ঘোড়ায় চেপে সমুদ্রে চিংড়ি ধরার বিরল পেশা | অন্বেষণ | DW | 03.03.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

ঘোড়ায় চেপে সমুদ্রে চিংড়ি ধরার বিরল পেশা

সমুদ্রসৈকতে জেলেদের কার্যকলাপ পর্যটকদের আকর্ষণ করে৷ বেলজিয়ামের এক শহরে সেই কাজের আকর্ষণই আলাদা৷ ইউনেস্কোর স্বীকৃতির দৌলতে নারীরাও অসাধারণ দক্ষতা আয়ত্ত করে আসরে নামছেন৷

BdTD Palästina | Sonnenuntergang am Strand von Gaza

প্রতীকী ছবি

শুধু বেলজিয়ামের অস্টডেনক্যার্কে শহরের সৈকতেই ৫০০ বছর আগের মতো মাছ ধরা হয়৷ ঘোড়ায় চেপে চিংড়ি ধরার রোমাঞ্চই আলাদা৷ ভোরেই নেলে বেকার্ট ও তাঁর ঘোড়া আক্সেল কাজ শুরু করে৷ তিনি গোটা বিশ্বের প্রথম স্বীকৃত নারী ঘোড়সওয়ার জেলে৷ ২০১৩ সালে ইউনেস্কো আদিকালের এই পেশাকে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তালিকায় স্থান দিয়েছে৷ তবে পুরুষ ও নারী সবার জন্য সেই সুযোগ ছিল এই স্বীকৃতির পূর্বশর্ত৷ নেলে বলেন, ‘‘সত্যি অসাধারণ অভিজ্ঞতা! একটি প্রাণীর পিঠে চড়ে সমুদ্রের উপর দিয়ে যাবার সময় সেটির পুরো শক্তি টের পাওয়া যায়৷ সমুদ্রের দিকে তাকালে সবকিছু কত শান্ত লাগে৷''

এমন বিরল পেশা গ্রহণের সুযোগ সম্পর্কে নেলে বলেন, ‘‘ইউনেস্কোর স্বীকৃতির কারণেই আমি ঘোড়সওয়ার জেলে হতে পেরেছি৷ তার আগে এ ক্ষেত্রে  পুরুষদের একচেটিয়া আধিপত্য ছিলো৷ আমাকে দ্বিগুণ পরিশ্রম করে যোগ্যতার প্রমাণ দিতে হয়েছে৷ কিন্তু আমি সফল হয়েছি৷ এখন তারা আমাকে পুরোপুরি মেনে নিয়েছে৷''

নেলে বেকার্ট-কে দুই বছর শিক্ষানবিস হিসেবে কাজ এবং বেশ কয়েকটি পরীক্ষা পাশ করতে হয়েছে৷ তিন সন্তানের মা হিসেবে তিনি এক বৃদ্ধাবাসে কাজ করেন৷ সেটাই তাঁর উপার্জনের মূল উৎস৷ অবসর সময়ে ভাটার দুই ঘণ্টা আগে সৈকত তাঁকে টানে৷

প্রায় আধ ঘণ্টা পর নেলে ও তাঁর সহকর্মী কাটরিন টেরেন প্রথম বার জাল তুললেন৷ দুজনেই দেখতে চান, কত পরিমাণ ধরা পড়েছে৷ এ দিন জালে তেমন বেশি মাছ ওঠে নি৷ কিন্তু পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে জায়গাটির বেশ লাভ হচ্ছে৷ ঘোড়সওয়ার জেলেদের আকর্ষণে অনেক মানুষ সেখানে আসেন৷

সমুদ্রে অভিনব উপায়ে চিংড়ি ধরা

আজ শহরের ১৭ জন জেলে এই পেশা ধরে রেখেছেন৷ অতীতেও নারী-পুরুষ একসঙ্গেই সেই কাজ করতো৷ স্টেফান হানকে বলেন, ‘‘অনেককাল আগে, যখন ছোট গাধায় চেপে মাছ ধরা হতো, তখন নারীরাই সেই কাজ বেশি করতো৷ পুরুষরা নৌকা নিয়ে সমুদ্রে যেত৷ শিশুদের মানুষ করতে নারীদের কিছু বাড়তি আয় হতো৷''

কাটরিন ও তাঁর সঙ্গীর খামারে মাছ বাছাইয়ের কাজ চলে৷ তারপর ঘোড়াও দেখাশোনা করতে হয়৷ বিরল প্রজাতির এই ঘোড়া সংরক্ষণের ক্ষেত্রেও মাছ ধরার পেশা সহায়ক হচ্ছে৷ কাটরিন বলেন, ‘‘আমি একটা পরিবর্তন লক্ষ্য করছি৷ ঐতিহ্যের প্রতি মানুষের আগ্রহ রয়েছে৷ অবশ্যই সবার নেই৷ কিছু মানুষ সবকিছু আরও আধুনিক দেখতে চান৷ আরও ভালো কম্পিউটার, আরও দ্রুতগতির ইন্টারনেট, সবকিছু ডিজিটাল চান৷ অনেকে আবার অতীতের অভিজ্ঞতার স্বাদ পেতে চান৷''

ঘোড়ায় চেপে মাছ ধরার আদিকালের পেশা চিংড়ি শিকারের অত্যন্ত টেকসই ও কম ক্ষতিকারক পদ্ধতি৷ দুই নারী ঘোড়সওয়ার জেলের কারণেও সেই পেশা নতুন উদ্দীপনা পাচ্ছে৷

গেয়র্গ মাটেস/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়