চীন-বিদ্বেষে করোনা সংকটের ইন্ধন  | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 31.03.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

চীন

চীন-বিদ্বেষে করোনা সংকটের ইন্ধন 

তথ্যপ্রমাণ বা বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা না থাকলেও করোনা ভাইরাসের দায় চীন ও চীনাদের উপর চাপানোর প্রবণতা বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷ এমন বিদ্বেষের পরিণাম সম্পর্কে আশঙ্কাও বাড়ছে৷

করোনা ভাইরাস প্রথমে চীনেই ছড়িয়ে পড়েছিল বলে চীনকেই সারা বিশ্বে বর্তমান সংকটের জন্য দায়ী করছে কিছু মহল৷ চীনের কর্তৃপক্ষ ঠিক সময় করোনার মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়েছে, এমন অভিযোগ মেনে নিলেও সার্বিক বৈষম্য ও বিদ্বেষের বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক চলছে৷

ইসরায়েলের এক প্রযুক্তি কোম্পানির সূত্র অনুযায়ী করোনা সংকটের জের ধরে টুইটারে চীন ও সে দেশের মানুষের বিরুদ্ধে ‘হেট স্পিচ' প্রায় ৯০০ শতাংশ বেড়ে গেছে৷ সার্বিকভাবে গোটা বিশ্বে চীনা বা পূর্ব এশীয় বংশোদ্ভূত মানুষও বিদ্বেষের শিকার হচ্ছে৷ করোনা ভাইরাসের প্রসারের জন্য তাদেরই দায়ী করা হচ্ছে৷

টুইটারে এমন বিদ্বেষ আরও দ্রুত ছড়িয়ে দিতে অনেকে ‘কুংফ্লু', ‘চাইনিজভাইরাস', কমিউনিস্টভাইরাস' ইত্যাদি হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করছে৷ রিপোর্ট অনুযায়ী বিদ্বেষ ছড়ায় এমন ‘হেট সাইট' দেখার হারও প্রায় ২০০ শতাংশ বেড়ে গেছে৷ অস্ট্রেলিয়ার স্কাই নিউজ চ্যানেলের এক ভিডিওতে দাবি করা হয়েছে, যে চীন ইচ্ছাকৃতভাবে গোটা বিশ্বে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে দিয়েছে৷ এমন প্রতিষ্ঠিত সংবদ মাধ্যমের ভিডিও বলে সেই বার্তা ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়েছে৷ তথ্যপ্রমাণ বা বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যার তোয়াক্কা না করে অনেকেই সেই দাবি বিশ্বাস করছে৷ 

শুধু করোনা সংকটের কারণেই চীন বা পূর্ব এশিয়ার এমন নেতিবাচক ভাবমূর্তি সৃষ্টি হয়েছে, এমনটা ঠিক নয়৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেশ কয়েক শতাব্দী ধরে এই সম্প্রদায় সম্পর্কে নানা কুরুচিকর, ভ্রান্ত ধারণা চালু রয়েছে৷ এমনকি তারা রোগ ছড়ায়, এমন রটনাও বিরল নয়৷ সম্প্রতি অ্যামেরিকার নাগরিক অধিকার গোষ্ঠীগুলি এক বিশেষ ওয়েবসাইট চালু করেছে৷ সেখানে করোনা সংকটের কারণে জাতিগত বৈষম্য সংক্রান্ত অপরাধ জানানোর সুযোগ রয়েছে৷

 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প করোনার বদলে ‘চাইনিজ' ভাইরাস শব্দটি বার বার ব্যবহার করায় চিনা-বিদ্বেষের মাত্রা আরও বড় আকার ধারণ করেছে৷ ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর থেকে মুসলিম, ল্যাটিন অ্যামেরিকান ইত্যাদি সম্প্রদায় সম্পর্কে যে বৈষম্যমূলক মন্তব্য ও পদক্ষেপ নিয়ে চলেছেন, তার ফলে এমন বিদ্বেষের মাত্রা আরও প্রকট হয়ে উঠেছে৷ চীনের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধের জের ধরে চীনা ও পূর্ব এশিয়ার বংশোদ্ভূত মানুষের প্রতি বৈরি মনোভাবও বাড়ছে৷ আত্মপক্ষ সমর্থনে ট্রাম্প বলেছেন, তিনি করোনা সংকটের প্রসঙ্গে ‘চাইনিজ' ভাইরাস শব্দটি ব্যবহার করেছেন, কারণ এই ভাইরাস সত্যি চীন থেকেই এসেছে৷ ফলে তিনি বর্ণবাদী কোনো মন্তব্য করেন নি বলে দাবি করেছেন৷ এক চীনা কর্মকর্তা এই ভাইরাসের পেছনে মার্কিন সেনাবাহিনীর ষড়যন্ত্রের সন্দেহ প্রকাশ করায় ট্রাম্প উলটে চীনের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন৷

এসবি/কেএম (এএফপি/রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন