চরম মন্দা এড়াতে ব্রাসেলসে ইইউ নেতারা | বিষয় | DW | 17.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইউরোপ

চরম মন্দা এড়াতে ব্রাসেলসে ইইউ নেতারা

ইউরোপে করোনা সংকটের অর্থনৈতিক প্রভাব এড়াতে প্রস্তাবিত কর্মসূচি সম্পর্কে মতবিরোধ কাটছে না৷ চলতি সপ্তাহান্তেও ইইউ নেতারা ব্যর্থ হলে জুলাই মাসে তৃতীয় সম্মেলনে তাঁদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হবে৷

করোনা সংকটের কারণে বেশ কয়েক মাস ধরে ভারচুয়াল স্তরে আলোচনার পর ইউরোপীয় ইউনিয়নের শীর্ষ নেতারা আবার সশরীরে মিলিত হচ্ছেন৷ শুক্রবার ব্রাসেলসে ২৭-টি সদস্য দেশের সরকার প্রধান এক গুরুত্বপূর্ণ সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন৷ করোনা সংকটে বিপর্যস্ত ইউরোপের অর্থনীতিকেচাঙ্গা করতে প্রায় ৭৫,০০০ কোটি ইউরো অঙ্কের প্রস্তাবিত কর্মসূচি সম্পর্কে এখনো তাঁরা ঐকমত্যে আসতে পারেননি৷ শুক্রবার দ্বিতীয় প্রচেষ্টা সফল করার জন্য শীর্ষ নেতাদের উপর চাপ বাড়ছে৷

ইইউ নেতারা কঠিন পরিস্থিতির মুখে পড়েছেন৷ এই রাষ্ট্রজোট গঠিত হবার পর এত বড় মন্দার আশঙ্কা দেখা যায়নি৷ সেই বিপদ এড়াতে ইউরোপীয় স্তরে জোরালো উদ্যোগ সম্পর্কেও তাঁদের মধ্যে কোনো মতভেদ নেই৷ কিন্তু খুঁটিনাটী বিষয় নিয়ে তাঁদের মধ্যে মতবিরোধ কাটছে না৷ তহবিলের অঙ্ক থেকে শুরু করে দীর্ঘমেয়াদী ইইউ বাজেটের মধ্যে সেই পুনরুদ্ধার কর্মসূচি অন্তর্গত করার প্রশ্নে ঐকমত্য অর্জন করা যাচ্ছে না৷ ঋণভার ভাগ করে নেবার বিষয়ে নীতিগতভাবে মৌলিক পার্থক্য থেকে গেছে৷

এই অবস্থায় আপোশ প্রস্তাব হিসেবে ৭৫,০০০ কোটি ইউরো দুই ভাগে ভাগ করার প্রস্তাব এনেছেন ইইউ সরকার পরিষদের প্রধান শার্ল মিশেল৷ ৫০,০০০ কোটি ইউরো ঋণ এবং ২৫,০০০ কোটি ইউরো অনুদান হিসেবে বণ্টনের মাধ্যমে সংশয় দূর করার চেষ্টা চালাচ্ছেন তিনি৷ বিশেষ করে ‘ফ্রুগাল ফোর' বলে পরিচিত নেদারল্যান্ডস, অস্ট্রিয়া, সুইডেন ও ডেনমার্ক অনুদানের অঙ্ক যতটা সম্ভব কম রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে৷ দীর্ঘমেয়াদী ইইউ বাজেটের অঙ্কও সামান্য কমানোর প্রস্তাব দিয়েছেন মিশেল৷

শনিবারের মধ্যে ইইউ নেতারা পুনরুদ্ধার কর্মসূচি সম্পর্কে ঐকমত্যে পৌঁছবেন, এমন সম্ভাবনা উজ্জ্বল হওয়া সত্ত্বেও নতুন করে ব্যর্থতার আশঙ্কাও উড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে না৷ সম্মেলন রবিবার পর্যন্তও গড়াতে পারে৷ তাতেও লাভ না হলে চলতি মাসেই তৃতীয় প্রচেষ্টার পরিকল্পনা রাখা হয়েছে৷ তখন গ্রীষ্মকালীন বিরতির আগে ইইউ নেতারা আরেকটি সম্মেলনে এই প্রস্তাব অনুমোদন করতে পারেন৷

ঐকমত্য অর্জনের ক্ষেত্রে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলর বিশেষ ভূমিকা প্রত্যাশা করা হচ্ছে৷ চলতি বছরের দ্বিতীয়ার্ধে জার্মানি ইইউ সভাপতির দায়িত্ব পালন করছে৷ শুক্রবারই ম্যার্কেল ৬৬ বছরের জন্মদিন পালন করছেন৷ করোনা সংকটের সময়ে তাঁর নেতৃত্বের ফলে দেশে-বিদেশে তাঁর ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে৷ ম্যার্কেল ‘ফ্রুগাল ফোর' গোষ্ঠীর উপর প্রভাব বিস্তার করতে তাদের সম্মতি আদায় করতে পারবেন, অনেক নেতা এমন আশা করছেন৷

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, এএফপি)

সংশ্লিষ্ট বিষয়