জার্মানিতে আগের তুলনায় অপরাধ কমেছে | বিশ্ব | DW | 23.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

জার্মানিতে আগের তুলনায় অপরাধ কমেছে

পুলিশের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৭ সালে জার্মানিতে সব ধরনের অপরাধ প্রায় ১০ শতাংশ কমেছে৷ তবে কয়েকটি ক্ষেত্রে অপরাধ বৃদ্ধির লক্ষণও দেখা গেছে৷

‘ভেল্ট আম জোনটাগ’ পত্রিকায় ২০১৭ সালে জার্মানিতে অপরাধের পরিসংখ্যান সম্পর্কে যে বিবরণ প্রকাশিত হয়েছে, সেখানে পুলিশ কর্মকর্তারা দাবি করেছেন,  ১৯৯৩ সালের পর থেকে এক বছরের মধ্যে অপরাধ এতটা কমার ঘটনা আগে দেখা যায়নি৷ অর্থাৎ গত ২৫ বছরের মধ্যে এটা একটা রেকর্ড৷

অপরাধের পরিসংখ্যান

-    ২০১৭ সালে জার্মানিতে ৫৭ লাখ ৬০ হাজার অপরাধ নথিভুক্ত করা হয়, যা কিনা ২০১৬ সালের তুলনায় ৯ দশমিক ৬ শতাংশ কম৷

-    এই সব অপরাধের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ ছিল চুরির ঘটনা, যা ২০১৬-র তুলনায় ১১ দশমিক ৮ শতাংশ কমেছে৷

-    বিপণী কিংবা বিভাগীয় বিপণীতে চুরির সংখ্যা ৬ দশমিক ৬ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৩৫ লাখ ৩ হাজার ৩৮৪টি; পকেটমারির সংখ্যা ২২ দশমিক ৭ শতাংশ কমে ১ লাখ ২৭ হাজার ৩৭৬টিতে দাঁড়িয়েছে৷

-    গাড়ি চুরির সংখ্যা ৮ দশমিক ৬ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৩৩ হাজার ২৬৩টিতে; সাইকেল চুরি ৯ দশমিক ৮ শতাংশ কমে হয়েছে ৩ লাখ ৬টি৷

-    বাড়িতে ঢুকে চুরির সংখ্যা ২৩ শতাংশ কমে ১ লাখ ১৬ হাজার ৫৪০টি হয়েছে; তবে ৮০ শতাংশ চুরির ঘটনায় অপরাধী ধরা বা শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি৷

-    সহিংস অপরাধের সংখ্যা ২ দশমিক ৪ শতাংশ কমে দাঁড়ায় ১ লাখ ৮৮ হাজার ৯৪৬টি ঘটনায়, যার মধ্যে ১ লাখ ৩৭ হাজার ৫৮টি ঘটনায় কোনো-না-কোনো ব্যক্তি গুরুতরভাবে আহত হয়েছেন৷

-    খুনের সংখ্যা ৩ দশমিক ২ শতাংশ বেড়ে ৭৮৫টি হয়েছে৷

-    মাদক সংক্রান্ত অপরাধের সংখ্যা ৯ দশমিক ২ শতাংশ বেড়ে  ৩ লাখ ৩০ হাজার ৫৮০টিতে দাঁড়িয়েছে৷

-    শিশুদের নিয়ে পর্নোগ্রাফি সংক্রান্ত অপরাধের সংখ্যা ১৪ দশমিক ৫ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৫১২টি৷

-    অপরাধী হিসেবে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের মধ্যে অ-জার্মান অধিবাসীদের সংখ্যা ২২ দশমিক ৮ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৩৬ হাজার ২৬৫-তে৷

মানুষ কম, তাই অপরাধও কম

জার্মান পুলিশ কর্মকর্তা সংগঠনের সভাপতি অলিভার মালকোভ ‘ভেল্ট আম জোনটাগ’ পত্রিকাকে এই পরিসংখ্যান থেকে দেশের ‘‘নিরাপত্তা পরিস্থিতি সম্পর্কে আগেভাগে কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর’’ ব্যাপারে সাবধান করে দেন৷

মালকোভের মতে, অপরাধের সংখ্যা কমার একটা কারণ এ-ও হতে পারে যে, ২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সালে অনেক কম রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী জার্মানিতে এসেছেন৷ তবে মালকোভ স্পষ্ট করে দেন যে, অভিবাসীদের অপরাধ প্রবণতা যে বেশি, তিনি এমন আভাস দিতে চাইছেন না৷

বরং পরিসংখ্যান থেকে দেখা গেছে যে, দেশে যত মানুষ বাড়ে, তত অপরাধের সংখ্যাও বাড়ে৷ অপরদিকে বিভিন্ন জরিপ থেকে জানা গেছে যে, সিরিয়া ও ইরাক থেকে আগত উদ্বাস্তুরা কম অপরাধ করে থাকেন, কেননা, তা বৈধভাবে জার্মানিতে বসবাসের অনুমতি পাওয়ার পথে প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়াতে পারে৷

জার্মানরা কী ভাবেন?

ইতিপূর্বে একটি জনমত সমীক্ষায় দেখা গিয়েছিল, প্রায় অর্ধেক জার্মান বিশ্বাস করেন যে, এদেশে এমন সব আইন-শৃঙ্খলা বর্জিত জায়গা আছে, যেখানে পুলিশ পর্যন্ত যেতে ভয় পায়৷ অপরদিকে দেশে অপরাধের সংখ্যা বাড়ার জন্য প্রায়শই অভিবাসীদের দায়ী করা হয়ে থাকে, যদিও ফেডারাল অপরাধ দপ্তরের বিবরণ অনুযায়ী, যাবতীয় এ দেশে জন্ম নেয়া জার্মানদের অপরাধপ্রবণতা অভিবাসীদের চেয়ে বেশি৷

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট জেহোফার ৮ই মে তারিখে রাজ্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনে অপরাধ সংক্রান্ত পরিসংখ্যান পেশ করবেন৷

এসি/এসিবি (ডিপিএ, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন