1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান

জবাবদিহির অভাবে জঙ্গি ছুটে যায়!

এম আবুল কালাম আজাদ
২৫ নভেম্বর ২০২২

নায়িকা পরিমনিকে আদালতে নেয়ার দৃশ্য আমাদের নিশ্চয় মনে আছে৷ বিপুল সংখ্যক পুলিশের বেষ্টনীর মধ্যে তাকে আদালতে নেয়া হয়৷

https://p.dw.com/p/4K2hR
জঙ্গি ছিনতাইয়ের পর আদালতপাড়ায় নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে
জঙ্গি ছিনতাইয়ের পর আদালতপাড়ায় নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছেছবি: Mortuza Rashed/DW

সাধারণত এমন কড়া নিরাপত্তা নেয়া হয় দুর্ধর্ষ আসামির ক্ষেত্রে, যার জীবনের উপর হুমকি আছে অথবা পালিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে৷

পরিমনি সে রকম আসামি না হলেও প্রয়োজনের তুলনায় বেশি সংখ্যক পুলিশ সদস্য নিয়োজিত করা হয় তার জন্য৷ শুধু তাই নয়, পুলিশের কর্মকর্তা পর্যায়ের কয়েকজন উপস্থিত থেকে পরিমনির নিরাপত্তার বিষয়টা তদারকি করে৷

অন্যদিকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গিদের বা বড় সন্ত্রাসীদের নিরাপত্তার বেলায় উল্টো চিত্র দেখতে পাই আমরা৷ এদের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয় না৷ নামকাওয়াস্তে স্বল্প সংখ্যক পুলিশ দেয়া হয়, যা না করলেই নয়৷

অনেক ক্ষেত্রে জনবলের অভাবের কারণে পর্যাপ্ত পুলিশ দেয়া সম্ভব হয় না বলে দাবি করা হয়৷ সে যুক্তি যে সঠিক না তা পরিমনির উদাহরণ টেনে বলা যায়৷

বাংলাদেশে বর্তমানে যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে সেখানে পুলিশের সংকট হওয়ার কথা না৷ দেশে জঙ্গি হামলা নেই, রাজনৈতিক সহিংসতা ঘটছে না আবার বড় ধরনের অপরাধও খুব একটা দেখা যায় না৷ এমন পরিস্থিতে আদালত প্রাঙ্গণ ও জেল থেকে আসামিদের আদালতে আনা-নেয়ার সময় তাদের নিরাপত্তায় যথেষ্ট সংখ্যক পুলিশ নিয়োজিত করাই স্বাভাবিক৷ তবে তা করা হয় না৷

তাহলে সমস্যাটা কোথায়? কেন আসামিদের নিরাপত্তা ও আদালত প্রাঙ্গণে প্রয়োজনীয় সংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয় না?

এর পেছনে দুর্নীতি, অবহেলা ও দায়িত্বহীনতা এবং জবাবদিহির অভাব এই তিনটি বড় কারণ বলে আমি মনে করি৷

প্রথমেই আসা যাক দুর্নীতির বিষয়টায়৷ কারাগারের মত আদালতেও টাকা দিয়ে অনেক কিছু করা যায় আর তা কম-বেশি সকলেরই জানা৷

অতীতে অনেক স্পর্শকাতর মামলার আসামিরা কোর্টে হাজিরা দিতে এসে জন্মদিন ও বিবাহবার্ষিকী পালন করে, যা সম্ভব হয়েছে পুলিশের অসৎ কয়েকজন সদস্যের কারণে৷ অর্থের বিনিময়ে কোর্ট হাজতে অবৈধ সুযোগ-সুবিধা দেয়ার ব্যাপারটা সব সময় ঘটে থাকে৷

এছাড়াও আদালত প্রাঙ্গণে আদালতের কর্মচারী নেতাদের যোগসাজশে অবৈধভাবে মোটর সাইকেল রাখা হত৷ আছে অনেক অবৈধ দোকান৷ এসব কিছুই আদালতের নিরাপত্তার সাথে জড়িত৷

আবার কর্তৃপক্ষের অবহেলা আর দায়িত্বহীনতার কারণেও আদালতে যথেষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না বলে মনে হয়৷

অতীতে দেখেছি বিভিন্ন সময় জঙ্গিদের আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু ছিল আদালত৷ জঙ্গিরা বোমা হামলায় চালিয়েছে বেশ কয়েকটি আদালতে, তাতে বিচারকসহ অনেকে প্রাণ হারিয়েছে, আহত হয়েছে অনেকে৷ এসব বিবেচনায় আদালতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হবে সেটাই কাম্য ছিল৷

বিশেষ করে ঢাকার আদালতে অনেক বড় জঙ্গি ও আসামিদের আনা-নেয়া করা করা হয়৷ ঢাকার আদালত প্রাঙ্গণ অনেক জনাকীর্ণ থাকে৷ একদিনে অনেক মামলার শুনানি হয়৷ কয়েকশ আসামিকে জেল থেকে আদালতে আনা হয়৷ এমন পরিস্থিতে নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে৷ ফলে আদালতে যথাযথ নিরাপত্তা নেয়া উচিত৷ এই দায়িত্ব পুলিশ বিভাগ ও আদালত কর্তৃপক্ষের৷ কিন্তু সেদিকে তারা নজর দেন না৷

তবে কোন অঘটন ঘটলেই নিরাপত্তা জোরদার করা হয়৷ যেমন দুই জঙ্গি পালানোর পর ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের প্রবেশ পথসহ চারপাশে পাহারায় অতিরিক্ত পুলিশ, আদালতের হাজতখানার সামনেও অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পুলিশের নিরাপত্তা বেষ্টনি, কয়েদি বহনকারী প্রতিটি প্রিজন ভ্যানের সামনে ও পেছনে পুলিশের পাহারা বসানো হয়৷ মূল গেটে মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে চেক করাও হচ্ছে৷ জঙ্গি পালিয়ে যাওয়ার পর এমন নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিতান্তই লোক দেখানো৷

আমাদের দেশে ঘটনা ঘটার পর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়৷ কিন্তু ঘটনাটি যেন না ঘটে সেটা ভেবে ব্যবস্থা নেয়া হয় না৷ এটা কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও দায়িত্বহীনতা ছাড়া কিছুই না৷

এম আবুল কালাম আজাদ, ডয়চে ভেলে বাংলা
এম আবুল কালাম আজাদ, ডয়চে ভেলে বাংলাছবি: privat

এছাড়াও রয়েছে জবাবদিহির অভাব৷ সার্বিকভাবে বাংলাদেশে আইনের শাসন ও বিচার ব্যবস্থা দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে অনেকে তাদের দায়িত্ব ঠিকমত পালন করে না৷ জড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে৷ দায়িত্বে অবহেলা বা অনিয়ম-দুর্নীতির জন্য ব্যবস্থা নিয়ে কর্মকর্তাদের জবাবদিহিতার মধ্যে আনা হয় না৷ বড় জোর তাদের অন্যত্র বদলি করা হয়৷ জঙ্গি পালানোর ঘটনাতেও এমনটাই ঘটছে৷ জবাবদিহিতা না থাকলে অঘটন ঘটাই স্বাভাবিক৷

ঢাকার আদালতে ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর আরেকটি ঘটনা ঘটে৷ গুলশানের হলি আর্টিসান বেকারিতে জঙ্গি হামলা মামলার রায় শেষে ঢাকার আদালতের কাঠগড়া থেকে জঙ্গি রাকিবুল আইএস-এর পতাকা ও লোগোর আদলে তৈরি টুপি মাথায় দিয়ে প্রিজনভ্যানে ওঠে৷ এ নিয়ে তখন তোলপাড় হয়৷ আদালত এলাকার সার্বিক নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে৷ রাকিবুল জানিয়েছিল, ভিড়ের মধ্যে কেউ একজন তাকে টুপিটা দিয়েছিল৷

ঢাকার আদালতের কাঠগড়া থেকে এক জঙ্গি আইএস-এর লোগোর আদলে তৈরি টুপি পরে প্রিজন ভ্যানে ওঠেন৷
ঢাকার আদালতের কাঠগড়া থেকে এক জঙ্গি আইএস-এর লোগোর আদলে তৈরি টুপি পরে প্রিজন ভ্যানে ওঠেন৷ছবি: picture-alliance/AP Photo/M.H. Opu

এর আগে ২০১৪ সালে ত্রিশালে প্রিজন ভ্যানে হামলা করে তিন জঙ্গিকে ছিনিয়ে নেয়া হয়৷ আগের ঘটনাগুলো প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেয়া হলে একই ঘটনা আবার ঘটতো না৷

সর্বশেষ দুই জঙ্গি আদালত থেকে পালিয়ে যাওয়া পর জঙ্গিদের আদালতে আনা-নেয়ার নিরাপত্তা ও আদালত প্রাঙ্গণের নিরাপত্তা নিয়ে সবাই সচেতন হয়েছে৷ অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনসহ অন্যান্য সকল ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে৷ তবে এই ব্যবস্থা হবে সাময়িক৷ কিছু দিন পর নিরাপত্তার এই চিত্র আর থাকবে না৷ আবার সবকিছু আগের মতই ঢিলেঢালাভাবে চলতে থাকবে, যতক্ষণ না আরেকটি অঘটন ঘটবে৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

চট্টগ্রামে ১২০ পাহাড় নিশ্চিহ্নকারীদের দাপট বাড়ছে

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান