চ্যান্সেলর হিসেবে মেয়াদ পূর্ণ করতে পারবেন ম্যার্কেল? | বিশ্ব | DW | 01.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

চ্যান্সেলর হিসেবে মেয়াদ পূর্ণ করতে পারবেন ম্যার্কেল?

২০২১ সাল পর্যন্ত জার্মান চ্যান্সেলর থাকার অঙ্গীকার করলেও আঙ্গেলা ম্যার্কেল বড় বাধার মুখে পড়তে পারেন৷ সিডিইউ দলের সম্ভাব্য শীর্ষ নেতার সঙ্গে তাঁর সংঘাতের আশঙ্কা বাড়ছে৷

ম্যার্কেল-পরবর্তী জমানা কেমন হতে চলেছে, তার কিছুটা আভাস বুধবারই পাওয়া গেল৷ সিডিইউ দলের শীর্ষ নেতা হিসেবে তাঁর শূন্যস্থান পূরণ করতে যাঁরা আসরে নেমেছেন, তাঁদের বক্তব্যের মধ্যে দল ও সরকারের ভবিষ্যৎ রূপরেখার ইঙ্গিত উঠে এলো৷ বিশেষ করে দলের নেতা হিসেবে তাঁরা চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের সঙ্গে কতটা সহযোগিতা করতে প্রস্তুত, সেই বিষয়টি বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে৷ কারণ, এই দুই নেতার মধ্যে সুসম্পর্ক না থাকলে ম্যার্কেলের পক্ষে চ্যান্সেলর হিসেবে কাজ চালিয়ে যাওয়া অত্যন্ত কঠিন হয়ে উঠতে পারে৷

আপাতত যাঁকে ঘিরে সবচেয়ে বেশি উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা যাচ্ছে, সেই ফ্রিডরিশ ম্যার্ৎস আনুষ্ঠানিকভাবে এই পদের জন্য নির্বাচনের প্রচার শুরু করলেন৷ সবার আগে তিনি কোণঠাসা সিডিইউ দলকে পুনরুজ্জীবিত করতে নতুন সূচনার ডাক দিলেন৷ বার্লিনে সাংবাদিকদের সামনে ম্যার্ৎস বলেন, ভোটাররা মূল স্রোতের রাজনৈতিক দলগুলির প্রতি বীতশ্রদ্ধ হয়ে পপুলিস্ট দলগুলির প্রতি সমর্থন দেখাবেন, এমনটা হতে দেওয়া চলে না৷ ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে এই প্রচ্ছন্ন সমালোচনার ইঙ্গিত সত্ত্বেও ম্যার্ৎস চ্যান্সেলরের সঙ্গে একযোগে কাজ করার বিষয়ে আগ্রহ দেখিয়েছেন৷ উল্লেখ্য, ২০০২ সালে ম্যার্কেল তাঁকে সিডিইউ সংসদীয় গোষ্ঠীর প্রধানের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়ার পর তিনি ২০০৯ সালে রাজনীতির মঞ্চ থেকে বিদায় নিয়েছিলেন৷ পুরানো শত্রুতা ভুলে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে দুজনেই একসঙ্গে কাজ করতে পারবেন বলে দৃঢ় বিশ্বাস দেখিয়েছেন ম্যার্ৎস৷

ম্যার্ৎস ম্যার্কেলের প্রতি নরম মনোভাব দেখালেও ম্যার্কেল-বিরোধী হিসেবে পরিচিত আরেক প্রার্থী ও বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়েন্স স্পান আবার চ্যান্সেলরের শরণার্থী নীতির সমালোচনা করলেন৷ এক সংবাদপত্রের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি করেন, শরণার্থী ও অভিবাসন সংক্রান্ত নীতির কারণেই সিডিইউ তার সমর্থকদের আস্থা হারিয়েছে৷ তাঁর অভিযোগ, প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ইউরোপীয় ইউনিয়নের বহির্সীমানায় সুরক্ষা নিশ্চিত করা হয়নি এবং ইউরোপে আগত শরণার্থীদের ইইউ সদস্য দেশগুলির মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হয়নি৷ সেইসঙ্গে তিনি বাভেরিয়ার সিএসইউ দলের উদ্দেশ্যে এই বিষয়টিকে ঘিরে বিরোধ ভুলে একসঙ্গে কাজ করার ডাক দিয়েছেন৷ মোটকথা, দলের নেতা হিসেবে স্পান ম্যার্কেলের বিরোধিতা করতে পিছপা হবেন না, এমন ইঙ্গিত স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে৷

ম্যার্কেল-বিরোধী এই দুই প্রার্থীর পাশাপাশি অন্য যে দুই প্রার্থীর নাম উঠে এসেছিল, তাঁদের মধ্যে একজন জানিয়েছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে তিনি দলের হাল ধরতে প্রস্তুত নন৷ নর্থরাইন ওয়েস্টফেলিয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী আরমিন লাশেট এই মুহূর্তে সরে আসায় ম্যার্কেল শিবির কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়লো৷ একমাত্র ম্যার্কেলপন্থি হিসেবে থেকে গেলেন সিডিইউ দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আনেগ্রেট ক্রাম্প কারেনবাউয়ার৷

জার্মানির দুটি পত্রিকার জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী, এই তিন প্রার্থীর মধ্যে ফ্রিডরিশ ম্যার্ৎস সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছেন৷ বিশেষ করে শিল্প-বাণিজ্য জগতে তাঁর প্রতি বিপুল সমর্থন দেখা যাচ্ছে৷ উল্লেখ্য, পেশায় আইনজীবী হলেও ম্যার্ৎস সংসদ সদস্য হিসেবে বিদায় নেবার পর একাধিক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন৷ 

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন