চাহিদা বাড়লেও লিথিয়ামের পুনর্ব্যবহার হচ্ছে না | বিষয় | DW | 01.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

চাহিদা বাড়লেও লিথিয়ামের পুনর্ব্যবহার হচ্ছে না

বিদ্যুতচালিত যানবাহনের চল বেড়ে চলায় রিচার্জেবল ব্যাটারির জন্য প্রয়োজনীয় উপাদান হিসেবে লিথিয়ামের চাহিদাও বেড়ে চলেছে৷ এখনো এর জোগানে টান না পড়লেও ভবিষ্যতে এই উপাদান পুনর্ব্যবহার সম্পর্কে ভাবনাচিন্তা চলছে৷

প্রাকৃতিক পরিবেশে লিথিয়াম আলাদা করে চেনার উপায় নেই৷ অন্যান্য উপাদানের সঙ্গেসেটি মিশে থাকে৷ কারণ লিথিয়ামের এক অভিনব বৈশিষ্ট্য হলো, সেটির মধ্যে একটি আলগা ইলেকট্রন রয়েছে৷ লিথিয়াম সানন্দে সেটি বিকিরণ করে৷ সেটিকে বিচ্ছিন্ন করা অত্যন্ত কঠিন৷

দক্ষিণ অ্যামেরিকায় বিষয়টি একেবারে অন্যরকম৷ বিশ্বের সম্পদের অর্ধেকের বেশি সেখানেই সঞ্চিত রয়েছে৷ হ্রদের সাদা ক্রাস্ট বা স্তরের নীচে লবণের সঙ্গে সংযুক্ত থাকে লিথিয়াম৷ ফলে সেটি আলাদা করা সহজ৷ পাম্পের মাধ্যমে হ্রদের পানি তুলে বাষ্পীভূত করা হয়৷ শেষে লিথিয়াম ভরা অবশিষ্ট অংশ থেকে যায়৷ কিছু বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থের মধ্য থেকে লিথিয়াম আলাদা করা হয়৷ তবে আরও একটি সমস্যা রয়েছে৷ পাম্পের মাধ্যমে হ্রদ থেকে লবণাক্ত পানি তোলার সময় শুকনো এলাকার ভূগর্ভস্থ পানিও সরে যায়৷ ফলে মাঝারি আকারের গাড়ির একটি ব্যাটারি তৈরির জন্য প্রায় ১২ হাজার লিটার পানি নষ্ট হয়৷

লিথিয়াম রিচার্জেবল ব্যাটারির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এশিয়া মহাদেশে ব্যাটারি সেল তৈরি হয়৷ মাঝারি আকারের ইলেকট্রিক গাড়ির জন্য প্রায় ছয় কিলো লিথিয়ামের প্রয়োজন হয়৷ এভাবে লিথিয়িম আমাদের রাজপথে এসে পড়ে৷ লিথিয়াম ধনাত্মক প্রান্ত থেকে ঋণাত্মক প্রান্তে যায় বলে গাড়ি এগোতে পারে৷ চার্জ করলে আবার সেগুলি যথাস্থানে ফিরে আসে৷ কোনো এক সময়ে লিথিয়াম সেই কাজ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে পড়লে গাড়ির জন্য সেই ব্যাটারি অত্যন্ত দুর্বল হয়ে যায়৷

তবে পুনর্ব্যবহারযোগ্য জ্বালানী থেকে উৎপাদিত বিদ্যুৎ ধরে রাখা ও কাজে লাগানোর জন্য প্রায় ৮০ শতাংশ ক্ষমতাই যথেষ্ট৷ ফলে সূর্যের আলো না থাকলে এবং বাতাস না বইলেও বিদ্যুৎ হারিয়ে যায় না৷ কিন্তু কোনো এক সময়ে সব রিচার্জেবল ব্যাটারি নষ্ট হয়ে যায়৷ তখন কি লিথিয়াম নিষ্কৃতি পেতে পারে?

ব্যাটারিকিন্তু পুনর্ব্যবহার করা যায়৷ তবে পুরানো লিথিয়ামের নাগাল পেতে হলে অনেক জ্বালানী ও রাসায়নিক পদার্থের প্রয়োজন পড়ে৷ দক্ষিণ অ্যামেরিকা থেকে লিথিয়ামের জোগানের এখনো কোনো অভাব না থাকায় বর্তমানে রিসাইক্লিং করার প্রয়োজন দেখা যাচ্ছে না৷

ক্যার্স্টিন গ্র্যুন্ডার/এসবি

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়