1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
চীনের পিকিংয়ে বিক্ষোভ ঠেকাতে একদল পুলিশকে রাস্তায় অবস্থান নিতে দেখা যাচ্ছে৷
চীনে কোভিড নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ বাড়ায় নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছেছবি: Kevin Frayer/Getty Images
স্বাস্থ্যচীন

চীনে কঠোর কোভিড নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ, শির পদত্যাগ দাবি

২৮ নভেম্বর ২০২২

চীনে করোনার কঠোর বিধিনিষেধ বিরোধী বিক্ষোভ রোববার দেশটির কয়েকটি শহরে ছড়িয়ে পড়ে৷ বিক্ষোভ চলাকালে দেশটির জনবহুল ও বাণিজ্যিক শহর সাংহাইয়ে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়েছে৷

https://p.dw.com/p/4KAq4

বিক্ষোভকারীরা চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি ও প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন৷ অনেকে বলেন, তারা চিরদিনের জন্য শাসক চায় না৷ শির পদত্যাগ দাবি করেও স্লোগান দিতে শোনা যায় বিক্ষোভে৷  

চীনের প্রেসিডেন্ট শির নেওয়া ‘শূন্য করোনা নীতি'র বিরুদ্ধে দেশটির সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ দিন দিন বাড়ছিল৷ গত বৃহস্পতিবার দেশটির জিনজিয়াং প্রদেশের উরুমকি শহরের একটি আবাসিক ভবনে অগ্নিকাণ্ডে ১০ জনের মৃত্যু হয়৷ এ জন্য করোনার কঠোর বিধিনিষেধকে দায়ী করা হয়৷ 

মৃত্যুর ঘটনার পর ঐ শহরের বিক্ষুব্ধ মানুষ রাস্তায় নেমে আসেন৷ তারা লকডাউন তুলে নেওয়ার দাবি জানান৷ পরবর্তীতে দেশটির অন্তত সাতটি শহরে মানুষ বিক্ষোভ শুরু করে৷  

রোববার দিন শেষে সাংহাই শহরে শত শত মানুষ বিক্ষোভ শুরু করে৷ সেখানে পুলিশের সাথে তাদের ধস্তাধস্তি হয়৷ পুলিশ জোর করে অনেক বিক্ষোভকারীকে একটি বাসে তুলে দিলে পুলিশের সাথে বিক্ষোভকারীদের হাতাতাতি হয়৷  

শন জিয়াও নামের এক প্রতিবাদকারী বলেন, ‘‘আমি এখানে এসেছি কারণ আমি আমার দেশকে ভালোবাসি, কিন্তু আমি আমার সরকারকে ভালোবাসি না৷ আমি স্বাধীনভাবে বাইরে যেতে চাই, কিন্তু তা পারি না৷ আমাদের কোভিড বিধিনিষেধ বাস্তবভিত্তিক নয়৷''   

বিক্ষোভের প্রেক্ষিতে সোমবার সাংহাই শহরে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়৷ বিক্ষোভ করার স্থানটি ঘিরে রাখা হয়৷ এদিকে সোমবার বেইজিং বা সাংহাই শহরে বিক্ষোভের খবর পাওয়া যায়নি৷

বিক্ষোভের সময় বিবিসি ও রয়টার্সের দুজন সাংবাদিককে পুলিশ হেনস্থা করে এবং তাদের ধরে নিয়ে যায়৷ তবে কয়েক ঘণ্টা পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়৷

এ ব্যাপারে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সোমবার দাবি করেছে যে, বিবিসির সাংবাদিক তার পরিচয় দেননি৷

করোনার সূত্রপাত হয়েছিল চীনের উহানে৷ সেখানেও শত শত মানুষ রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করে৷ লকডাউন প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে তারা ব্যারিকেড ভেঙে ফেলে এবং করোনা পরীক্ষার জন্য তৈরি তাঁবু উলটে ফেলে৷  

একদশক আগে ক্ষমতায় আসার পর আইন ভঙ্গ করে প্রেসিডেন্ট শি'র নীতির বিরুদ্ধে চীনের মানুষের এমন বিক্ষোভ নজিরবিহীন৷ উচ্চ-প্রযুক্তির মাধ্যমে সামাজিক নজরদারি করে তার সরকার কঠোর হাতে বিক্ষোভ দমন করে আসছে৷ 

‘‘আমরা লকডাউন শেষ হওয়ার আশা করছি৷ কেননা, আমরা স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে চাই৷ আর আমাদের সবার সাহসের সাথে অনুভূতি প্রকাশ করা উচিত,'' বেইজিংয়ে একটি মোমবাতি প্রজ্জ্বলন ভ্যেনুতে বলেন এক যুবক৷  

করোনাভাইরাস থেকে দেশকে মুক্ত করার পথে এই বিক্ষোভ একটি বড় ধাক্কা৷ বৈশ্বিকভাবে করোনার সংক্রমণ কম হলেও সম্প্রতি চীনে রেকর্ড সংখ্যক মানুষ কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন, যা বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ অর্থনীতিকে বেশ চাপে ফেলেছে৷ শনিবারই দেশটিতে নতুন করে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন৷ এমন অবস্থায় কয়েকটি শহরে আবার লকডাউন দেওয়া হয়েছে৷   

বিক্ষোভের পর নিয়ম কিছুটা শিথিল, তবে ‘শূন্যকরোনা নীতি' চলবে  

বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে করোনার অধিকাংশ বিধি প্রত্যাহার করা হলেও চীনের ক্ষেত্রে তা ব্যতিক্রম৷ দেশটিতে এখনো ‘শূন্য করোনা নীতি' বজায় রয়েছে৷ এর ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষ ঘরবন্দি থাকতে বাধ্য হচ্ছেন৷

বেইজিংয়ের নগর সরকার ঘোষণা করেছে যে, সংক্রমণ এলাকা বা বাসাবাড়িগুলোকে তারা আর ব্লক করে আসা যাওয়া বন্ধ করবে না৷ গত সপ্তাহে একটি বাড়িতে আগুন লাগলে অবরুদ্ধ থাকার কারণে মানুষ বের হতে পারেনি৷ অগ্নিনির্বাপক দলও সেখানে ঢুকতে পারেনি৷ ফলে অনেক মানুষের প্রাণহানি ঘটে৷ এই ঘটনার পরই বিক্ষোভ শুরু হয়৷   

‘‘জরুরি অবস্থায় বের হওয়া এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের যান প্রবেশের জন্য রাস্তাগুলো অবশ্যই অবমুক্ত রাখতে হবে,'' চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থাকে বলেন সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে নিয়োজিত এক কর্মকর্তা৷  

চীনে ‘জিরো কোভিড' নীতিতে সংক্রামিত প্রতিটি ব্যক্তিকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয়৷ এর ফলে দেশটির কিছু এলাকার মানুষ চার মাস পর্যন্ত বাড়িতে বন্দি রয়েছে৷ কিন্তু তাদের কাছে পর্যাপ্ত খাদ্য সরবরাহ করা হয়নি৷  

গত মাসে চীনা সরকারি দল সঙ্গরোধ ছাড়াও কোভিড সংক্রান্ত আরও কিছু নিয়ম শিথিলের ঘোষণা দিলেও নতুন করে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার প্রেক্ষিতে বরং আরও কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হচ্ছে৷ সোমবার দৈনিক নতুন আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০,৩৪৭, যার মধ্যে ৩৬,৫২৫ জনের মধ্যে কোনো লক্ষণ নেই৷  

ক্ষমতাসীন দলের সংবাদপত্র পিপলস ডেইলি জানিয়েছে, চলমান অ্যান্টি-ভাইরাস কৌশল কার্যকরভাবে অব্যহত থাকবে৷

একেএ/জেডএইচ (এপি, রয়টার্স)

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গ

আত্মবিশ্বাসের অভাবে অল্পতেই আত্মহত্যায় কমবয়সিরা

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান