1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান

‘জনস্বার্থ’ মানে জনগণের স্বার্থ নাকি প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা?

এম আবুল কালাম আজাদ
১৯ অক্টোবর ২০২২

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর সচিবেরা মুক্তিযোদ্ধা সনদ জালিয়াতি করে চাকরি করেছেন, অনেক কর্মকর্তা ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন৷

https://p.dw.com/p/4INPF
Asien Bangladesch | Generalsekretariat | Hauptsitz
ছবি: bdnews24.com

এক ডিসি মধ্যরাতে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে সাংবাদিক নির্যাতন করেছেন৷ অনেকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগও রয়েছে৷ কিন্তু ছোটখাট দুই-তিন জন কর্মকর্তা ছাড়া কারো বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি৷ বরং এক রকম সুরক্ষা দেয়া হয়েছে৷

এর একটা কারণ হলো, অতীতের যে-কোনো সময়ের চেয়ে আমলারা অনেক বেশি ক্ষমতাশালী ও ঐক্যবদ্ধ৷ কোনো একজন কর্মকর্তা বিপদে পড়লে সবাই মিলে তাকে রক্ষা করার চেষ্টা করে৷ তবে আরেকটি দিক হলো, সরকার তাদের কাঁধে বন্দুক রেখে গুলি চালাতে হয় বলে আমলা, বিশেষ করে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের অনেক কিছু এড়িয়ে যায়৷

কিন্তু এসব কিছুকে ভুল প্রমাণিত করল তথ্যসচিবের বাধ্যতামূলক অবসর৷ মানে হলো, আমলারা নিজেদের যতই ক্ষমতাধর মনে করুন না কেন, সরকার বা প্রধানমন্ত্রী চাইলেই যে কারো উপর খড়গ নেমে আসতে পারে৷

আর সে কারণেই ২০১৮ সালের সরকারি চাকরি আইন সরকারের দরকার৷ আমলা নির্ভর হলেও প্রয়োজনে এই আইনের ব্যবহার ও অপব্যবহার সরকারের কাছে জরুরি৷ কেননা, কোনো কর্মকর্তা যদি সরকারের পুরোপুরি আনুগত্য মানতে ব্যর্থ হয় বা তার মন্ত্রীর কথামতো কাজ না করে অথবা কোনো বিষয়ে বাড়াবাড়ি করে তাহলে তাকে শায়েস্তা করার বড় অস্ত্র হলো এই আইন৷

গত রোববার এই আইনের ৪৫ ধারা অনুযায়ী ‘জনস্বার্থে' মকবুল হোসেনকে বাধ্যতামূলক অবসর দেয়া হয়৷ওই ধারায় বলা আছে, কোনো সরকারি কর্মচারীর চাকরির মেয়াদ ২৫ বছর পূর্ণ হওয়ার পর যে-কোনো সময় সরকার জনস্বার্থে প্রয়োজন মনে করলে কারণ দর্শানো ছাড়াই তাকে চাকরি থেকে অবসর দিতে পারবে৷ যে ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ, সে ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতির অনুমোদন নিতে হবে৷

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাবেক মন্ত্রীপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার ডয়েচে ভেলেকে বলেন, সংসদীয় সরকার ব্যবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর সুপারিশে রাষ্ট্রপতির অনুমোদন সাপেক্ষে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়৷ তবে যে-কোনো কারণেই হোক তাকে সরকার আর চাইছে না৷ তাই জনস্বার্থের অজুহাতে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়েছে৷

‘‘১/১১-র সেনা সমর্থিত সরকার ছাড়া সকল সরকার, জাতীয় পার্টি, আওয়ামী লীগ, বিএনপি সবাই আইনের এই ক্ষমতা অ্যাপ্লাই করেছে৷ সংবিধানে কাউকে শাস্তি দেয়ার আগে তাকে আত্মপক্ষ সমর্থন করার সুযোগ দেয়ার অধিকার দেয়া আছে৷ সেটা এখানে মানা হচ্ছে না,’’ বলছিলেন তিনি৷

তার মতে, এভাবে সরকার যাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে তারা অনেকেই উচ্চ আদালতে গেছেন এবং আদালতে সরকারের অর্ডার বা সিদ্ধান্ত টেকেনি৷ তাছাড়া আদালতের রায় পেতে এত সময় লেগেছে যে এর মধ্যে ঐ কর্মকর্তা চাকরি শেষ করে অবসরে চলে গেছেন৷ ফলে আইনটি যৌক্তিকতা হারিয়েছে৷

সাবেক এই মন্ত্রীপরিষদ সচিব মনে করেন, রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত ছাড়া এই আইন অকার্যকর বা বাতিল করা সম্ভব হবে না৷

সরকার তার প্রতিটি কাজ জনস্বার্থে বা জনগণের স্বার্থে করে৷ এটা হচ্ছে আইনি কথা৷ কিন্তু সরকার এই জনস্বার্থ শব্দটা ব্যবহার করে যখন সে তার কোনো সিদ্ধান্তের বিপরীতে কারণটা বলতে চায় না বা কারণ উল্লেখ করা সরকারের জন্য অস্বস্তিকর হয়৷

কারো বিরুদ্ধে যদি কোনো অভিযোগ থাকে, সেটা দুর্নীতি বা অনিয়মের অভিযোগ হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে৷ তবে তার একটা পদ্ধতি আছে৷ প্রথমে ঐ ব্যক্তিকে শোকজ করে তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে হবে৷ জবাব পাওয়ার পর তদন্ত কমিটির মাধ্যমে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাকে লঘু বা গুরু দণ্ডে দণ্ডিত করা যেতে পারে৷ চাকরি থেকেও অপসারণ করা যেতে পারে৷ কিন্তু তথ্যসচিবের বেলায় কিছুই করা হয় নি৷

সচিবালয়ের কয়েকজন কর্মকর্তা জানান, দুর্নীতির কোনো বিষয় থাকলে তথ্যসচিবকে আইনের মাধ্যমে ধরা সহজ হত৷ এক্ষেত্রে জনস্বার্থে কাউকে সরাসরি চাকরি থেকে সরিয়ে দেয়ার দরকার পড়ে না৷ তাই নিশ্চিতভাবেই বলা যায় যে, সরকার হয়তো তার এমন কিছু পেয়েছে যার কারণে কালক্ষেপণ না করে দ্রুত তাকে সরিয়ে দিয়েছে৷

‘‘সচিব হলো সরকার বা প্রধানমন্ত্রীর কাছের এবং আত্মবিশ্বাসের কর্মকর্তা৷ সরকারের অনেক সিদ্ধান্তের সাথে সচিবরা জড়িত থাকেন৷ তাই কাউকে নিয়ে বিন্দুমাত্র সন্দেহ হলে সরকার তাকে রাখতে চায় না,’’ এভাবেই বলছিলেন একজন যুগ্মসচিব৷

কয়েকজন বলেন, প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তারা অনেক সংগঠিত৷ কোথায় কী হচ্ছে তার খবর তারা সবসময় রাখে৷ কোথায় কার পোস্টিং বা পদোন্নতি হয় দ্রুত খবর পেয়ে যায়৷ সব জায়গায় তাদের লোক আছে৷ কে ডিসি হবে, কবে পোস্টিং হবে, কে ওএসডি হতে পারে, সব কিছু নখদর্পনে রাখে৷ অথচ তথ্যসচিবের ব্যাপারটা জানার আগেই ঘটে যায়৷

অনেকে এই ঘটনা ভিন্নভাবে দেখছেন৷ মনে করছেন, এটা আমলাদের প্রতি সরকারের একটা কঠোর বার্তা৷ আমলাদের সবকিছু যে সরকার মনিটর করছে এই ঘটনার মধ্য দিয়ে সেটা দেখানো হলো৷

আর সে কারণেই প্রশাসনের কর্মকর্তারা যতই শক্তিশালী হোক না কেন তথ্যসচিবের চাকরিচ্যুতির ব্যাপারে কেউ কোনো টু শব্দ করছে না৷ ‘‘এটা অনেক বড় বার্তা দিল সরকার৷ এর মধ্য দিয়ে সরকার জানিয়ে দিল যে কেউ সরকারের ঊর্ধ্বে না,’’ নাম প্রকাশ না করে এক কর্মকর্তা ডয়েচে ভেলেকে বলেন৷

এর আগে গত ১৪ জুন ফেসবুকে ছদ্মনামে সরকারপ্রধানকে ইঙ্গিত করে ‘কুরুচিপূর্ণ ভাষায়' কবিতা লিখে চাকরিচ্যুত হন জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব৷ 

তবে মধ্যরাতে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় আলোচিত কুড়িগ্রামের সাবেক ডিসি সুলতানা পারভীনকে কোনো শাস্তি প্রদান করা যায়নি৷ অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তার বেতন বৃদ্ধি দুই বছরের জন্য স্থগিত রাখার লঘুদণ্ড দেয় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়৷

তবে ঐ ডিসি লঘুদণ্ডাদেশ মওকুফের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে আপিল করলে রাষ্ট্রপতি বেতন বৃদ্ধি স্থগিত রাখা দণ্ডাদেশ থেকে রেহাই দেন৷ পরবর্তীতে তাকে পদোন্নতি দিয়ে যুগ্মসচিব করা হয়৷

এমন আরও অনেক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ থাকলেও কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া (ফাইল ফটো)
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান