জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বিশ্ব জনগোষ্ঠীর অস্তিত্ব বিপন্ন | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 13.04.2009
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞান পরিবেশ

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বিশ্ব জনগোষ্ঠীর অস্তিত্ব বিপন্ন

পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে গরিব দেশগুলোর অস্তিত্ব বিপন্ন হতে চলেছে৷ বাংলাদেশও তার অন্যতম শিকার৷ অথচ গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমনের জন্য অধিকতর দায়ী ধনী দেশগুলো এখনও কোন দৃঢ় পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না৷

সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পেলে বিপন্ন হবে বাংলাদেশও

সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পেলে বিপন্ন হবে বাংলাদেশও

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বিশ্বের গড় তাপমাত্রা ২.৮ থেকে ৪ ডিগ্রি বৃদ্ধি পেলে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে দারিদ্র্য এবং পুষ্টিহীনতায় অতিরিক্ত ৩ মিলিয়ন মানুষ মারা যাবে বলে আশংকা করা হচ্ছে৷ এছাড়া, আরো ৪ বিলিয়ন মানুষ পানীয় জলের অভাবে কষ্ট পাবে৷ এই করুণ পরিণতি থেকে রক্ষা পেতে ইতিপূর্বে গৃহীত কিয়োটো প্রোটোকলের মেয়াদ ২০১২ সালে শেষ হয়ে যাচ্ছে৷

তাই কিয়োটো প্রোটোকলের ভবিষ্যৎ নির্ধারণে আগামী ডিসেম্বরে কোপেনহেগেন-এ অনুষ্ঠিত হবে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক পরিকাঠামোগত সম্মেলন৷ ঐ সম্মেলনের জন্য সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা এবং দাবি দাওয়া নির্ধারণে তৎপর পরিবেশবাদীরা৷ এরই অংশ হিসেবে দুই সপ্তাহের এক আন্তর্জাতিক বৈঠকে জার্মানির বনে সমবেত হয়েছিলেন ১৯০ টি দেশের প্রায় আড়াই হাজার প্রতিনিধি৷

বন সম্মেলন শেষে অক্সফ্যাম এর বাংলাদেশ অফিসের প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর জিয়াউল হক মুক্তা একান্ত সাক্ষাৎকারে ডয়চে ভেলেকে বলেন: ২০০৭ সালে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে অনুষ্ঠিত পরিবেশ বিষয়ক সম্মেলন থেকে জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলায় চারটি পদক্ষেপের কথা আলোচনা হয়ে আসছে৷ এগুলো হচ্ছে গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস, জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে খাপখাওয়ানো বা অভিযোজন, এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় কর্মসূচি বাস্তবায়নে অর্থায়ন এবং প্রযুক্তিগত ব্যবস্থা গ্রহণ৷

তিনি বলেন, এসব আলোচনার ফলে জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলার জন্য স্বল্পোন্নত এবং ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্রগুলো তাদের সুনির্দিষ্ট দাবি-দাওয়া তুলে ধরার সুযোগ পাচ্ছে৷ আর তাদের এ সব দাবি দাওয়ার প্রতি ধনী দেশগুলোর সহানুভূতি ও ইতিবাচক ইঙ্গিত লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷

জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য প্রধানত দায়ী হচ্ছে বায়ুমন্ডলে অতিরিক্ত পরিমাণ ক্ষতিকর গ্রিন হাউস গ্যাসের উপস্থিতি৷ তাই দাবি উঠেছে, ১৯৯০ সালে ধনী দেশগুলো যে পরিমাণ গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমন করতো ২০২০ সালের মধ্যে তার ৪৫ শতাংশ এবং ২০৫০ সালের মধ্যে ৯৫ শতাংশ হ্রাস করতে হবে৷ এ দাবির প্রতি ধনী দেশগুলো পুরোপুরি একমত না হলেও একটি খসড়া দলিলে দেখা গেছে তারা এ দাবিটিকে অন্তত স্বীকৃতি দিয়েছে৷ ধনী দেশগুলো এখন পর্যন্ত ২০২০ সালের মধ্যে ১৯৯০ সালের তুলনায় ৪ থেকে ২০ শতাংশ গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাসের ব্যাপারে সম্মত হয়েছে৷

জিয়াউল হক মুক্তা বলেন: এছাড়া জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে নতুন পরিস্থিতিতে অভিযোজন বা খাপ খাওয়ানোর বিষয়ে ইতিপূর্বে তেমন বেশি আলোচনা হয়নি৷ এখন আমরা অভিযোজনের কৌশল কেমন হবে, অভিযোজনের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ এবং প্রযুক্তি কোথা থেকে আসবে এসব বিষয়ে মতামতের জন্য আলোচনার তালিকায় নিয়ে আসতে পেরেছি৷

Climate Change Sea Level

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বৃদ্ধি পাবে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা

আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা অক্সফ্যাম, জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) এবং বিশ্ব ব্যাংকের পৃথক পৃথক হিসাব অনুযায়ী, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় গরিব দেশগুলোতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ ও কর্মসূচি বাস্তবায়নে বছরে ৫০ বিলিয়ন থেকে ৮৬ বিলিয়ন ডলার অর্থ প্রয়োজন হবে৷ তবে এ পরিমাণ অর্থ সহায়তার বিষয়ে ধনী দেশগুলোর পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত সুস্পষ্ট কোন প্রতিশ্রুতি পাওয়া না গেলেও অনেক ধনী দেশই এজন্য তাদের বাজেটে বরাদ্দ রাখছে৷

জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবেলায় বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি কয়েকটি বিষয় তুলে ধরেন৷ তাঁর কথায়: ধনী দেশগুলো যদি গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস না করে তবে আমরা যতই অভিযোজন করি না কেন আমাদের রক্ষা নেই৷ দ্বিতীয় বিষয়টি হচ্ছে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে বাঁচার জন্য বিশ্বের কেউ আমাদের সহযোগিতা করুক আর না করুক, আমাদেরকে পরিবর্তিত পরিস্থিতির সাথে খাপখাওয়ানো বা অভিযোজন করতেই হবে৷ তবে এ অভিযোজনের জন্য আমরা ধনী দেশগুলোর কাছ থেকে প্রয়োজনীয় অর্থ এবং প্রযুক্তিগত সহযোগিতা চাই৷

তিনি বলেন, সর্বোপরি, বর্তমানে বাংলাদেশের সরকারি মহল, রাজনীতিবিদ এবং সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে একটি গুরুত্বপূর্ণ দাবি উত্থাপন করা হয়েছে৷ সেটি হলো, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাতের ফলে যেসব মানুষ বাস্তুহারা হচ্ছে তাদেরকে ধনী দেশগুলোতে অভিবাসনের সুযোগ দিতে হবে৷

প্রতিবেদক: হোসাইন আব্দুল হাই, সম্পাদনা: আবদুল্লাহ আল-ফারূক


বিজ্ঞাপন