1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ছবি: picture-alliance/dpa/A. Warmuth

জার্মানিতে ইমামদের ভাষাজ্ঞানের প্রমাণ দিতে হবে

৮ নভেম্বর ২০১৯

ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরে থেকে জার্মানিতে আসা ধর্মীয় নেতারা জার্মানিতে থাকতে চাইলে জার্মান ভাষা বলার দক্ষতা অর্জন করতে হবে৷ সব ধর্মের ক্ষেত্রেই এই আইন প্রযোজ্য হবে৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%87%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%B7%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A7%8D%E0%A6%9E%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A3-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%B9%E0%A6%AC%E0%A7%87/a-51168517

তবে মন্ত্রিসভায় উত্থাপিত এই খসড়া আইনে বিশেষভাবে ইসলাম ধর্মের কথা উল্লেখ করা হয়েছে বলে বুধবার নিশ্চিত করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র৷ তিনি বলেন, ‘‘বিদেশি ইমামেরা জার্মান বলতে পারবেন বলে আমরা আশা করি৷’’

জার্মানির বর্তমান শ্রমআইনে দাতব্য কিংবা ধর্মীয় কাজের জন্য ভিসা ইস্যু করতে কোনো শর্ত আরোপ করা নেই৷ খসড়া আইনে এই ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনার প্রস্তাব করা হয়েছে৷ এটি পাস হলে বিদেশি ধর্মীয় নেতাদের জার্মানিতে আসার এক বছরের মধ্যে পরিবার, কেনাকাটা, কাজের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে জার্মান ভাষায় আলোচনা করার দক্ষতা অর্জন করতে হবে৷

খসড়া আইনে বলা হয়েছে, ধর্মীয় কারণে নেতারা তাঁদের সম্প্রদায়ে প্রায়সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় অবতীর্ণ হন৷

জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার বলেছেন, সফলভাবে অভিবাসনের জন্য জার্মান ভাষায় দক্ষতা অর্জন করা অপরিহার্য৷

সবুজ দলের আইনপ্রণেতা ফিলিৎস পোলাট খসড়া আইনের সমালোচনা করেছেন৷ তিনি বলেন, এটি পাস হলে ইমাম স্বল্পতার বিষয়টি আরও বেড়ে যাবে৷

বর্তমানে জার্মানিতে প্রায় দুই হাজার মসজিদ রয়েছে৷ প্রায় ৯০ শতাংশ ইমাম বিভিন্ন দেশ থেকে এসেছেন৷

জার্মানির অনেক ক্যাথেলিক ও প্রোটেস্টান্ট গির্জায়ও ইইউর বাইরের যাজকরা কাজ করছেন৷

জেডএইচ/কেএম (ইপিডি, কেএনএ)

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

Bangladesch | Dhaka Karwan Market

মূল্যস্ফীতির আরো চাপে সাধারণ মানুষ

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান