চাঁদেও নাকি চাষবাস সম্ভব! | অন্বেষণ | DW | 05.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

চাঁদেও নাকি চাষবাস সম্ভব!

মহাকাশে অথবা চাঁদ ও মঙ্গলগ্রহে দীর্ঘকাল থাকতে হলে খাদ্যের জোগান একটা সমস্যা হতে পারে৷ কিন্তু বিশেষ ধরনের এক কৃষি পদ্ধতি কঠিন পরিস্থিতিতেও তাজা ও স্বাস্থ্যকর খাদ্যের ব্যবস্থা করতে পারে৷

হাইড্রোপনিক্স সম্পর্কে মহাকাশ গবেষকদের আগ্রহের একটা বিশেষ কারণ রয়েছে৷ অত্যন্ত কম উপাদান ব্যবহার করে কৃষিকাজের এ রকম বাস্তবসম্মত পদ্ধতির জুড়ি মেলা ভার৷ এ ক্ষেত্রে গাছের শিকড় শূন্যে ঝোলে৷ শুধু চারাগাছগুলিকে ধরে রাখতে গবেষকদের এক কাঠামো সৃষ্টি করতে হয়েছে৷

গবেষণাগারে সবকিছু গাছের আদর্শ বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রস্তুত করা হয়েছে৷ এমনকি আলোর রংও চারাগাছের বৃদ্ধির জন্য বিশেষভাবে উপযুক্ত৷ শিকড় মাটি থেকে পুষ্টি ও পানি গ্রহণ করতে পারে না৷ তার বদলে প্রতি মিনিটে একবার করে পানি স্বয়ংক্রিয়ভাবে স্প্রে করা হয়৷ ফলে প্রচলিত কৃষিপদ্ধতির তুলনায় ৯০ শতাংশেরও বেশি পানি ও সারের সাশ্রয় ঘটে৷ কোনোকিছুই অব্যবহৃত হিসেবে মাটির নীচে তলিয়ে যায় না৷ জার্মান এয়ারোস্পেস এজেন্সির ডানিয়েল শুবার্ট বলেন, ‘‘গাছ যে পুষ্টি পান করে না, তা আবার ফিরে আসে৷ সেটি আবার নতুন করে সাজিয়ে গাছকে দেওয়া হয়৷ এমনকি গাছের গা থেকে যে পানি বেরিয়ে আসে, সে সবও সংগ্রহ করে গাছকে পান করতে দেওয়া হয়৷ অর্থাৎ যেটুকু পানি এই প্রণালী ত্যাগ করে, তা শুধু তাজা খাদ্য হিসেবে কাজে লাগে৷ বাকি সবকিছু প্রণালীর মধ্যে থেকে যায়৷''

বাস্তবে এই প্রণালী পরীক্ষা করতে   গবেষকরা এক হাইড্রোপনিক্স কনটেনার নির্মাণ করেছেন৷ সেটি এমনকি চাঁদের বুকেও বসানো চলে৷ গবেষকরা সাফল্যের সঙ্গে তার মধ্যে চারাগাছ চাষ করতে পেরেছেন৷ কন্টেনারের মধ্যে লেটুস পাতা, মুলা, টমেটো, শসা বেড়ে ওঠে৷

সেই শাকসবজির স্বাদও বেশ ভালো বলে গবেষকরা দাবি করেন৷ তাছাড়া খেতের তুলনায় গাছ অনেক দ্রুত বেড়ে ওঠে৷ কয়েক সপ্তাহ পরেই তাঁরা প্রথমবার খাদ্য সংগ্রহ করতে পেরেছেন৷ গাছপালা শুধু ভালোভাবে বেড়ে ওঠেনি, সেগুলির মধ্যে অনেক কম রোগ দেখা গেছে৷ তাছাড়া কীটপতঙ্গের মোকাবিলার কোনো প্রয়োজনই পড়েনি৷ ডানিয়েল শুবার্ট বলেন, ‘‘পৃথিবীর বুকে সব সময়ে নানা বায়োলজিকাল প্রক্রিয়া চলতে থাকে৷ ব্যাকটেরিয়া রয়েছে, ছত্রাক রয়েছে৷ গাছপালাকে সবসময়ে এ সব হামলার মোকাবিলা করতে হয়৷ এ ক্ষেত্রে শিকড় মুক্তভাবে ঝুলে থাকায় অনেক নির্মল পরিবেশ পাচ্ছে৷ ফলে গাছের বৃদ্ধিও অনেক ভালোভাবে হচ্ছে৷''

এর ইতিবাচক প্রভাব হলো, গাছপালার সুরক্ষার জন্য গবেষকদের কিছুই করতে হচ্ছে না৷ এই প্রক্রিয়ার আওতায় নীতিগতভাবে মহাকাশচারীরা তাজা ও স্বাস্থ্যকর খাদ্য পেতে পারেন৷ কোনো ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ ছাড়াই সে সব উৎপাদন করা হচ্ছে৷ তাছাড়া এই প্রণালীর নিজস্ব চাহিদা অত্যন্ত কম৷

আরও ছোট আকারেও এই প্রণালী গড়ে তোলা সম্ভব৷ ডানিয়েল শুবার্ট সাধারণ মানুষের জন্যও হাইড্রোপনিক্সের একটি সেট নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করছেন৷ মাত্র ৬০ ইউরো দিয়ে সেটি কেনা যায়৷ তাতে পানির মধ্যেই সব পুষ্টিকর উপাদান ভরে দেওয়া হয়েছে, সবকিছু প্যাকেটেই পাওয়া যায়৷

এলইডি বাতি গাছপালার জন্য আদর্শ আলো নিক্ষেপ করে৷ সূক্ষ্ম নুড়িপাথর গাছকে স্থিতিশীলতা দেয়৷ যে কোনো রান্নাঘরে এমন এক স্বয়ংসম্পূর্ণ ট্রের মধ্যে লতাগুল্ম রাখা চলে৷ জার্মান এয়ারোস্পেস এজেন্সির ডানিয়েল শুবার্ট বলেন, ‘‘বর্তমানে কৃষিক্ষেত্রে প্রায় ৩০ শতাংশ অপচয় ঘটে৷ শুধু গ্রিনহাউস থেকে গ্রাহকের কাছে পরিবহণের সময়ই এমনটা ঘটে৷ আমাদের এই গ্রিনহাউস প্রণালীর মাধ্যমে সেই অপচয় যতটা সম্ভব কম রাখতে সাহায্য করতে পারি৷''

ডানিয়েল শুবার্ট ও তাঁর সহকর্মীরা এর মধ্যে অ্যান্টার্কটিকার চরম শীতল পরিবেশে এক বছরের বেশি সময় ধরে তাঁদের গবেষণাগারে পরীক্ষা চালিয়েছেন৷ সেখানে ২০০ কিলোগ্রামেরও বেশি লেটুস পাতা, শসা ও টমেটো উৎপাদিত হয়েছে৷ অ্যান্টার্কটিকায় যা সম্ভব, তা মহাকাশেও প্রয়োগ করা যাবে বলে গবেষকদের আশা৷

আর্নো ট্র্যুম্পার/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন