঞ্জ ছিল সি১ লেভেল পর্যন্ত শেখা৷''

বাংলাদেশ থেকে যারা ডাক্তারি পড়ে এখানে আসেন, তাদের একটি লাইসেন্স টেস্ট দিতে হয় বলে জানান ঊর্মি৷ সেই পরীক্ষাটি জার্মান ভাষায় হয়৷ তাই ডাক্তারি পড়তে হলে জার্মান ভাষা জানতেই হয়৷

উৎস আলী হায়দারের অবশ্য ভাষা নিয়ে এতটা সমস্যায় পড়তে হয়নি৷ হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাস্কুলার বায়োলজি অ্যান্ড টিউমার এনজিওজেনেসিস বিভাগে পিএইচডি শুরু করেন তিনি৷ গবেষণার এ পর্যায়ে ইংরেজি ভাষা চলে৷

‘‘আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বায়োকেমিস্ট্রি অ্যান্ড মলিক্যুলার বায়োলজি  থেকে পাশ করে জার্মানিতে সেল বায়োলজি ও ফিজিওলজির ওপরে মাস্টার্স করি৷ এরপর এখানে ডায়বেটিস নিয়ে গবেষণার জন্য পিএইচডি পজিশনটি দেখে আগ্রহী হই এবং আবেদন করি,'' বলেন তিনি৷  তবে তার চ্যালেঞ্জ ছিল অন্য৷

‘‘পড়াশোনার জন্য না লাগলেও প্রাত্যহিক জীবনে জার্মান ভাষাটা লাগে৷ তাই আমি সেটা শিখেছি৷ তবে বাংলাদেশে যেটা আমরা খুব বেশি শিখি না, যেমন নিজে নিজে সিদ্ধান্ত নেয়া বা সময়ানুবর্তিতা, সেটি জার্মান শিক্ষার্থীরা খুব ছোটবেলা থেকে শেখেন৷ আমি তাদের কাছ থেকে সেটা শেখার চেষ্টা করেছি,'' বলেন উৎস৷

এই দুই শিক্ষার্থী জানান, জার্মানিতে পড়াশোনার খরচ (টিউশন ফি) কোনো কোনো রাজ্যে একেবারে শূন্য৷ তবে যেখানে হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়টি অবস্থিত সেই বাডেম ভ্যুটেমব্যর্গ রাজ্যে এখন সেটি সেমিস্টার প্রতি দেড় হাজার ইউরো৷ তারা বলেন, জার্মানিতে পড়াশোনার পাশাপাশি চাকরি পাওয়া কঠিন নয়৷ তবে এর পাশাপাশি ডাক্তারি বা চিকিৎসা খাতে গবেষণা করার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কলারশিপের সাপোর্ট থাকা ভালো৷

‘‘যেহেতু ডাক্তারিতে পড়াশোনা বেশি, তাই একটার বেশি জব করা সম্ভব নয়৷ সপ্তাহে একদিন বা দুইদিন কাজ করা যায়৷ তাতে বাড়ি থেকে কিছুটা সাপোর্ট থাকলে সুবিধা,'' বলেন ঊর্মি৷

আর উৎস বলেন, ‘‘যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কিছুটা সাপোর্ট পাচ্ছি এবং একটি জব করছি, তাতে আমার বেশ ভালোই চলে যাচ্ছে৷''

শুধু ঊর্মি ও উৎসই নন, জার্মানিতে অনেক বাংলাদেশিই ডাক্তারি পড়তে আসছেন এবং তারা ভালো করছেন৷ অনেকে এখান থেকে গবেষণা করে দেশে ফেরত যাচ্ছেন এবং বিভিন্ন দেশের গবেষকদের সঙ্গে মিলে নতুন নতুন গবেষণাও করছেন৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন