‘ছাপাখানা′ থেকে বাইসাইকেল? | অন্বেষণ | DW | 28.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

‘ছাপাখানা' থেকে বাইসাইকেল?

ত্রিমাত্রিক ছাপার যন্ত্রে একটা গোটা বাইসাইকেল ‘ছাপার' কথা ভাবতে পারেন? মানে গোটা বাইসাইকেল নয়, অন্তত আপাতত নয়, তবে সাইকেলের ধাঁচাটা আজই থ্রিডি-প্রিন্টার থেকে ছেপে বার করা যায়!

থ্রিডি-প্রিন্টার থেকে বাইসাইকেল? সায়েন্স ফিকশন নাকি? না, কল্পবিজ্ঞান নয়, প্রায় বাস্তব...৷

সাইকেল ইঞ্জিনিয়ার ফ্রানৎস হ্যোশ্টল দাবি করলেন, ‘‘আমরা এমন একটা পর্যায়ে পৌঁছেছি যে, সিটে বসে চড়ার মতো একটা সাইকেল তৈরি করা যায়, যদিও তা চালানোর মতো নয়৷''

সাইকেলের ভবিষ্যৎ কী হবে, তা আজই আন্দাজ করা যাচ্ছে৷ থ্রিডি-প্রিন্টার দিয়ে তৈরি সাইকেল রেডিমেড নয়, টেলর মেড, রীতিমতো অর্ডার দিয়ে তৈরি৷ থ্রিডি-স্ক্যানার দিয়ে প্রথমে সাইকেলের ভবিষ্যৎ আরোহীর মাপ নেওয়া হবে৷ সাইকেল তৈরিতে থ্রিডি-প্রিন্টার নিখুঁতভাবে এই সব মাপজোক ব্যবহার করতে পারবে৷ দরজির তৈরি প্যান্ট-শার্টের মতো সাইকেলও আরোহীকে ফিট করবে৷

ফ্রানৎস হ্যোশ্টল বললেন, ‘‘প্রিন্টার দিয়ে তৈরি সাইকেলের সবচেয়ে বড় সুবিধে হল, এখন বাজারে মাত্র কয়েক সাইজের সাইকেল পাওয়া যায় – অথচ মানুষজনের পা কিংবা দেহের সাইজের মধ্যে বিরাট পার্থক্য থাকে৷ কাজেই আমরা প্রত্যেকের জন্য তার দেহের মাপ অনুযায়ী সাইকেল তৈরি করতে পারি৷''

ভিডিও দেখুন 04:07
এখন লাইভ
04:07 মিনিট

বইয়ের মতো ছাপা হয় বাইসাইকেল!

সাইকেল নির্মাতা সাইকেলের ফ্রেমটাকে এমনভাবে বদলে নিতে পারেন, যাতে সেটা আরোহীর দেহের সঙ্গে পুরোপুরি ফিট করে৷

এবার সাইকেল নির্মাতা গেলেন থ্রিডি-প্রিন্টিং বিশেষজ্ঞের কাছে৷ প্রিন্টারের জন্য ডাটা প্রস্তুত করতেই অনেক কাজ করতে হবে – তবে সময় যে খুব বেশি লাগছে, এমন নয়৷

থ্রিডি-প্রিন্টিং-এর বিকাশ

 থ্রিডি প্রিন্ট কোম্পানিরমালিক পেটার নুইফেনেগার জানালেন, ‘‘থ্রিডি-প্রিন্টিং-এ চারটি পৃথক দিকে বিপুল বিকাশ ঘটেছে৷ প্রথমত, যে সব পদার্থ ব্যবহার করা যায়, তাদের সংখ্যা বাড়ছে৷ দ্বিতীয়ত, আরো বড় বড় জিনিস প্রিন্ট করা যাচ্ছে৷ প্রিন্টিং-এর গতিও বাড়ছে – আগে যা সময় লাগত, তা কমে অর্ধেক, এমনকি এক-তৃতীয়াংশ হয়ে গেছে৷ এছাড়া নতুন প্রযুক্তির বিকাশ ঘটে চলেছে, যদিও তা এখনো থ্রিডি-প্রিন্টিং-এ কাজে লাগানো হয়নি৷''

থ্রিডি-প্রিন্টারে এখনও প্লাস্টিক দিয়ে সাইকেলের ফ্রেম তৈরি হচ্ছে, কিন্তু ভবিষ্যতে তা কার্বন দিয়ে তৈরি হবে, এমন আশা আছে৷

সাইকেল ‘ছাপা' শুরু হল৷ এখানে শূন্য দশমিক ১২ মিলিমিটার ব্যাসের পলিয়ামিড গুঁড়ো ঝরে পড়ছে ও লেজারের উত্তাপে গলে শক্ত হয়ে গিয়ে সাইকেলের ফ্রেমের নির্দিষ্ট অংশগুলির আকার ধারণ করছে৷ এ কাজে দু'দিন লাগবে – প্লাস্টিকের অংশগুলো ঠান্ডা হতে আরো দু'দিন৷ তবে দেখা যাবে, ‘ছাপার কাজ' ঠিক হয়েছে কিনা৷ আপাতত সাইকেলের গোটা ফ্রেমটা একবারে ‘ছাপার' মতো বড় কোনো থ্রিডি-প্রিন্টার নেই, কাজেই ফ্রেমটাকে সাতভাগে ভাগ করে ‘ছাপতে' হয়েছে – পরে অংশগুলোকে আঠা দিয়ে জোড়া দেওয়া হবে৷ ভবিষ্যতের সাইকেলের ধাঁচাটা অন্তত তৈরি!

রং করার পরে ‘ছাপা' ফ্রেমটিতে সর্বাধুনিক ব্রেক, গিয়ার ইত্যাদি লাগানো হবে৷

একটা ‘ছাপাখানার' বাইসাইকেল তৈরি হতে আজ লাগে সাকুল্যে ১০ দিন – ভবিষ্যতে সেটা কমানোর ব্যবস্থা করা হবে প্রথম ও প্রধান কাজ৷

সিমন ইয়লার/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন