চীনকে ঠেকাতে প্রতিরক্ষাচুক্তি জাপান-অস্ট্রেলিয়ার | বিশ্ব | DW | 18.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

চীনকে ঠেকাতে প্রতিরক্ষাচুক্তি জাপান-অস্ট্রেলিয়ার

নতুন চুক্তিতে সই করলো জাপান ও অস্ট্রেলিয়া। প্রধান উদ্দেশ্য, চীনকে ঠেকানো।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন এখন জাপান সফর করছেন। জাপানের প্রধানমন্ত্রী সুগার সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেছেন। সেই সঙ্গে দুই দেশের মধ্যে একটি প্রতিরক্ষা চুক্তিও হয়েছে। চুক্তির সরকারি নাম, 'রেসিপ্রোকাল অ্যাকসেস এগ্রিমেন্ট'। চুক্তি অনুসারে জাপান ও অস্ট্রেলিয়ার সেনা একে অপরের সামরিক ঘাঁটিতে যেতে পারবে। দুই প্রধানমন্ত্রীর দাবি, এর ফলে সামরিক মহড়া ও কোনো বিপর্যয় মোকাবিলার ক্ষেত্রে সহায়তা অনেকটাই বাড়বে।

মরিসন বলেছেন, এটি ঐতিহাসিক চুক্তি। আর সুগার মতে, এই চুক্তির ফলে ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকা মুক্ত ও অবাধ রাখার কাজ আরো ভালোভাবে হবে। ঘটনা হলো, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপান ও অস্ট্রেলিয়া পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরে একে অন্যের বিরুদ্ধে প্রবলভাবে লড়েছিল।

কিন্তু এখন যে তারা একজোট হয়েছে, তার প্রধান কারণ চীন। ইন্দো-প্যাসিফিকে চীন প্রধান্য বিস্তার করার চেষ্টা করছে। সেটা ঠেকাতে চাইছে জাপান ও অস্ট্রেলিয়া। তাদের সঙ্গে আছে ভারত ও অ্যামেরিকা। সম্প্রতি চার দেশের বিদেশমন্ত্রীরা টোকিওতে বৈঠক করেছেন। সেখানে চীনকে ঠেকানোর কৌশল নিয়ে কথা হয়েছে। তারপর চার দেশের নৌবাহিনী একযোগে মহড়া করেছে। মার্কিন বিদেশ সচিব ভারতে এসেছেন। ভারতের বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্করের সঙ্গে তাঁর দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। সেখানেও প্রধান বিষয় ছিল, চীনের মোকাবিলা করা।

সুগা বা মরিসন চীনের নাম নেননি। কিন্তু দক্ষিণ ও পূর্ব চীন সাগরে বেজিং যেভাবে সামরিক সম্ভার সাজাচ্ছে, তা নিয়ে চিন্তাপ্রকাশ করেছেন। এ নিয়ে চীনের সঙ্গে জাপান, তাইওয়ান, ফিলিপাইন্স ও ভিয়েতনামের বিরোধ আছে।

জিএইচ/এসজি(রয়টার্স, এপি, ডিপিও)

বিজ্ঞাপন