‘জাতীয় সংগীত আমাদের অস্তিত্বের নাম’ | আলাপ | DW | 09.08.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘জাতীয় সংগীত আমাদের অস্তিত্বের নাম’

বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করে বিতর্কের মুখে পড়েছেন সদ্য খ্যাতি পাওয়া সংগীতশিল্পী নোবেল৷ এ নিয়ে কী বলছেন দুই বাংলার শিল্পীরা?

পশ্চিমবঙ্গের ছোট পর্দার গানের প্রতিযোগ সারেগামাপা দিয়ে রাতারাতি তারকা হয়ে গেছেন মাঈনুল আহসান নোবেল৷ দুই বাংলায় তাকে নিয়ে শুরু হয় মাতামাতি৷ তবে দিন কয়েক না যেতেই বিতর্ক উসকে দেওয়ার মত মন্তব্য করে বসলেন৷ ব্যক্তিগত মতের নামে রবি ঠাকুরের ‘আমার সোনার বাংলা'র অসম্পূর্ণতা তুলে ধরলেন৷ এই গানের চেয়ে এগিয়ে রাখলেন প্রিন্স মাহমুদের ‘বাংলাদেশ' গান৷ অনলাইন সমাজমাধ্যমের যুগে কথা বায়ুতে মেশার সুযোগ খুবই কম৷ ছড়িয়ে যায় দিকে দিকে৷ 

তাই বক্তব্য দিতে গিয়ে সতর্ক থাকতে বললেন বাংলাদেশের প্রবীণ কণ্ঠশিল্পী খুরশিদ আলম৷ তরুণদের প্রতি তার পরামর্শ - ‘‘তরুণদের প্রতি পরামর্শ- কোনটা বলবো না বলবো, এটা আগে ১০ বার চিন্তা করা উচিত৷ জাতীয় সংগীত কী হওয়া উচিত না হওয়া উচিত এটা আমাদের দায়িত্ব না, সরকারের দায়িত্ব৷''

অডিও শুনুন 01:43

‘জাতীয় সংগীত কী হওয়া উচিত না হওয়া উচিত এটা আমাদের দায়িত্ব না’

একই রকম ভাষ্য আরও বিশদে দিলেন বাংলাদেশের আরেক সংগীতশিল্পী ফেরদৌস আরা৷ তার কথা হচ্ছে- ‘‘আমার দেশকে যখনি আমি ভালোবাসবো- আমার পতাকাকে ভালোবাসবো, আমার জাতির জনককে ভালোবাসবো, আমার জাতীয় সংগীতকে ভালোবাসবো, জাতীয় কবিকে ভালোবাসবো৷ এইগুলোর সঙ্গে কোনো কিছুর তুলনা মোটেও করা উচিত না৷''

নোবেল বাংলাদেশের জন্য সুনাম বয়ে এনেছে- এই দিকটিও তুলে ধরলেন তিনি৷ ‘‘আমাদের দেশকে সাম-হাউ কিন্তু রিপ্রেজেন্ট করেছে নোবেল৷ আন্তর্জাতিক মানে সে উন্নত হয়েছে৷ খুব ভালো একটা কণ্ঠস্বর৷ সে উন্নতি করুক, বাংলাদেশকে বিশ্বে প্রচার দিক সেটা আমরা কামনা করি৷ কিন্তু একই সঙ্গে তাকে আরও একটু গভীর হতে হবে৷'' নোবেলের মন্তব্য ক্ষমাসুন্দর চোখে দেখার আহ্বান জানিয়ে শেষ করেন ফেরদৌস আরা৷ 

অডিও শুনুন 00:56

‘এইগুলোর সঙ্গে কোনো কিছুর তুলনা করা উচিত না’

নোবেলের মন্তব্য নিয়ে কোনো কথা বলতেই রাজি হলেন না সংগীতশিল্পী মৌসুমী ভৌমিক৷ শুধু বললেন, ‘‘আমার সোনার বাংলা অপূর্ব সুন্দর গান৷ যে যা বলে বলুক, তাতে কোনো গান খারাপও হয় না ভালোও হয় না৷ তাতে রবীন্দ্রনাথ ছোটও হন না, বড়ও হন না৷''

বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত হিসেবেও ‘আমার সোনার বাংলা'কে পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গীতশিল্পী সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায় আলাদা চোখে দেখেন৷ দিন কয়েক আগের টাটকা স্মৃতি জানালেন এভাবে- ‘‘একটা সত্যি কথা বলি এবার ওয়ার্ল্ড কাপ ক্রিকেট যখন হচ্ছিলো, তখন বিভিন্ন দেশের জাতীয় সংগীত বাজছিলো৷ আর বাংলাদেশ যখন খেলছিলো আর আমার সোনার বাংলা যখন বাজছিলো, তখন সত্যিই গর্ববোধ হচ্ছিলো৷ ওতো বড় একটা ইন্টারন্যাশনাল, ওতো বড় একটা  প্ল্যাটফর্মে বাংলা গান বাজছে, আমি বাঙালি হিসেবেই দেখি এটা কে৷''

অডিও শুনুন 00:16

‘আমার সোনার বাংলা অপূর্ব সুন্দর গান’

তবে মতপ্রকাশের স্বাধীনতায় দারুণ বিশ্বাসী সুরজিৎ৷ বললেন, ‘‘নোবেলের মন্ত্যবটা একান্তই নোবেলের ব্যক্তিগত মন্তব্য৷ কেউ মানবে, কেউ মানবে না- সেটা তো হতেই পারে৷ নোবেল তার জায়গা থেকে একটা কথা বলতেই পারে, সেটা তার মত৷''

যার গান বড় করতে গিয়ে নোবেল রবি ঠাকুরের জাতীয় সংগীত ছোট করেছেন সেই প্রিন্স মাহমুদ কী বলছেন? মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হয় তার সঙ্গে৷ ফোন ধরে নিজেই আগেভাগে বলে দিলেন, এ বিষয় নিয়ে কোনো কথা বলবেন না৷ জানিয়ে দিলেন ৪ আগস্ট ফেসবুকে যা লিখেছেন, সেটাই তার মন্তব্য৷ ফেসবুকবার্তায় তার সেই পংক্তি হচ্ছে- ‘জাতীয় সংগীত আমাদের অস্তিত্বের নাম৷'

প্রিয় পাঠক, আপনার কি কিছু বলতে চান? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন