জঞ্জাল থেকে ফ্যাশনের চল বাড়ছে | অন্বেষণ | DW | 03.06.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

জঞ্জাল থেকে ফ্যাশনের চল বাড়ছে

গোটা বিশ্বে প্রতি বছর বিশাল পরিমাণ জঞ্জাল সৃষ্টি হচ্ছে৷ ইউরোপের বেশ কিছু ডিজাইনার সেই জঞ্জাল পুনর্ব্যবহার করে হালফ্যাশনের পণ্য তৈরি করছেন৷ মানুষের মধ্যে পরিবেশ সচেতনতা বাড়ার ফলে এমন উদ্যোগ বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে৷

মাছের জাল থেকে কিলটেড জ্যাকেট৷ প্লাস্টিকের বোতল থেকে ব্যাকপ্যাক৷ জঞ্জাল থেকে ফ্যাশন৷ ‘ইকোআফ’ ব্র্যান্ড সেটাই করে দেখাচ্ছে৷ টি-শার্ট হোক, স্নিকার বা জ্যাকেট – মাদ্রিদের এই দোকানে প্রায় সব পণ্যই রিসাইক্লিং-এর ফলাফল৷

জঞ্জাল থেকে পণ্য

‘ইকোআফ’ কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা স্পেনের খাবিয়ের গোইয়েনেচে৷ ২০০৯ সালে তাঁর মাথায় এই আইডিয়া আসে৷ তিনি বলেন, ‘‘গোটা বিশ্বে আমরা যে পরিমাণ জঞ্জাল সৃষ্টি করছি, সেই হতাশাবোধ থেকেই প্রাথমিক প্রেরণা আসে৷ তখন মনে হলো, প্রাকৃতিক সম্পদ লাগাতার কাজে না লাগানোই সবচেয়ে টেকসই কাজ হবে৷ আমরা নতুন প্রজন্মের রিসাইকেলড পণ্য তৈরি করতে পারলে পুনর্ব্যবহার একটা সমাধানসূত্র হতে পারে৷ তবে সেগুলির মান ও ডিজাইন প্রথাগত পণ্যের মতোই রাখতে হবে৷ এভাবে আমরা দেখাতে পারি, যে পেট্রোলের খোঁজে আরও গভীরে খনন না করার প্রয়োজন নেই৷ বরং অন্যরা যাকে জঞ্জাল বলে, সেগুলিকে পলিমার তন্তু, কাপড় ও পণ্যে রূপান্তরিত করতে পারি৷’’

ভিডিও দেখুন 04:25

আবর্জনা দিয়ে ফ্যাশন পণ্য তৈরি হচ্ছে

পুরানো গাড়ির টায়ার দিয়ে একটি পায়ের চটি তৈরি করা হয়েছে৷ অর্থাৎ শতভাগ রিসাইক্লিং করা হয়েছে৷ এমনকি জোড়া লাগাতে আঠাও ব্যবহার করতে হয় নি৷ ভালো করে খুঁটিয়ে দেখলে পণ্যগুলির উৎস জানা যায়৷ খাবিয়ের গোইয়েনেচে বলেন, ‘‘আমরা সব সময়ে কাপড়ে একটা লেবেল লাগানোর চেষ্টা করি৷ যেমন এটিতে লেখা রয়েছে, যে ২৩৫ গ্লাম বাতিল মাছের জাল দিয়ে এক গজ কাপড় তৈরি করা হয়েছে৷’’

পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনতা

খাবিয়ের এভাবে পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করতে চান৷ সেই ফ্যাশন দেখতেও সুন্দর হতে হবে৷ খাবিয়ের বলেন, ‘‘অনেক মানুষের কাছে রিসাইকেল্ড মানেই নিম্ন মানের পণ্য, যাকে হিপি বলা হয়৷ মানুষের ধারণা হয়েছিল, যে আমি হয়তো আমার দাদির পুরানো কম্বল দিয়ে ব্যাকপ্যাক তৈরি করছি৷ আমি বললাম, একেবারেই না৷ এর সঙ্গে তার কোনো সম্পর্কই নেই৷ এটা প্রযুক্তির বিষয়৷ আপনারা দুই পণ্যের মধ্যে কোনো তফাত পাবেন না৷ তাছাড়া রিসাইকেল্ড পণ্যও যে অন্য যে কোনো পণ্যের মতোই আকর্ষণীয় ও ভালো ডিজাইনের হতে পারে, মানুষকে সেটাই বোঝনোর চেষ্টা করছি৷’’

আগে থেকেই রয়েছে, এমন উপাদান নিয়ে কাজ করার দৃষ্টান্ত মোটেই বিরল নয়৷ সুইজারল্যান্ডের ‘ফ্রাইটাগ’ ব্র্যান্ড এমন পথিকৃতদের অন্যতম৷ ট্রাকের পুরানো তেরপল দিয়ে ব্যাগ তৈরি শুরু করে এই কোম্পানি এর মধ্যে পচনশীল পণ্যও তৈরি করছে৷

আরেক প্রকল্পের নাম ‘গাম-শু’৷ সেই জুতার নীচের অংশের ৩০ শতাংশ পর্যন্ত আমস্টারডাম শহরের রাস্তার পুরানো চুইংগাম দিয়ে তৈরি৷ অথবা ইটালির ‘অরেঞ্জ ফাইবার’ ব্র্যান্ডের জামাকাপড় কমলালেবুর তন্তু দিয়ে তৈরি৷

সার্বিক উদ্যোগের প্রবণতা

স্পেনের সাংবাদিক ব্রেন্ডা চাবেস এমন টেকসই পণ্য সম্পর্কে লেখালেখি করেন৷ তিনি এক প্রবণতা লক্ষ্য করছেন৷ ব্রেন্ডা বলেন, ‘‘ধীরে ধীরে এর প্রসার হচ্ছে৷ তবে বাৎসরিক কাপড়ের জঞ্জাল দৃশ্যমান হবার পর এই প্রবণতা সবে শুরু হয়েছে৷ তাছাড়া প্লাস্টিক নিয়েও আমাদের সমস্যা হচ্ছে৷ ফলে শিল্পক্ষেত্রও উপযুক্ত ব্যবস্থা নিচ্ছে৷’’

‘ইকোআফ'-এর নিজস্ব সূত্র অনুযায়ী এই ব্র্যান্ড এখনো পর্যন্ত সমুদ্র থেকে তোলা প্রায় ৩৩০ টন আবর্জনা কাজে লাগিয়েছে৷ এই কোম্পানি স্পেনের জেলেদের সঙ্গে সহযোগিতার মাধ্যমে সমুদ্রের জঞ্জাল সংগ্রহ করে৷

মাছের জাল বা প্লাস্টিকের বোতল থেকে পলিমার সুতা তৈরি হয়৷ সেই সুতার কাপড় দিয়ে অবশেষে জামাকাপড় তৈরি হয়৷ এই ব্র্যান্ড পরিবেশবান্ধব জীবনযাত্রার আদর্শ তুলে ধরতে চায়৷ তাদের মূলমন্ত্র হলো: ‘‘কোনো প্ল্যান বি নেই, আমাদের একটাই গ্রহ রয়েছে৷’’

বিশেষ এক ধরনের মানুষের কাছেই এই বার্তা পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা চলছে৷ ব্রেন্ডা চাবেস বলেন, ‘‘এটা লাইফস্টাইলের একটা অংশ৷ ‘জিরো ওয়েস্ট’ আন্দোলনের বাড়বাড়ন্ত দেখা যাচ্ছে৷ অনেক মানুষ আরও কম জঞ্জাল সৃষ্টি করে পরিবেশের উপর চাপ কমাতে চাইছে৷’’

প্রবণতা হোক অথবা ভবিষ্যতের ফ্যাশন, খাবিয়ের গোইয়েনেচে ভবিষ্যতেও আবর্জনা নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা চালিয়ে যেতে চান৷ ভূমধ্যসাগরের উপকূলের অন্যান্য দেশের জেলেদের কাছেও তিনি নিজের আইডিয়া নিয়ে যেতে চান৷

ইয়ানিনা সেমেনোভা/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন