1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
Teeindustrie Bangladesch
ছবি: Khukon Thaunaujam

চা শ্রমিকদের দুর্দশার জীবন

মাসুম বিল্লাহ
১ মে ২০১৯

৭ ফুট বাই ১৪ ফুট ঘরে পুরো পরিবারের বাস, শিক্ষা-স্বাস্থ্য নিয়েতো ভাবার সুযোগই নেই৷ উপরন্তু দ্রব্যমূল্য পাল্লা দিয়ে বাড়লেও তাঁদের বেতন সেভাবে বাড়ে না৷ এভাবে নানা বঞ্চনা নিয়ে দুর্দশার জীবন কাটাচ্ছেন বাংলাদেশের চা শ্রমিকরা৷

https://p.dw.com/p/3HlDq

একরকম দাসের মতো জীবন কাটালেও প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে উৎপাদন ধরে রেখেছেন চা শিল্পীরা৷ তাই জীবন সম্পর্কে শুধু আক্ষেপই ঝরে তাঁদের কণ্ঠে৷

‘‘চা বাগানের মানুষের  জীবন কষ্টে-দুর্দশায় যায়৷ মানুষ মনে করে যে, আমাদের এই রকমই দিন যাবে,'' ডয়চে ভেলেকে বলছিলেন মৌলভীবাজারের করিমপুর চা বাগানের নারী শ্রমিক কাজল রায়৷ ‘‘সারাজীবন কষ্ট করে করে আমাদের দিন পার করব, যাওয়ার তো আর কোনো জায়গাও নাই৷ আর কোনো কিছু করারও নেই আমাদের৷ ভাবতে ভাবতে এরকমই তাঁরা জীবনযাপন পার করে৷''

বেতন বৈষম্য, বাসস্থান আর শিক্ষা-চিকিৎসার দুরবস্থা নিয়ে বলতে গিয়ে স্বর নেমে আসে কাজল রায়ের

বেতন বৈষম্য, বাসস্থান আর শিক্ষা-চিকিৎসার দুরবস্থা নিয়ে বলতে গিয়ে এভাবে স্বর নেমে আসে কাজল রায়ের৷ করিমপুরের চা বাগানে প্রায় ১৮ বছর ধরে কাজ করছেন তিনি৷

বাংলাদেশে চা বোর্ডের নিবন্ধিত ১৬৬টি চা বাগানে কাজ করেন প্রায় দেড় লাখ শ্রমিক৷ একটি বড় রপ্তানি খাতের চাকা চালু রাখলেও তাঁদের বেশিরভাগেরই গল্প কাজল রায়ের মতোই৷

১৮ বছর আগে কাজল রায় যখন কাজ শুরু করেছিলেন, তখন শ্রমিকদের বেতন ছিল দৈনিক ২২ টাকা৷ সময়ের ধারাবাহিকতায় তা ১০২ টাকা হলেও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে পেরে উঠছেন না বলে জানান তিনি৷

প্রতি সপ্তাহে চা বাগান থেকে সাড়ে তিন কেজি চাল কিংবা আটা এবং সন্তানের জন্য এক কেজি চাল কিংবা আটা রেশন হিসাবে পান কাজল৷ এর সঙ্গে স্থানীয় রাবার বাগানের শ্রমিক স্বামীর আয় মিলিয়ে কোনোমতে সংসার চলে যাচ্ছে তাঁদের৷ এর মধ্যেও চার মেয়ের তিন মেয়েকে পড়াশোনা করাতে পারায় নিজেকে অন্য অনেক চা শ্রমিকের চেয়ে সৌভাগ্যবানই মানছন তিনি৷

‘‘সপ্তাহে ৭১৪ টাকা পাই৷ কয় টাকায় চাল কিনবে, তারপরে তেল, সাবান, বাচ্চাকাচ্চাদের লেখাপড়া৷ অনেক কষ্টের মধ্যে চা বাগানের মানুষ চলে, তারপরেও লেখাপড়া করাতে হয় বাচ্চাদের,'' ডয়চে ভেলেকে বলেন কাজল৷

৭ বাই ১৪ ফুটের ঘরে থাকার কষ্টের বর্ণনা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘‘কোম্পানির যে ঘর, তাতে দুইজন মানুষের থাকতেই কষ্ট হয়৷ এর মধ্যে বাচ্চা-কাচ্চা নিয়ে থাকতে আরো কষ্ট৷ কারো বাচ্চা তিনটা, কারো ৪টা৷''

গত বছর চা শ্রমিক ইউনিয়নের সঙ্গে মালিকদের চুক্তির ফলে দৈনিক বেতন ১০২ টাকা দাঁড়ায় শ্রমিকদের৷ ওই ১০২ টাকা পেতে প্রতিদিন ২০ কেজি করে চা পাতা তুলে দিতে হয়৷ তবে কোনো কোনো চা বাগান ২০ কেজির চেয়েও বেশি তুলতে বাধ্য করে বলে জানালেন শ্রমিকরা৷

সংগঠনের তরফ থেকে ৩০০ টাকা দাবি করলেও ১০২ টাকায় চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে: দীপংকর রায়

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক দীপংকর রায় জানান, ২০১৮ সালের চুক্তি অনুযায়ী ৮ ঘন্টা শ্রম দিলে ১০২ টাকা করে দেয়া হয়৷ কিন্তু কোনো কোনো জায়গায় ওই ১০২ টাকার জন্য ২৪ থেকে ২৬ কেজি পাতা তুলতেও বাধ্য করে৷

‘‘চুক্তিতে কিছু ফাঁক রেখে দিয়েছে মালিকপক্ষ ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা৷ যেখানে চা বাগানের পঞ্চায়েতরা দুর্বল, সেখানে প্রেসার দিয়ে ২০ কেজি থেকে ২৪ কেজি নিচ্ছে৷ গত বছরের চুক্তিতে ফাঁক রেখে দিয়েছে, মালিকপক্ষ চাইলে নিরিখ বাড়াতে পারে'', ডয়চে ভেলেকে বলেন তিনি৷

তিন পুরুষ ধরে চা বাগানে কাজ করছে দীপংকরের পরিবার৷ শ্রমিক হিসাবে দাদা ও বাবা অবসরে যাওয়ার পর তিনিও এ পেশায় এসেছেন৷ ব্রিটিশ আমলে মাদ্রাজ থেকে এসে এখানকার চা শিল্পের সঙ্গে যুক্ত হন তাঁর পূর্বপুরুষরা৷

মালিক কাটে ৭টাকা, শ্রমিককে দেন দেড় টাকা

বাগানে নির্দিষ্ট ওজনের কম-বেশি চা তুললে টাকা কেটে নেওয়া এবং মজুরি দেওয়ার কার্যক্রম চালু আছে৷ এক্ষেত্রে মালিক আর শ্রমিকের জন্য ভিন্ন নিয়ম চালু আছে৷

চা শ্রমিক কাজল রায় জানান, তাঁর কর্মস্থল ডানকান ব্রাদার্সের মালিকানাধীন করিমপুর চা বাগানে ২০ কেজির মানদণ্ডেই চা তুলতে হয়৷ কিন্তু বেশি তুললে প্রতি কেজিতে শ্রমিকদের দেওয়া হয় দেড় টাকা করে৷ আর কমের জন্য প্রতি কেজিতে কেটে নেওয়া হয় সাত টাকা করে৷

‘‘ (বেশি পাতা তুললে প্রতি কেজির জন্য) দেড় টাকা দেয়৷ আর কম হলে প্রতি কেজিতে ৭ টাকা কেটে নেয়৷ আমাদের সবক্ষেত্রে ঝামেলা৷ চা বাগানের মানুষের সবক্ষেত্রেই কষ্ট'', নিজেদের অবস্থার বোঝাতে গিয়ে ডয়চে ভেলেকে বলেন কাজল রায়৷

শিক্ষা-স্বাস্থ্যের দুরবস্থা

চা শ্রমিক ফেডারেশনের নেতা দীপংকর রায় বলেন, ‘‘বর্তমানে চা বাগানে শিশু শ্রম অনেকাংশে কমলেও শিক্ষা-দীক্ষার সুযোগ তেমন নেই৷ ১৬ থেকে ১৭টি চা বাগানে সরকারি প্রাইমারি স্কুল আছে৷ ২০০৮ সালে ছিল ৬টি৷ আন্দোলনের কারণে ১৪টা হয়েছে৷ সবখানে মালিকদের নিজস্ব মেকানিজম দাঁড় করায়৷ ক্লাস বা পড়াশোনার কোনো গুরুত্ব থাকে না৷ আর তিনশ' জন স্টুডেন্টকে তো এক বা দুইজন শিক্ষক দিয়ে পড়ানো সম্ভব না৷''

নিজস্ব চিকিৎসাসেবার ব্যবস্থা তেমন না থাকায় ডাক্তার দেখাতে হলে তাঁদেরকে মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলা থেকে সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেও যেতে হয় বলে জানান কাজল রায়৷ ‘‘অসুস্থ হলে সিলেট ওসমানী মেডিকেলে নিয়ে যেতে হয়৷ যেতেই ৭-৮শ' টাকা খরচ হয়ে যায়৷ চিকিৎসাতো পরের বিষয়৷''

শ্রমিকদের বেতনভাতা বাড়ানোর দাবি জানিয়ে শ্রমিক নেতা দীপংকর বলেন, ‘‘আমাদের দেশে চা শ্রমিকদের অবস্থা খুবই করুণ৷ তারা প্রতিদিন যে শ্রম দেয়, শ্রমের বিনিময়ে যে ১০২ টাকা পায়, বর্তমান বাজারের যে অবস্থা, তাতে খুবই কষ্টের মধ্যে এদের জীবন যায়৷ ১০২ টাকা তো এমনিতে প্রতিদিন খরচ হয়ে যায়৷ আমরা আমাদের সংগঠনের তরফ থেকে ৩০০ টাকা দাবি করেছিলাম৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত ১০২ টাকায় চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে৷''

স্কিপ নেক্সট সেকশন এই বিষয়ে আরো তথ্য

এই বিষয়ে আরো তথ্য

আরো সংবাদ দেখান
স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

চট্টগ্রামে ১২০ পাহাড় নিশ্চিহ্নকারীদের দাপট বাড়ছে

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান