চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের হাইপারসনিক অস্ত্র তৈরির প্রতিযোগিতা | বিশ্ব | DW | 01.12.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের হাইপারসনিক অস্ত্র তৈরির প্রতিযোগিতা

যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনীর এক ঊর্ধতন কর্মকর্তা বলেছেন, সর্বোচ্চ গতির অস্ত্র তৈরির জন্য চীনের সঙ্গে তার দেশের প্রতিযোগিতা চলছে৷ প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যাওয়ার জন্যএই খাতে বরাদ্দ বাড়ানো প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি৷

Hypersonic Air-breathing Weapons Concept (HAWC) missile

ফাইল ফটো

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের এয়ারফোর্স সেক্রেটারি ফ্রাঙ্ক কেনড্যাল বলেন, ‘‘চীনের সঙ্গে প্রতিযোগিতাটা শুধু (অস্ত্রের) সংখ্যা বাড়ানোর নয়, গুণগত মান বাড়ানোরও৷'' পেন্টাগনের কার্যালয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এ  কথা বলেন তিনি৷

সাম্প্রতিক সময়ে হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্রের বেশ কিছু পরীক্ষা চালিয়েছে চীন এবং যুক্তরাষ্ট্র৷ গত অক্টোবরে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা কর্মকর্তা জেনারেল মার্ক মিলি চীনের একটি হাইপারসনিক অস্ত্রের সফল পরীক্ষার খবর নিশ্চিত করেন৷ মার্কিন সমরবিশেষজ্ঞরা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেপণাস্ত্রের ব্যুহ ভেদ করার জন্যই এমন উচ্চ গতির অস্ত্র তৈরি করছে চীন৷ যুক্তরাষ্ট্রও শব্দের চেয়েও পাঁচ গুন গতির এই অস্ত্রে সমৃদ্ধ হচ্ছে৷

মঙ্গলবার কেনড্যাল আরো বলেন, ইরাক এবং আফগানিস্তানের জন্য বরাদ্দ রাখতে গিয়ে হাইপারসনিক অস্ত্র তৈরির বিষয়টিকে কম গুরুত্ব দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র সরকার৷ ওই সময়ে চীন যে হাইপারসনিক অস্ত্র তৈরির প্রতিযোগিতায় যথেষ্ট সুবিধা পেয়েছে তা-ও স্বীকার করেন তিনি৷

তিনি মনে করেন, চীনের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় কাঙ্খিত ফল পেতে হলে হাইপারসনিক অস্ত্র তৈরির ব্যয় বাড়াতে হবে৷ আগামী বাজেটে এই খাতে বরাদ্দ বাড়ানো প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি৷ তার মতে, যুক্তরাষ্ট্রের উচিত অপেক্ষাকৃত পুরোনো অস্ত্র কমিয়ে আগামী প্রজন্মের হাইপারসনিক অস্ত্রের সংখ্যা বাড়ানো৷

হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র শব্দের চেয়েও দ্রুতগতি সম্পন্ন৷ এ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র ঘণ্টায় ৬২০০ কিলোমিটার (৩,৮৫৩ মাইল) বেগে উড়ে গিয়ে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারে৷

এসিবি/ কেএম (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন