জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা বাহিনীর যৌন নির্যাতনের কালো অধ্যায় | বিশ্ব | DW | 19.09.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

আফ্রিকা

জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা বাহিনীর যৌন নির্যাতনের কালো অধ্যায়

বিভিন্ন দেশে শান্তি রক্ষা করতে অন্য দেশের নিরাপত্তা বাহিনী পাঠায় জাতিসংঘ৷ অতীতে তাদের অনেকের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

সম্প্রতি যৌন হয়রানি ও প্রতারণার অভিযোগ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক থেকে গ্যাবনের সাড়ে চারশ শান্তিরক্ষা সদস্যকে দেশে ফেরত পাঠিয়েছে জাতিসংঘ৷

এই অভিযোগের আগ পর্যন্ত পাওয়া তথ্য বলছে, ২০১০ সালের পর থেকে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা বাহিনীর ১,২৬৫ জন সেনা, পুলিশ ও স্টাফের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে৷ 

২০১৬ সালের এক ঘটনায় ভুক্তভোগীদের প্রায় অর্ধেক শিশু হওয়ায় তখন বিষয়টি বেশ আলোচিত হয়েছিল৷

২০১৭ সাল থেকে জাতিসংঘ প্রতিবছর তার স্টাফ ও সেনাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে আসছে৷

ক্যামেরুন, দক্ষিণ আফ্রিকা, ডিআর কঙ্গো ও গ্যাবনের শান্তিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বেশি যৌন নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে বলে জাতিসংঘ জানিয়েছে৷

সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক

সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে মোতায়েন থাকা শান্তিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ ওঠার ঘটনা এটাই প্রথম নয়৷

একের পর এক অভিযোগ ওঠায় ২০১৮ সালের মার্চে গ্যাবন সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক থেকে তাদের সব সৈন্য সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছিল৷ কিন্তু সেনারা তা না শুনে সেখানে থেকে গেছে৷

২০১৬ ও ২০১৭ সালে রিপাবলিক অফ কঙ্গোর সাতশর বেশি সৈন্যকে যৌন হয়রানির অভিযোগে সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক থেকে সরিয়ে নেয়া হয়৷

২০১৪ সালে ফ্রান্সের সেনাদের বিরুদ্ধে সাত থেকে ১৩ বছর বয়সি শিশুদের খাবারের বিনিময়ে যৌন সুযোগ দেয়ার লোভ দেখানোর অভিযোগ উঠেছিল৷

২০০৮ সালে সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে মোতায়েন থাকার সময় ২৩ জন অপ্রাপ্তবয়স্কের ওপর যৌন হামলা চালানোর দায়ে জাতিসংঘের হয়ে কাজ করা ফ্রান্সের এক মেকানিককে নয় বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়৷ ঐ মেকানিক ১৯৯৮ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে মোতায়েন ছিলেন৷ 

২০১৬ সালে মিশরের এক সেনাকে পাঁচ বছরের জেল দেয়া হয়েছিল৷

হাইতি

শান্তিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ ওঠায় ২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্র জাতিসংঘের সমালোচনা করে৷ সেই সময় তারা হাইতিতে শ্রীলঙ্কার সেনাদের পরিচালিত একটি ‘সেক্স রিং' এর উদাহরণ দিয়েছিল৷ এই ঘটনায় শ্রীলঙ্কার একশর বেশি সেনাকে দেশে ফেরত পাঠানো হলেও তাদের বিচার করা হয়নি৷

২০১১ সালে উরুগুয়ের সেনারা হাইতির এক টিনএজারকে ধর্ষণ করছে এমন এক ভিডিও ইন্টারনেটে প্রকাশ পেয়েছিল৷ এই ঘটনায় উরুগুয়ের পাঁচ সেনাকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল৷ উরুগুয়ের সেই সময়কার প্রেসিডেন্ট হাইতির কাছে ক্ষমাও চেয়েছিলেন৷

দক্ষিণ সুদান

২০০৭ সালে দক্ষিণ সুদানে শিশুদের উপর যৌন নির্যাতন চালানোর অভিযোগে বাংলাদেশের চার শান্তিরক্ষা সদস্যকে বরখাস্ত করা হয়েছিল৷

শরণার্থী নারীদের যৌন হয়রানি করার অভিযোগে ঘানার ৪৬ জন শান্তিরক্ষা বাহিনীর সদস্যকে ২০১৮ সালে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল৷

এছাড়া ডিআর কঙ্গো ও আইভরি কোস্টেও এমন ঘটনা ঘটার অভিযোগ পাওয়া গেছে৷

জেডএইচ/কেএম (এএফপি)