চীন ও তালেবানের মিল যেসব স্বার্থে | বিশ্ব | DW | 19.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

আফগানিস্তান

চীন ও তালেবানের মিল যেসব স্বার্থে

তালেবান আসায় সবাই পালাচ্ছেনা৷ রাশিয়া ও চীন ইতিমধ্যে আফগানিস্তানের নতুন নেতাদের সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছে, লিখেছেন কার্নেগি কাউন্সিল ফর এথিকস ইন ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্সের সিনিয়র ফেলো আলেক্সান্ডার গ্যোরলাখ৷

পশ্চিমা বিশ্বের সরকারগুলো যখন তাড়াহুড়ো করে আফগানিস্তানে থাকা তাদের দূতাবাসের কর্মী ও নাগরিকদের সরিয়ে নিচ্ছে সেখানে রাশিয়া ও চীনের দূতাবাস এখনও খোলা আছে৷ চীনের কর্মকর্তারা সময় হাতে রেখে সতর্কতা অবলম্বন করেছেন এবং তালেবানের সঙ্গে চুক্তি করে রেখেছিলেন৷ কিন্তু জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস এমন দিন যে আসতে চলেছে, তা আগে দেখতে ব্যর্থ হয়েছেন৷ আফগান বন্ধুদেরও তিনি জার্মানিতে নিয়ে আসতে ব্যর্থ হয়েছেন৷

সারা বিশ্বের একনায়কদের মধ্যে অনেক মিল আছে৷ তারা কেউই স্বাধীনতা ও মানবাধিকার বিষয়গুলো পছন্দ করেন না৷ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় আফগানিস্তানে গত ২০ বছর থাকাকালীন এই দুইটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে এসেছে৷ এখন সেই সময় শেষ হয়ে যাওয়ায় মস্কো ও বেইজিংয়ের একনায়কেরা বিজয়ীর হাসি হাসছেন৷

চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই গতমাসে তালেবানের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক করে তাদেরকে অত্র অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ শক্তি বলে আখ্যায়িত করেন৷ বেইজিংয়ের কর্মকর্তারা আশা করছেন, আফগানিস্তানে চীনের উপস্থিতি সীমান্ত অঞ্চল এবং চীনের পশ্চিমের জিনজিয়াং প্রদেশে যেখানে দশ লাখের বেশি উইগুর মুসলিমকে বন্দি রাখা হয়েছে সেখানে শান্তি বজায় রাখবে৷

তালেবান নিয়ন্ত্রিত আফগানিস্তানে বিপুল বিনিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে চীন৷ বিনিময়ে চীনের সঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণা না করার অঙ্গীকার করেছে তালেবান৷ এছাড়া বন্দি উইগুরদের প্রতি সহানুভূতিশীল হয়ে কোনো তালেবান যোদ্ধা যেন প্রতিশোধ নেয়ার চেষ্টা না করে সেই বিষয়টিও দেখার অঙ্গীকার করেছে তালেবান৷

আফগানিস্তানের সঙ্গে চীনের ৭৬ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে৷ সেখান থেকে অল্প দূরেই আছে চীনের ‘বেল্ট অ্যাণ্ড রোড ইনিশিয়েটিভের' করিডোর৷ এই বিশাল প্রকল্পের মাধ্যমে চীন ঋণ দেয়ার বিনিময়ে অত্র অঞ্চলে প্রভাব বিস্তার করতে চায়৷ আফগানিস্তানে অস্থিতিশীলতার কারণে যদি এই করিডোর বিপদের মুখে পড়ে তাহলে পাকিস্তানে চীনের স্বার্থ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে৷

Screenshots DW-Sendung TTP vom 04.03.2021

আলেক্সান্ডার গ্যোরলাখ, ডয়চে ভেলে

এছাড়া আফগানিস্তানে চীনের অর্থনৈতিক স্বার্থও জড়িত আছে৷ দেশটির তেলের খনিতে অনুসন্ধান চালানোর কাজ ইতিমধ্যে পেয়ে গেছে চীন৷ এছাড়া আফগানিস্তানে আছে এমন সব বিরল খনিজ যেগুলো স্মার্টফোন, ট্যাবলেট আর এলইডি স্ক্রিন শিল্পের জন্য জরুরি৷ কম্পিউটার চিপের ক্ষেত্রে এখনও তাইওয়ান ও দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে প্রতিযোগিতা করার মতো প্রযুক্তিগত জ্ঞান অর্জন করতে পারেনি চীন৷ তবে আফগানিস্তানের এক ট্রিলিয়ন ডলারের খনিজ রিজার্ভের নিয়ন্ত্রণ নেয়া গেলে চিপ তৈরির ক্ষেত্রে চীন অন্যতম শক্তিশালী দেশ হয়ে উঠতে পারে৷

আফগানিস্তানে তালেবানের নিয়ন্ত্রণ মুক্ত ও একনায়ক বিশ্বের মধ্যে ভূরাজনৈতিক ভারসাম্যে স্থায়ী পরিবর্তন এনেছে৷ একটা বিষয় স্পষ্ট হয়ে গেছে: হিন্দু কুশে এখন স্বাধীনতা নয়, স্বৈরশাসকদের স্বার্থ রক্ষা করা হবে৷

আলেক্সান্ডারগ্যোরলাখ: সিনিয়রফেলো, কার্নেগিকাউন্সিলফরএথিকসইনইন্টারন্যাশনালঅ্যাফেয়ার্সএবংঅক্সফোর্ডবিশ্ববিদ্যালয়েররিসার্চএসোসিয়েট

আলেক্সান্ডার গ্যোরলাখ/জেডএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়