ঘরের ভোল বদলে দিচ্ছে হাতে তৈরি ওয়ালপেপার | অন্বেষণ | DW | 26.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ঘরের ভোল বদলে দিচ্ছে হাতে তৈরি ওয়ালপেপার

দেওয়ালে ওয়ালপেপার ঘরের চরিত্রই বদলে দিতে পারে৷ একটি ব্রিটিশ সংস্থা গোটা বিশ্বে তাদের উচ্চ মানের ওয়ালপেপার সরবরাহ করে চলছে৷ হাতে আঁকা অথবা ডিজিটালি প্রিন্টেড সৃষ্টিকর্মের কদর বেড়েই চলেছে৷

তুলির প্রথম টান থেকে শেষ পর্যন্ত যত্নের ছোঁয়া৷ ডে গোরনেই সংস্থায় ওয়ালপেপার অপরূপ সৃষ্টিকর্ম হয়ে ওঠে৷ প্রত্যেকটি রোল হাতে আঁকা৷ ১৯৮৬ সাল থেকে লন্ডনের এই পারিবারিক সংস্থা গোটা বিশ্বে সাফল্যের মুখ দেখছে৷ সংস্থার প্রধান ডিজাইনার জেমা কেভ বলেন, ‘‘চীনের অঙ্কন ঐতিহ্য অনুযায়ী হাতে দু'টি ব্রাশ রাখতে হয়৷ একটি ব্রাশ পিগমেন্ট বা রঙ্গক তুলে নেয়, অন্যটি দ্রুত সেই পিগমেন্ট ওয়ালপেপারের উপর ছড়িয়ে দেয়৷ সেই পদ্ধতির কারণে ঘন থেকে পাতলা রংয়ের এই অসাধারণ পরিবর্তন দেখা যায়৷’’

খুঁটিনাটি নক্সা, নানা রংয়ের সম্ভার৷ ডে গোরনেই সংস্থার বেশিরভাগ সৃষ্টি আসে চীনের শাংহাই শহরের কাছে এক স্টুডিও থেকে৷ রেশম অথবা সোনা লাগানো কাগজের উপর রং করা হয়৷ ঘরে এই সংস্থার ওয়ালপেপার লাগাতে ক্রেতারা ৫ থেকে ২০ হাজার ইউরো ব্যয় করেন৷ কোম্পানির প্রধান হানা সেসিল গোরনেই বলেন, ‘‘হাতে তৈরি কিছু দেখলে খুঁতগুলিও চোখে পড়ে৷ সেটাই তার আসল সৌন্দর্য৷ তুলির টানের চিহ্ন দেখা যায়৷ মানুষের হাতেই যে তৈরি, সেটা স্পষ্ট দেখা যায়৷ ঘরে ঢুকলে সৃষ্টিকর্তা হিসেবে শিল্পীর ভাবাবেগও অনুভব করা যায়৷’’

সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা ক্লোদ সেসিল গোরনেই-এর টাউনহাউসের ভিতরটাও দেখার মতো৷ শিশু বয়সেই তিনি তাঁর বাবা-মার সংগ্রহে থাকা হাতে আঁকা ওয়ালপেপার দেখতে ভালবাসতেন৷ পরে নিজের বাড়ির জন্য সে রকম ওয়ালপেপার নির্মাতা খুঁজে পাননি৷ তখনই নিজস্ব প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার আইডিয়া মাথায় আসে৷ তিনি বলেন, ‘‘এটাকে আসলে ঠিক ওয়ালপেপার বলা ঠিক হবে না৷ বরং ট্যাপেস্ট্রি বা মিউরাল বা সে রকম কিছু বলা উচিত৷ যেখানে বাইরে বের হলেই মোটর গাড়ি, চিমনি, ধুলা, বালি, নোংরা ও দূষণ দেখা যায়, সেখানে বাড়ির ভিতর সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি করে এই আবরণ৷ সত্যি খুবই সুন্দর৷’’

হাতে তৈরি এমন বস্তু কেনার সামর্থ্য সবার না থাকলেও ইন্টিরিয়র ডিজাইনারদের কাছে ওয়ালপেপার অত্যন্ত জরুরি উপকরণ হয়ে উঠেছে৷ যেমন মাউরিৎসিও পেলিৎসোনি মনে করেন, ‘‘ওয়ালপেপার দৈনন্দিন ব্যবহারের উপযোগী হয়ে উঠছে৷ আরও বেশি গ্রাহক ওয়ালপেপার লাগাতে চাইছেন৷’’

এর মধ্যে অসংখ্য সংস্থা নানা ডিজাইন বাজারে এনেছে৷ প্রায়ই ডিজিটাল প্রক্রিয়ায় সেগুলি প্রিন্ট করা হয়৷ ফলে দাম মোটামুটি আয়ত্তের মধ্যেই থাকে৷ ওয়ালপেপারের ডিজাইনের ক্ষেত্রেও কিছু প্রবণতা দেখা যাচ্ছে৷ যেমন ফুলের ডিজাইন ফ্যাশন ব়্যাম্প থেকে বাড়িঘরেও স্থান পাচ্ছে৷ মাউরিৎসিও পেলিৎসোনি বলেন, ‘‘গত বছর সবুজ গাছপালার বড় প্রবণতা দেখা গেছে৷ ওয়ালপেপার ছিল লতাপাতায় ভরা৷ নতুন বছরে আলট্রাভায়োলেট বা অতি-বেগুনি রং প্রাধান্য পাচ্ছে৷ প্রবণতা সেদিকেই যাচ্ছে৷ এটি খুবই সুন্দর ও শক্তিশালী রং৷’’

গোরনেই কোম্পানির কাছে প্রবণতা তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়৷ ক্রেতাদের নির্দিষ্ট চাহিদাকেই এই সংস্থা বেশি গুরুত্ব দেয়৷ বছরের শেষে লন্ডন, প্যারিস, নিউ ইয়র্ক, সান ফ্রানসিস্কো, মস্কো, শাংহাই ও বেইজিং শহরে কোম্পানির শোরুমে চরম ব্যস্ততার ছাপ দেখা যায়৷ সংস্থার প্রধান কর্ণধার হানা সেসিল গোরনেই বলেন, ‘‘নতুন বছরে মানুষ বেশ যোশ অনুভব করছেন৷ তারা একেবারে নতুন আইডিয়া নিয়ে তাঁরা আমাদের কাছে এসেছেন৷ বলেছেন, গতানুগতিক নক্সা ছেড়ে তাঁরা নতুন বছরে বেশ চমকপ্রদ কিছু চাইছেন৷’’

সংস্থা নিয়মিত বিখ্যাত ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে কাজ করে৷ যেমন ২০১৭ সালে ব্রিটিশ সুপারমডেল কেট মস ‘অ্যানিমোনস অফ লাইট’ নামের সংগ্রহ তুলে ধরেন৷ প্রত্যেক রোলের দাম ১,৩৫০ ইউরো৷ কিন্তু বাসা বদল করলে দামি ওয়ালপেপারের কী দশা হয়? হানা সেসিল গোরনেই বলেন, ‘‘রেশমের বুনন অত্যন্ত শক্ত৷ ফলে নীচ থেকে সিল্ক ছাড়িয়ে নেওয়া যায়৷ আমাদের কাছে সেটা পাঠালে আমরা তার পেছনে নতুন কাগজ বসাতে পারি৷ নতুন বাড়িতেও অনায়াসে সেই ওয়ালপেপার লাগাতে পারেন৷’’

তবে উচ্চ মানের ওয়ালপেপার অত সহজে বদলানো যায় না৷ হাতে আঁকা ওয়ালপেপারের জন্য প্রায় তিন মাস অপেক্ষা করতে হয়৷

মাল্টে রোভেয়ার-কালমান/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন