চাঁদে, মঙ্গলে নভোচারী পাঠানোর পরিকল্পনা করছেন ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 17.12.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

চাঁদে, মঙ্গলে নভোচারী পাঠানোর পরিকল্পনা করছেন ট্রাম্প

চাঁদে আবারো নভোচারী পাঠানোর পরিকল্পনা করছে যুক্তরাষ্ট্র৷ যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র নাসাকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

এ সংক্রান্ত এক নির্দেশনা পত্র ‘স্পেস পলিসি ডিরেক্টিভ ১'-এ স্বাক্ষর করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ হোয়াইট হাউজে এ নিয়ে দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘‘১৯৭২ সালের পর নভোচারীদের আবারো চাঁদে পাঠানোর এ পদক্ষেপ দীর্ঘস্থায়ী অনুসন্ধানের পথে গুরুত্বপূর্ণ এক পদক্ষেপ৷ আমরা পর্যায়ক্রমে মঙ্গলে যাবার লক্ষ্যে তহবিল গঠন করব এবং হয়ত কোনো একদিন অন্য কোথাও আরো অনেক দূরে যাব৷'' এ মহাকাশ গবেষণার জ্ঞান অন্য অনেক দিক যেমন সামরিক খাতেও প্রয়োগ করা যেতে পারে বলে মন্তব্য করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ এক্ষেত্রে বেসরকারি খাতসহ অন্য দেশগুলোর অংশীদারিত্বের প্রয়োজনীয়তার কথাও তুলে ধরে হোয়াইট হাউজ৷ কেবল চাঁদে নয়, মঙ্গলেও নভোচারী পাঠানো হতে পারে তবে এ সংক্রান্ত বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি৷

ডোনাল্ড ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

এর আগে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ন্যাশনাল স্পেস কাউন্সিলের প্রধান ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স চাঁদে নতুন অনুসন্ধান চালানোর বিষয়ে কাজ করার প্রত্যয় জানিয়েছিলেন৷ অবশ্য এবারের এ পরিকল্পনার ক্ষেত্রে বাজেট বা সময় নির্ধারণ বিষয়ে এখনো কিছু জানানো হয়নি৷ নাসা জানায়, ২০১৯ সালের বাজেটে এ পরিকল্পনায় অর্থায়ন সংক্রান্ত দিকনির্দেশনা থাকবে৷ 

গত কয়েক বছরে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণার খরচ ক্রমাগত কমানো হচ্ছিল৷ ১৯৭২ সালের পর কোনো মার্কিন নভোচারী চাঁদে পা রাখেনি৷ নাসাও পৃথিবীর কাছাকাছি গ্রহগুলোতে মিশন পরিচালনায় বেশি মনোযোগ দিচ্ছিল৷ এর আগে সাবেক রাষ্ট্রপতি জর্জ এইচ ডাব্লিউ বুশ ও জর্জ ডাব্লিউ বুশ চাঁদ ও মঙ্গলে অভিযান চালানোর বিষয়ে পরিকল্পনা হাতে নিলেও আর্থিক বাধার মুখে তা বাস্তবায়িত করা সম্ভব হয়নি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এরপর বারাক ওবামার শাসনামলে এ বিষয়ে আবারো মনোযোগ দেয় যুক্তরাষ্ট্র৷ সেসময় ২০৩০ সালের মধ্যে মঙ্গলে পাড়ি দেবার লক্ষ্যস্থির করা হয়৷

চাঁদের তুলনায় মঙ্গলে অভিযান অনেক বেশি জটিল৷ ১৪০ মিলিয়ন মাইল দূরে কোন মানুষকে পাঠানো বর্তমান প্রযুক্তি বিবেচনায় বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ৷ সেই সাথে এর জন্য বিপুল পরিমাণ অর্থ সংস্থানেরও বিষয় জড়িত৷ এছাড়াও, শুন্য মাধ্যকর্ষণে এত বড় সময় থাকা নভোচারীদের শারীরিক ও মানসিক সমস্যা কারণও হতে পারে৷ 

ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরিকল্পনার বিষয়ে টেকনোলজি ওয়েবসাইট আর্স টেকনিকাতে লেখা হয়, ‘‘যদি ধরেও নেয়া হয় যে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট এ পরিকল্পনা ধরেই সামনে এগোবে, তারপরও ২০৩০ সালের আগে নাসা বা তাদের সহযোগীদের চাঁদে পা রাখার ভাবনাটা বেশ কঠিন৷'' এই সরকার যদি দ্রুততার সাথে এ বিষয়ে এগিয়ে না যায়, তাহলে পরবর্তী সরকার হয়তো আবারও পরিকল্পনার গতিপথ বদলে দিতে পারে বলে মন্তব্য করে আর্স টেকনিকা৷

গত জুনে চাঁদে মানুষ পাঠানোর প্রাথমিক প্রস্তুতির বিষয়ে ঘোষণা দেয় চীন৷

আরএন/ডিজি (এএফপি, ডিপি,এপি)

প্রতিবেদনটি সম্পর্কে আপনার মন্তব্য জানান, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন