‘জলবায়ু পরিবর্তনবিরোধী আন্দোলনে পিছিয়ে পড়ছে জার্মানি′ | বিশ্ব | DW | 27.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

‘জলবায়ু পরিবর্তনবিরোধী আন্দোলনে পিছিয়ে পড়ছে জার্মানি'

‘‘আমি জার্মান নাগরিক হলে জার্মানির পিছিয়ে পড়ার ব্যাপারটি নিয়ে চিন্তিত হতাম'' – বলেছেন নোবেলজয়ী সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যাল গোর৷ তিনি মনে করেন, জলবায়ু পরিবর্তনবিরোধী আন্দোলনের নেতৃত্বে পিছিয়ে পড়ছে জার্মানি৷

অ্যাল গোর মূলত জলবায়ু পরিবর্তনবিরোধীআন্দোলনকে সফল করার কাজে ভূমিকা রাখায় জার্মানির সাম্প্রতিক যে ব্যর্থতা সেদিকেই দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন৷ আর তাঁর এ বক্তব্য এসেছে ম্যার্কেল সরকারের সাম্প্রতিক এক বক্তব্যে বিষয়টি উঠে আসার পর৷ সম্প্রতি ম্যার্কেলের জোট সরকারও স্বীকার করেছে যে, ২০২০ সালের মধ্যে জার্মানি যে পরিমাণ কার্বন নিঃসরণ কমানোর লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছিল, তা অর্জন করা সম্ভব হবে না৷

অ্যাল গোর মনে করেন, জলবায়ু পরিবর্তনবিরোধী আন্দোলনের নেতৃত্ব ধরে রাখতে হলে জার্মানিকে অবশ্যই ২০৩০ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরণ কমানোর যে লক্ষ্যমাত্রা স্থির করা হয়েছে, তা অর্জন করতে হবে৷ ২০১০ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হেরে যাওয়া যুক্তরাষ্ট্রের এই সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট বার্লিনে এসেছেন জলবায়ু বিষয়ক এক সম্মেলনে অংশ নিতে৷ মঙ্গলবার ‘ক্লাইমেট রিয়েলিটি', অর্থাৎ ‘জলবায়ু বাস্তবতা' শীর্ষক এ সম্মেলনের দিনেই টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘‘বৈশ্বিক এবং আঞ্চলিক পর্যায়ে নেতৃত্ব ধরে রাখতে হলে জার্মানিকে অবশ্যই ২০৩০ সালের মধ্যে নিঃসরণ কমানোর লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হবে৷ ''

এ বিষয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের সঙ্গেও কথা বলেছেন তিনি৷ এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘‘আমি জার্মান নাগরিক হলে জার্মানির পিছিয়ে পড়ার ব্যাপারটি নিয়ে চিন্তিত হতাম৷''

জার্মানির মোট বিদ্যুতের এক তৃতীয়াংশেরও বেশি আসে কয়লাচালিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে৷ গ্রিন পার্টি এবংরা এ ক্ষেত্রে প্রত্যাশিত উন্নতি না হওয়া এবং নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী কার্বন নিঃসরণ না কমার জন্য অংশত সরকারকেই দায়ী করে৷

এসিবি/এসবি (রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন