চারজন ব্লগার কারাগারে, জামিন নামঞ্জুর | বিশ্ব | DW | 18.04.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

চারজন ব্লগার কারাগারে, জামিন নামঞ্জুর

আটক ব্লগারদের বিরুদ্ধে ১৭ দিনের তদন্তেও পুলিশ কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আনতে পারেনি৷ তাদের এক কথায় হরারানি করা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া৷

তিনি জানান, তাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই বলেই প্রথমে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করে এখন তথ্য প্রযুক্তি আইনে হাস্যকর মামলা দেয়া হয়েছে৷

চারজন ব্লগার আসিফ মহীউদ্দিন, মশিউর রহমান বিপ্লব, রাসেল পারভেজ এবং সুব্রত অধিকারীর রিমান্ড শেষে আদালত তাদের জামিন দেয়নি৷ তাদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে৷ পুলিশ বুধবার আদালতে দেয়া প্রতিবেদনে বলেছে যে তাদের বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা হয়েছে৷ এছাড়া, প্রাথমিক তদন্তে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের প্রমাণ পাওয়া গেছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ৷

তবে তাদের আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া ডয়চে ভেলেকে জানান, পুলিশের এই অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং কাল্পনিক৷ পুলিশ আদালতকে ব্যঙ্গচিত্র এবং কটুক্তির কথা বলেছে৷ কিন্তু এ নিয়ে তারা কোনো কাগজ-পত্র বা সেসব ব্যঙ্গচিত্র বা লেখার অনুলিপি দাখিল করতে পারেনি৷ আর ব্যঙ্গচিত্র যদি থেকেই থাকে, তা আদতে কার আঁকা – ব্লগার না অন্য কারুর – তাও জানাতে পারেনি পুলিশ৷

তিনি বলেন, পুলিশের কাছে আদৌ কোনো প্রামাণ নেই৷ থাকলে ১৭ দিন আগে তাদের ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করা হতো না৷ এছাড়া, এই ১৭ দিনেও কোনো প্রমাণ পায়নি তারা৷ তাই প্রমাণ ছাড়া কাহিনি সাজিয়েছে৷

ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় জানান, পুলিশ একটি সমীরকরণ সাজিয়েছে৷ আর তা হলো ব্লগার মানে নাস্তিক, নাস্তিক মানে ধর্মের অবমাননাকারী৷ তার ওপর ধর্মের অবমাননা মানে ধর্মীয় অনভূতিতে আঘাতকারী৷ তিনি বলেন, চারজন ব্লগার যেসব লেখা লিখেছেন তাতে কোথাও ধর্মের অবমাননা হয়নি৷ কাউকে বা কোনো গোষ্ঠীকে খুশি করতে তাদের হয়রানি করা হচ্ছে৷ এটা মানবাধিকারের লঙ্ঘন৷

তিনি জানান, এই মামলার বিচারের জন্য একটি বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠনের প্রক্রিয়া চলছে৷ চারজন ব্লগারের জামিনের জন্য সেই ট্রাইব্যুনালে ফের আবেদন করা হবে৷ তিনি মনে করেন, এই মামলার বিচারে চারজন ব্লগার নির্দোষ প্রমাণিত হবেন৷

ব্লগার অসিফের বড় বোন অধ্যাপক ড. জাহেদা মেহেরুন্নেসাও ডয়চে ভেলেকে বলেন যে, তারা আইনী লড়াই চালিয়ে যাবেন৷ তাদের আশা এর মাধ্যমে আসিফ নির্দোষ প্রমাণিত হবেন৷ তিনি বলেন, পুলিশ প্রতিবেদনে যেসব তথ্য দেয়া হয়েছে তাতে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ প্রমাণিত হয় না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন