চিম্বুক পাহাড়ে ম্রোদের গ্রামে আতঙ্ক | আলাপ | DW | 13.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

চিম্বুক পাহাড়ে ম্রোদের গ্রামে আতঙ্ক

বান্দরবান জেলা সদর থেকে আলীকদম হয়ে থানচি যাওয়ার পথের ধারে নীলগিরি পাহাড়৷ এই পাহাড়ের কাছে চিম্বুক পাহাড় এলাকায় ম্রোদের পাঁচটি গ্রামের মানুষের মধ্যে এখন উচ্ছেদ আতঙ্ক৷

ম্রো জনগোষ্ঠীর আশঙ্কা ওই হোটেল ও পর্যটন কেন্দ্রের কারণে এক হাজার একর জমি বেহাত হয়ে যাবে৷ উচ্ছেদ হবে পাঁচ গ্রামের মানুষ৷

ম্রো জনগোষ্ঠীর আশঙ্কা ওই হোটেল ও পর্যটন কেন্দ্রের কারণে এক হাজার একর জমি বেহাত হয়ে যাবে৷ উচ্ছেদ হবে পাঁচ গ্রামের মানুষ৷

নীলগিরি সংলগ্ন কাপ্রুপাড়ায় তৈরি হচ্ছে সিকদার গ্রুপের পাঁচতারা হোটেল ও পর্যটন কেন্দ্র৷ জেলা পরিষদের কাছ থেকে ২০ একর জমি বন্দোবস্ত নিয়েছে তারা৷ সেনা কল্যাণ ট্রাস্টের সাথে তারা কাজ করছে যৌথভাবে৷ কিন্তু ম্রো জনগোষ্ঠীর আশঙ্কা ওই হোটেল ও পর্যটন কেন্দ্রের কারণে এক হাজার একর জমি বেহাত হয়ে যাবে৷ উচ্ছেদ হবে পাঁচ গ্রামের মানুষ৷ আর সেই পাঁচ গ্রামে ১১৬টি পরিবার বসবাস করে৷ বান্দরবান শহর থেকে ৪৫ কি.মি দক্ষিণ-পূর্ব দিকে চিম্বুক-থানচি সড়কের পাশে এর অবস্থান৷

ওই এলাকারই বাসিন্দা রেং ইয়াং ম্রো বলেন, ‘‘তারা বলছেন ২০ একর জায়গায় হোটেল করবে৷ কিন্তু এরইমধ্যে আরো বেশি জায়গা জুড়ে তারা ঘিরে ফেলেছে৷ পাহাড় কাটা শুরু করেছে৷ ফলের বাগান নষ্ট হয়ে যাবে৷ পাহাড়ি ঝর্না বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে৷ তারা পর্যটন কেন্দ্র করবে৷ ক্যাবল কার দিয়ে এক পাহাড় থেকে আরেক পাহাড়ে ঘোরার ব্যবস্থা করবে৷ আমাদের আশঙ্কা এক হাজার একরের মতো জমি তাদের দখলে চলে যাবে৷ সরাসরি পাঁচটি গ্রাম ও তার বাসিন্দারা ক্ষতিগ্রস্ত হবে৷ আর এর প্রভাবে আরো ১০ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে৷''

অডিও শুনুন 06:45

আমাদের আশঙ্কা এক হাজার একরের মতো জমি তাদের দখলে চলে যাবে: রেং ইয়াং ম্রো

সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে ‘আর অ্যান্ড আর হোল্ডিংস' জানায়, চিম্বুকে ম্যারিয়ট হোটেল অ্যান্ড অ্যামিউজমেন্ট পার্কে পাঁচতারা হোটেল ছাড়াও ১২টি আলাদা ভিলা থাকবে৷ পর্যটকরা যাতে এক পাহাড় থেকে আরেক পাহাড়ে যেতে পারেন সেজন্য থাকবে ক্যাবল কার৷ থাকবে নানা ধরনের বিনোদন, রাইড এবং সুইমিং পুল৷ পুরোদমে কাজ চলছে৷ ২০২১ সালেই হোটেলটি পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হবে৷

জানানো হয় সেনাকল্যাণ ট্রাস্টের সঙ্গে তাদের এনিয়ে ৩৫ বছরের চুক্তি হয়েছে৷ যৌথভাবে তারা প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে৷ আর অ্যান্ড আর হোল্ডিংস সিকদার গ্রুপের সিস্টার কনসার্ন৷ এর চেয়ারম্যান রিক হক৷

গত ৮ নভেম্বর ম্রো জনগোষ্ঠী ওই এলাকায় প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে৷ তার জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে৷

ইয়াঙান ম্রো একজন লেখক ও গবেষক৷ তিনি থাকেন চিম্বুক পাহাড় এলাকায়৷ তিনি বলেন, ‘‘তারা দুই তিন মাস আগেই সাইনবোর্ড লাগিয়েছে৷ এখন পাহাড় কাটা শুরু করেছে৷ জেলা পরিষদের কাছ থেকে তারা ২০ একর জমি বন্দোবস্ত নিলেও এখন তারা যেভাবে এগোচ্ছে তাতে এক হাজার একর জমি তাদের দখলে চলে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ তারা দূরে দূরে তাদের পিলার পুঁতেছে৷ তারা গ্রামের মধ্য দিয়ে রাস্তা বানিয়েছে৷ রাস্তার মোড়ে মোড়ে ছোট ছোট ঘর বানিয়েছে৷''

ইয়াঙান ম্রো বলেন, ‘‘আমরা এখন অপেক্ষা করছি সরকার কী ব্যবস্থা নেয় তা দেখার জন্য৷ নয়তো আমাদের আরো আন্দোলন করতে হবে৷ কারণ এটা তো আমাদের বাঁচা-মরা৷''

অডিও শুনুন 03:39

আমরা জুম চাষ করতে না পারলে বাঁচব কীভাবে?: ঙানওয়াই ম্রো

ওই এলাকার মানুষ জুমচাষের ওপর নির্ভরশীল৷ তারা নানা ধরনের ফলের বাগান করে টিকে আছেন৷ ওই এলাকা বেহাত হয়ে গেলে তাদের চাষের জন্য কোনো জমি থাকবেনা৷ তাই তারা অনেক শঙ্কার মধ্যে আছেন৷ কারবারী ঙানওয়াই ম্রো বলেন, ‘‘আমাদের আম বাগান, পেপে বাগানের ক্ষতি হবে৷ আমরা জুম চাষ করতে না পারলে বাঁচব কীভাবে? আমাদের জীবন এখানেই৷ তারা তো বিভিন্ন জায়গায় পিলার দিয়েছে৷ তার মধ্যে আমাদের যেতে দেয়না৷ প্রায় এক হাজার একর তারা নিতে চায়৷ তারা উন্নয়ন রাস্তার ঢালে করুক৷ কিন্তু তারপর আর না৷''

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বান্দরবান জেলা পরিষদের কাছ থেকে সেনা কল্যাণ ট্রাস্ট ২০ একর জমি বন্দোবস্ত নিয়েছে৷ তাদের কাছ থেকে নিয়েছে সিকদার গ্রুপের আর অ্যান্ড আর হোল্ডিংস৷ তবে বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্ল মারমা জানান, ‘‘জেলা পরিষদের কাছ থেকে তারা ২০ একর জমি বন্দোবস্ত নেয়ার এমওইউ করেছে৷ এখনো হস্তান্তর হয়নি৷ কারণ এখন সাধারণভাবে জমি হস্তান্তর বন্ধ আছে৷ সরকার আমাদের বিশেষভাবে ওই জমি দিলে আমরা তাদের হস্তান্তর করব৷''

অডিও শুনুন 04:34

কয়েকশ' একর জমি দখলে নেয়ার অভিযোগ করা হচ্ছে তা সম্ভব নয়: ক্য শৈ হ্ল মারমা

তাহলে সেখানে এখনই কীভাবে স্থাপনা হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘সেটা আমার জানা নাই৷ ২০ একর জমি রাস্তার পাশে ছোট একটি পাহাড়সহ এর বাইরে যে কয়েকশ' একর জমি দখলে নেয়ার অভিযোগ করা হচ্ছে তা সম্ভব নয়৷ কেউ করতে চাইলেও আমরা সেটা হতে দেবনা৷ আমি এর বিরুদ্ধে৷''

সিকদার গ্রুপ এখন ২০ একরের সঙ্গে আরো ১০ একর জমি দাবি করছে৷ গ্রুপের সমন্বয়কারী ফরিদ উদ্দিন আহমদ খানের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তিনি কথা বলতে রাজি হননি৷ গ্রুপের পাবলিক রিলেশনস বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কোনো ফল হয়নি৷ তবে কয়েকদিন আগে তিনি সংবাদমাধ্যমের কাছে দাবি করেন, ‘‘কাগজে প্রথমে ২০ একরের কথা লেখা ছিল৷ পরবর্তীতে কয়েক বছরের মধ্যে পাহাড় ভেঙে যায়৷ এরপর আরও ১০ একর নেওয়া হয়৷ হোটেলের জন্য মোট ৩০ একরের বাইরে আর কোনো জমি নেই৷''

ফরিদ উদ্দিন আহমদ খান দাবি করেন, ‘‘স্থানীয় কিছু ব্যক্তি এধরনের কথা ছড়াচ্ছে৷ হোটেল নির্মাণ হলে স্থানীয়দের জীবনমান এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে৷''

হোটেল ও পর্যটন কেন্দ্রে সেনা কল্যাণ ট্রাস্টেরও অংশীদারিত্ব আছে৷ বান্দরবান সেনা রিজিয়নের ব্রিগেড কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খন্দকার মো. শাহিনুর এমরান জানান, যেখানে সেনাবাহিনী এই কাজের সাথে জড়িত সেখানে কোনো অনিয়ম হবে না৷ হতে দেয়া হবেনা৷ ২০ একরের মধ্যেই হোটেল ও স্থাপনা হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘কাগজে কলমে ২০ একর জায়গা নেয়া হয়েছে৷ সিকদার গ্রুপ কোনো জমি দখল করে নাই৷ আমরা বলেছি খবরদার, যদি সম্ভব হয় আরো ১০ একর নেবেন৷ তা না হলে যেখানে আছেন তারমধ্যেই করতে হবে৷''

তিনি জানান সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে ম্রোদের সাথে দ্রুতই বৈঠক করবেন৷ আর তাদের উন্নয়নের জন্যও কিছু কাজ করা হবে৷ এখনই তাদের কিছু দোকান করে দেয়া হবে রাস্তার পাশে৷ তাদের প্রয়োজন হলে কিছু বাড়িঘরও করে দেয়া হবে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন