জাতিসংঘ কর্মীদের আগামী মাসের বেতন নিয়ে শঙ্কা | বিশ্ব | DW | 09.10.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

জাতিসংঘ কর্মীদের আগামী মাসের বেতন নিয়ে শঙ্কা

যুক্তরাষ্ট্র, ইসরায়েল, সৌদি আরবসহ ৬৪টি দেশ এখনও জাতিসংঘের চাঁদা দেয়নি৷ তাই কর্মীদের আগামী মাসে বেতন দেয়া যাবে কিনা, তা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন সংস্থার মহাসচিব৷

মঙ্গলবার বাজেট কমিটির বৈঠকে আন্তোনিও গুতেরেস বলেন, ‘‘এ মাসে গত এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বড় অর্থসংকটে পড়বো আমরা৷ নভেম্বরে বেতন দেয়ার মতো পর্যাপ্ত অর্থ না পাওয়ার ঝুঁকি রয়েছে৷''

সংকট কমাতে এর মধ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি৷ এর মধ্যে আছে, শূন্য পদগুলো এখন পূরণ না করা, শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় ভ্রমণের অনুমতি দেয়া এবং বিভিন্ন বৈঠক পিছিয়ে দেয়া কিংবা বাতিল করা৷

২০১৯ সালে জাতিসংঘ পরিচালনার বাজেট প্রায় ২৮ হাজার কোটি টাকা৷ এর ২২ শতাংশ দেয়ার কথা যুক্তরাষ্ট্রের৷ কিন্তু এখনও সেটা পাওয়া যায়নি৷

তবে জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্র মিশনের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রের কাছে জাতিসংঘের পাওয়া টাকার একটি অংশ এই শরতে দেয়া হবে৷

জাতিসংঘের সবচেয়ে বড় দাতা দেশ যুক্তরাষ্ট্র৷ তারা ছাড়াও ৬৪টি দেশ এখনও চাঁদা দেয়নি বলে জানিয়েছেন সংস্থার কর্মকর্তারা৷ এর মধ্যে কয়েকটি দেশ হচ্ছে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, মেক্সিকো, ইরান, ইসরায়েল, সৌদি আরব, দক্ষিণ কোরিয়া, উত্তর কোরিয়া ও ভেনেজুয়েলা৷

জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন পরিচালনার জন্য আলাদা বাজেট রয়েছে৷ চলতি অর্থবছরে সেই বাজেটের পরিমাণ হচ্ছে ৬.৫১ বিলিয়ন ডলার৷ এই বাজেটের প্রায় ২৮ শতাংশ দেয়ার কথা যুক্তরাষ্ট্রের৷ তবে ২৫ শতাংশ অর্থ দেয়ার অঙ্গীকার করেছে দেশটি৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প বলেন, জাতিসংঘ পরিচালনার অন্যায় ভার যুক্তরাষ্ট্র বহন করে চলেছে৷ সংস্থায় সংস্কার আনার পরামর্শও দিয়েছেন তিনি৷

জেডএইচ/কেএম (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন