চীনে জনপ্রিয় হচ্ছে মৌমাছির হুল থেরাপি | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 15.08.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

চীনে জনপ্রিয় হচ্ছে মৌমাছির হুল থেরাপি

চীনে মৌমাছির হুল ফুটিয়ে চলছে চিকিৎসা৷ চিকিৎসা নিচ্ছেন অন্তত ২৭ হাজার রোগী৷ তবে সমালোচকরা বলছেন, এর কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই৷

মৌমাছির হুলের কথা শুনলে যে কেউ আতঙ্কে শিউরে উঠতে পারে৷ সেটাই স্বাভাবিক৷ কিন্তু চীনে আকুপাংকচারের ক্লিনিকগুলোতে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এই হুল ফোটানো চিকিৎসা৷ বেইজিং এর ওয়াং মেংলিং-এর ক্লিনিক তাদেরই একটি৷ এখানে বেদনাদায়ক এই পদ্ধতির মাধ্যমে দেয়া হচ্ছে চিকিৎসা৷

ওয়াং মেংলিং ক্লিনিকের প্রধান চিকিৎসক ওয়াং জানালেন, মৌমাছিটিকে শরীরের একটি নির্দিষ্ট পয়েন্টে রেখে মাথাটি ধরে রাখা হয়, যতক্ষণ না এটি হুল ফোটায়৷ এরপর এটিকে সরিয়ে নেয়া হয়৷ সাধারণত ইটালি থেকে এসব মৌমাছি নিয়ে আসা হয় এই ক্লিনিকে৷

আর্থ্রাইটিস থেকে ক্যানসার – সব চিকিৎসায় ইতিবাচক এই চিকিৎসা-এমনটাই দাবি ওয়াং-এর৷ অ্যালার্জি সংক্রান্ত অসুস্থতা ছাড়া সব ধরনের রোগেই এই চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে৷ এমনকি প্রতিরোধক হিসেবেও মৌমাছির হুল বেশ কার্যকর বলে দাবি করছেন ওয়াং৷ তবে পশ্চিমা বিশেষজ্ঞরা একে অপচিকিৎসা হিসেবেই আখ্যায়িত করছেন৷ মার্কিন বিজ্ঞান ভিত্তিক একটি ওয়েবসাইট বলছে, এই চিকিৎসার পেছনে বৈজ্ঞানিক কোনো ভিত্তি নেই৷

ওয়াং-এর এক রোগী জানালেন, চিকিৎসকরা ফুসফুস ও মস্তিষ্কে ক্যানসারের কারণে তাঁর আয়ু আর বেশি দিন নেই বলে জানিয়েছিলেন৷ কিন্তু এই চিকিৎসার ফলে এখন তিনি দ্বিগুণ আয়ু পেয়েছেন বলে মনে করছেন৷

অ্যামেরিকান ক্যানসার সোসাইটি বলছে, ক্যানসার প্রতিরোধে মৌমাছির হুল বা মধু জাতীয় কোন পদার্থ কাজ দেয় – গবেষণায় এমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি৷

মৌমাছির হুলের বিষ অতি প্রাচীন কাল থেকে চীনে ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে৷ এমনকি চীনা চিকিৎসা ব্যবস্থায় এই পুরোনো প্রথা এখনও কার্যকর৷ কেন্দ্রীয় সরকারও এ খাতে প্রচুর ব্যয় করে৷

চীনে বেশিরভাগ মানুষ যাদের আধুনিক ওষুধ কেনার ক্ষমতা নেই, তারা এ ধরনের টোটকা ব্যবহার করেই চিকিৎসা চালিয়ে থাকে৷ আর চীনের হাসপাতালগুলোতেও এগুলো সবসময়ই পাওয়া যায়৷

এপিবি / এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন