চীনে জোর করে সংখ্যালঘুদের জন্মনিরোধের অভিযোগ | বিশ্ব | DW | 01.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

চীন

চীনে জোর করে সংখ্যালঘুদের জন্মনিরোধের অভিযোগ

একটি সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, চীনে উইগুর ও অন্যান্য ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর নারীদের জোরপূর্বক জন্মনিরোধ করা হচ্ছে৷ গবেষণায় এমন তথ্য উঠে আসায় রীতিমতো নিন্দার ঝড় উঠেছে৷ বেইজিং এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

জার্মান গবেষক আদ্রিয়ান সেন্স সোমবার এই গবেষণাটি প্রকাশ করেন৷ সেখানে তিনি বলেন, জিনজিয়াং প্রদেশে চীনা কর্তৃপক্ষ উইগুরসহ অন্য ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর নারীদের কোটার বাইরে সন্তান জন্মদানে বাধা দেয়৷ যদি কেউ গর্ভপাত করতে না চান, তাহলে তাকে আলাদা করে আটকে রাখার হুমকি দেয়া হয়

চীনের বিরুদ্ধে দশ লাখেরও বেশি উইগুর ও অন্য জাতিগোষ্ঠীর মানুষদের, যাদের বেশিরভাগই মুসলিম, ‘পুনর্শিক্ষণ ক্যাম্পে' আটকে রাখার অভিযোগ রয়েছে৷ বেইজিং বলে যে, এই ক্যাম্পগুলো মূলত জব ট্রেনিং সেন্টার৷ সেখানে সন্ত্রাসবাদ থেকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার প্রশিক্ষণও দেয়া হয়৷

সেন্সের ডেটাভিত্তিক গবেষণাটিতে পাবলিক ডকুমেন্ট থেকে প্রাপ্ত তথ্য ব্যবহার করা হয়েছে৷ এছাড়া জাতিসংঘের একটি প্যানেল চীনের ক্যাম্পগুলো নিয়ে যে তদন্ত করছিল, সেখান থেকেও তথ্য নেয়া হয়েছে৷ পরিস্থিতির শিকার নারীদেরও সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সেন্স৷

রিপোর্টে বলা হয়েছে, জন্ম নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে নারীদের ওপর জোরপূর্বক আইইউডি (জন্ম নিয়ন্ত্রণে ব্যবহৃত ধাতব যন্ত্র) ব্যবহার করা হয়েছে৷ এমনকি জোর করে সার্জারিও করা হয়েছে৷

পরিস্থিতির শিকার নারীদের কেউ কেউ বলেছেন, তাদের মাসিক বন্ধের জন্য ইনজেকশনও দেয়া হয়েছে৷ আবার অনেককে ইনজেকশনের ফলে প্রচুর রক্তক্ষরণও হয়েছে, যেটা জন্মনিয়ন্ত্রণ ঔষধ খেলে হয়৷ অনেক সরকারি দলিল থেকে সেন্স এটা জানতে পেরেছেন যে, জিনজিয়াং অঞ্চলের গ্রামগুলোতে অনেক ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বার মানুষদের মাঝে গর্ভধারণ সম্পর্কিত পরীক্ষার সংখ্যা বেড়ে যায়৷

সেন্স দেখিয়েছেন, ২০১৭ ও ২০১৮ সালে এসব অঞ্চলে সংখ্যাগরিষ্ঠ গোষ্ঠী হানদের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বার সম্প্রদায়গুলোর জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার থেকে বেড়ে গেছে৷ এই ঘটনার ঠিক এক বছর আগে, অর্থাৎ, ২০১৬ সালে এসব অঞ্চলে জন্মনিরোধের হার  জাতীয় গড়ের চেয়ে বেড়ে যায়৷

চীন এসব অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে৷ অন্যদিকে, চীনে চলতে থাকা এসব ঘটনা বন্ধের দাবি জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও রিপোর্টটিকে ‘বেদনাদায়ক' উল্লেখ করে অবিলম্বে এসব বন্ধে চীনের সরকারি দলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন৷

জেডএ/এসিবি (এএফপি, এপি, রয়টার্স)

গতবছরের ছবিঘরটি দেখুন:

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন