চীনে গুগলের লাইসেন্স নবায়ন নিয়ে অনিশ্চয়তা | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 01.07.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

চীনে গুগলের লাইসেন্স নবায়ন নিয়ে অনিশ্চয়তা

চীনের সঙ্গে গুগলের দ্বন্দ্ব এখনও মেটেনি৷ দেশটিতে গুগলের ওপর চীন সরকারের দিক থেকে বাধা রয়ে গেছে৷ এই অবস্থায় গুগলের লাইসেন্স নবায়নের সময়সীমা পার হল বুধবার৷

google in china

চীনা সরকারের কড়া নজরদারিতে গুগল

মার্কিন কোম্পানি গুগলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তারা তাদের অপারেটিং লাইসেন্স নবায়নের ব্যাপারে এখনও কোন সাড়া পায়নি চীন সরকারের পক্ষ থেকে৷ টোকিওতে গুগলের মুখপাত্র জেসিকা পাওয়েল বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, আমরা সরকারের কাছ থেকে বক্তব্যের জন্য অপেক্ষা করছি৷ এদিকে চীনা বার্তা সংস্থা শিনহুয়া সেদেশের ইন্টারনেট প্রশাসনের এক কর্মকর্তার সূত্রে জানিয়েছে যে গুগল তাদের লাইসেন্স নবায়নের জন্য দেরি করে আবেদনপত্র জমা দিয়েছে৷ তাই তাদের ব্যাপারে সরকারের সংস্থাগুলোর খোঁজ খবর নিতে একটু বেশি সময় লাগছে৷ তবে শিগগিরই সরকার এই ব্যাপারে উত্তর দেবে বলে জানিয়েছেন ওই সরকারি কর্মকর্তা৷ শিনহুয়া জানিয়েছে, লাইসেন্স নবায়নের জন্য যে আবেদনপত্র জমা দিয়েছে গুগল তাতে চীনা আইনকানুন মেনে চলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তারা৷ গুগলের প্রধান কৌশুঁলি ডেভিড ড্রামন্ড জানিয়েছেন, লাইসেন্স ছাড়া আমরা বাণিজ্যিকভাবে চীনে কার্যক্রম চালাতে পারবো না৷ সুতরাং লাইসেন্স না হলে চীনে আর গুগল দেখা যাবে না৷

china

চীনে ৪০ কোটিরও বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী

এদিকে গুগলের ওপর এখনও আংশিক প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে রেখেছে কর্তৃপক্ষ৷ যেমন, গুগলের সার্চ বক্সে কেউ যদি ইংরেজিতে ওবি লেখে তাহলে তাতে সাজেশন চলে আসে ওবামা৷ কিন্তু চীনে যারা গুগলের সার্চ বক্স ব্যবহার করেন তারা এই ধরণের সাজেশন পান না৷ উল্লেখ্য, গোটা চীনে ৪০ কোটিরও বেশি লোক ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকে৷ বিশ্বের সবচেয়ে বড় ইন্টারনেট বাজার এখন চীন৷ তাই স্বাভাবিকভাবেই যে কোনভাবে এখানে কাজ চালিয়ে যেতে চায় গুগল৷ কিন্তু মাস কয়েক আগে সেন্সরশিপ ইস্যুতে গুগলের সঙ্গে চীনা সরকারের বিরোধ বাধে৷ এর পরিপ্রেক্ষিতে গুগল চীনে তাদের কার্যক্রম বেশ কিছুদিনের জন্য বন্ধ রাখে৷ এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের বিরোধ গিয়ে ঠেকে দুই দেশের সরকারি পর্যায় পর্যন্ত৷ তবে পরবর্তীতে তা কিছুটা কমে আসে৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম, সম্পাদনা: আবদুল্লাহ আল-ফারূক