জাতীয় পরিচয়পত্রের দায়িত্ব পাচ্ছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 28.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

জাতীয় পরিচয়পত্রের দায়িত্ব পাচ্ছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

জাতীয় পরিচয়পত্রের দায়িত্ব স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগকে দেয়া হচ্ছে৷ সেই লক্ষ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রয়োজনীয় আইন সংশোধনসহ প্রাথমিক কাজ শুরু করেছে৷

National Identity Card of Bangladesh

প্রতীকী ছবি৷

ভোটার পরিচয়পত্র থেকেই বাংলাদেশে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি)-র ধারণাটি পোক্ত হয়৷ এনআইডি আইন করা হয় ২০১০ সালে৷ এতদিন নির্বাচন কমিশন এনআইডির দায়িত্ব পালন করে এলেও এখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগকে এই দায়িত্ব দেয়ার কাজ শুরু হয়েছে৷
সেটা করতে একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রস্তাব তৈরি করা, জাতীয় পরিচয়পত্র আইন সংশোধন এবং নির্বাচন কমিশন থেকে প্রয়োজনীয় জনবল ও অবকাঠামো সুরক্ষা বিভাগে হস্তান্তরের কাজ করতে হবে৷ তবে এর বিরোধিতা করছে নির্বাচন কমিশন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন৷
মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে নির্বাচন কমিশন সচিব এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগের সচিবকে গত ২৪ মে পাঠানো চিঠিতে এনআইডি'র কাজ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগে ন্যাস্ত করতে তাদের তিন ধরনের কার্যক্রম নিতে বলা হয়েছে:

১.জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন সংক্রান্ত সব ধরনের কাজ সুরক্ষা বিভাগে ন্যাস্ত করতে রুলস অব বিজনেস-১৯৯৬-এর ১০ অনুসরণ করে একটি সয়ংসম্পূর্ণ প্রস্তাব মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো৷
২. জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইন ২০১০-এ ‘নির্বাচন কমিশন’-এর পরিবর্তে ‘সরকার’ শব্দ অন্তর্ভূক্ত করাসহ প্রয়োজনীয় সংশোধনের ব্যবস্থা করা৷
৩. সুরক্ষা সেবা বিভাগের অধীনে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন কাজ পরিচালনার জন্য বিদ্যমান অববাঠামো ও জনবল নির্বাচন কমিশন হতে সুরক্ষা সেবা বিভাগে হস্তান্তরের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা৷

অডিও শুনুন 00:58

‘জাতীয় পরিচয়পত্রের কাজ সুরক্ষা বিভাগের অধীনে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে’

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. মোকাব্বির হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘জাতীয় পরিচয়পত্রের কাজ সুরক্ষা বিভাগের অধীনে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে৷ তবে সেটা করতে হলে কিছু আইন ও অ্যালোকেশন অব বিজনেস সংশোধন করার দরকার আছে৷ সেটা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ করবে৷ তারা সেটা করলে তারপর আমরা কাজ শুরু করবো৷ এখনো আইনগতভাবে কিছু করার অবস্থা এই ডিভিশিনের হয়নি৷ তারা সেই কাজ করছেন৷ সেটা সম্পন্ন হলে সুরক্ষা বিভাগ কাজ শুরু করতে পারবে ৷ এটা এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে৷’’

নির্বাচন কশিনের অবকাঠামো ও জনবল হস্তান্তর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আইন হলে তখন আমরা ওই কাজটি শুরু করতে পারবো৷’’

নির্বাচন কমিশন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন এর বিরোধিতা করে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছে স্মারক লিপি দিয়েছে৷ তারা বলছে, যে কাজটি নির্বাচন কমিশন করছে সেটা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে করাতে গেলে নতুন জনবল ও অবকাঠামো তৈরিতে কোটি কোটি টাকা খরচ হবে৷ আর ভোটার আইডি কার্ড করতে গিয়ে কমিশন নাগরিকদের ৩২ ধরনের তথ্য সংগ্রহ করে৷ তাই কাজটি কমিশনের হাতে থাকাই যুক্তিযুক্ত হবে৷

সরকার আগেই অবশ্য এনআইডির দায়িত্ব থেকে নির্বাচন কশিমনকে বাদ দেয়ার চিন্তা করেছিল, কারণ, এনআইডি হবে দেশের সব নাগরিকের জন্য, শুধু ভোটারের জন্য নয়৷ এছাড়া জাতীয় নিরাপত্তাসহ আরো অনেক কাজে এটা ব্যবহারোপযোগী করতে চায়৷ গত আগস্টে এ নিয়ে সিদ্ধান্তের পর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিভাগও আগ্রহ দেখায়৷ তবে শেষ পর্যন্ত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগকে উপযুক্ত মনে করা হয়৷

অডিও শুনুন 00:36

‘সরকার এই দায়িত্ব কাদের দিতে চায়, সেটা তাদের সিদ্ধান্তের বিষয়’

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের অধীনে আছে- বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স, কারা অধিদপ্তর এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর৷

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আরেকটি বিভাগের নাম জননিরাপত্তা বিভাগ৷ এর অধীনে আছে বাংলাদেশ পুলিশ,বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ, বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড এবং বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী৷ একজন সিনিয়র সচিব এই বিভাগের দায়িত্বে আছেন৷

জাতীয় পরিচয়পত্র বাংলাদেশে খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠৈছে৷ এখন এই পরিচয় পত্রের মাধ্যমে ২২ ধরনের সেবা দেয়া হয়৷ তবে ভোটার যারা, তারাই এখন জাতীয় পরিচয়পত্রের অধিকারী৷ শুরুতে ম্যানুয়েল থাকলেও জাতীয় পরিচয়  পত্র এখন ডিজিটাল করা হয়েছে৷ নির্বাচন কমিশন এ পর্যন্ত ১৮ বছরের বেশি বয়স এরকম ১০ লাখ নাগরিকের জাতীয় পরিচয়পত্রের ডাটাবেজ তৈরি করেছে৷

জাতীয় পরিচয়পত্রের দায়িত্ব সুরক্ষা বিভাগকে দিতে সরকারের সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনার শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘‘এটা সরকারের সিদ্ধান্ত৷ সরকার এই দায়িত্ব কাদের দিতে চায়, সেটা তাদের সিদ্ধান্তের বিষয়৷ সচিব চিঠি পেয়েছেন৷ এটা নিয়ে আলোচনা হবে৷ প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিশ্চয়ই এটা নিয়ে আমাদের সঙ্গে কথা বলবেন৷ সেখানেই বিস্তারিত জানা যাবে ও সিদ্ধান্ত হবে৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়