চীনে যেভাবে ধ্বংস হচ্ছে কাজাখ সংস্কৃতি | বিশ্ব | DW | 06.08.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

চীন

চীনে যেভাবে ধ্বংস হচ্ছে কাজাখ সংস্কৃতি

চীনে মুসলিম নির্যাতন এবং কাজাখদের সংস্কৃতি ধ্বংসের বিষয়ে জানালেন কাজাখ ক্যাম্প থেকে বেরিয়ে আসা সায়রাগুল সাউতবে৷

কাজাখ-চীনা বংশোদ্ভূত সায়রাগুল সাউতবে ‘এসকেপ ফ্রম চায়না’স মডার্ন-ডে কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্প’ গ্রন্থের সহলেখক৷ বইটির জার্মান সংস্করণ জার্মানিতে প্রকাশিত হবে ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে৷ এরপর মে মাসে ইংরেজি সংস্করণ বের হবে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র এবং অস্ট্রেলিয়ায়৷ 

প্রাচীন কালে কাজাখস্তান তো বটেই, এমনকি মঙ্গোলিয়া এবং দক্ষিণ-পশ্চিম চীনেও বসবাস ছিল কাজাখদের৷ সায়রাগুল সাউতবের শৈশবও কেটেছে সেই অঞ্চলে৷ ১৯৮০-র দশকের দিকে নদীর তীরের একটি জায়গায় নয় সন্তানকে নিয়ে থিতু হন তার বাবা-মা৷ একদিন হান চীনারা তাদের গ্রামে এসে জেনারেল স্টোর খুলে বসে৷ স্থানীয়রা কিছু বুঝে ওঠার আগেই এলাকার নিয়ন্ত্রণও নিয়ে নেয় তারা৷ বড় বড় বাঁধ নির্মান করা হয়৷ গড়ে ওঠে বড় বড় কারখানা৷

চীনের উত্তর-পশ্চিমে শুরু হয় সিল্ক রোডের কাজ৷ সেই এলাকার নাম শিনজিয়াং বা নিউ ফ্রন্টিয়ার ৷ ভূরাজনৈতিকভাবে খুব গুরুত্বপূর্ণ সেই এলাকায় চীনের এক পঞ্চমাংশ কয়লা, গ্যাস আর তেলের রিজার্ভ৷ এলাকাটিকে পূর্ব তুর্কিস্তান এবং উইগুরস্তান নামেও ডাকা হতো৷ শিনজিয়াং বা নিউ ফ্রন্টিয়ার নামকরণ সেই অতীতকে মুছে দেয়ার চেষ্টা বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা৷

নিষ্ঠুর ‘সাংস্কৃতিক বিনিময়’

২০১৬ সালের দিকে সাউতবে পরিস্থিতির ভয়াবহতা প্রথমবার বুঝতে পারেন৷ কাজাখ ভাষায় কথা বলে ব'লে তার সন্তানকে কিন্ডারগার্টেনে গিয়ে এক অর্থে মুখ বন্ধ করে থাকতে হতো৷ এক পর্যায়ে তার স্বামী আর দুই সন্তান এলাকা ছাড়লেন৷ সায়রাগুল সাউতবেরও খুব তাড়াতাড়ি তাদের সঙ্গে যোগ দেয়ার ইচ্ছে ছিল৷

কিন্তু কর্তৃপক্ষ প্রথমে মুসলিমদের পাসপোর্ট জব্দ করল৷ তারপর শুরু হলো মাসে আটদিন করে ‘বন্ধুসেবা’ দেয়া৷ সেই দিনগুলোতে কাজাখ, উইগুর এবং অন্য মুসলমানদের হান চীনাদের সঙ্গে থেকে তাদের সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত হতে হতো৷

খুব নিরীহ আর ভালো মনে হলেও সাংস্কৃতিক বিনিময়ের ওই কার্যক্রম আসলে কেমন ছিল সায়রাগুল সাউতবে তার বর্ণনা দিয়েছেন৷ তিনি বলেছেন কিভাবে মুসলমানদের গৃহভৃত্যের মতো খাটানো হতো, শূকরের মাংস খেতে বাধ্য করা হতো৷ গৃহকর্তার সঙ্গে এক বিছানায় শুতে হতো নারীদের৷ ‘অতিথিদের’ প্রতিটি কাজের ছবি তুলে হয় কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হতো, নয়ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা হতো৷

নজরদারি, নির্যাতন, ধর্ষণ

প্রথম শিবিরটি খোলা হয় ২০১৬ সালে৷ সায়রাগুলকে দেয়া হলো শিবিরে আটকদের চীনা ভাষা এবং অপপ্রচারমূলক গান শেখানোর দায়িত্ব৷ ইচ্ছার বিরুদ্ধে করতে হতো এই কাজ৷ নানা ধরনের অত্যাচার দেখেছেন সেখানে৷ দু'শ মানুষের সামনে নারীকে ধর্ষণ করার দৃশ্যও দেখেছেন তিনি৷

অবশেষে পলায়ন

পাঁচ মাস পর শিবির থেকে অস্থায়ীভাবে মুক্তি পান সায়রাগুল৷ সেই সুযোগে  পালিয়ে যান কাজাখস্তানে৷ আড়াই বছর পর দেখা হয় স্বামী আর দুই সন্তানের সঙ্গে৷ তার কিছুদিন পর সুইডেনে এসে রাজনৈতিক আশ্রয়ের অনুমতি নেন তিনি৷

নাদিন ভোচিক/এসিবি

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন