ঘরেই নিরাপদ নয় নারী | বিশ্ব | DW | 08.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

ঘরেই নিরাপদ নয় নারী

বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন বা নারীর উন্নয়ন নিয়ে অনেক কথা হয়৷ সুখবরও আছে অনেক৷ কিন্তু বিপরীত চিত্রটি আরো ভয়াবহ৷ ঘরে-বাইরে বলতে গেলে সর্বত্রই চলছে নারী নির্যাতন আর নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা৷ বিচার পাওয়ার ক্ষেত্রেও নারী পিছিয়ে৷

default

প্রতীকী ছবি

পরিসংখ্যান ব্যুরোর হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশে বিবাহিত নারীদের শতকরা ৮০ জনই কোনো-না-কোনোভাবে নির্যাতনের শিকার৷ স্বামীদের হাতেই সবচেয়ে বেশি নির্যাতনের শিকার হন তাঁরা৷ কিন্তু কথিত পারিবারিক সম্মান, সন্তান এবং নানা সামাজিক দিক চিন্তা করে তাঁদের অধিকাংশই এই নির্যাতনের কথা প্রকাশ করেন না৷

আর ব্র্যাকের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, নির্যাতনের শিকার নারীদের শতকরা ৮২ ভাগই বিববাহিত নারী৷ অর্থাৎ, বিবাহিত নারীরাই নির্যাতনের শিকার হন বেশি৷ নারী নির্যাতনের মধ্যে হত্যা, ধর্ষণ, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, শারীরিক নির্যাতন অন্যতম৷ শারীরিক নির্যাতনের হার শতকরা ৬১ ভাগ৷ ২০১৭ সালে নারী নির্যাতনের ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে৷ নারী নির্যাতনকারী হিসেবে পরিবারের সদস্যরাই সবচেয়ে বেশি এগিয়ে৷ পরিবারের সদস্যদের হাতেই শতকরা ৭৭ ভাগ নারী নির্যাতনের শিকার হন৷

ব্র্যাকের গবেষণায় আরো বলা হয়েছে প্রায় ৬৬ শতাংশ নারী দেশের ৪১ থেকে ৬০ বছরের পুরুষদের সবচেয়ে বেশি যৌন নির্যাতনকারী হিসেবে চিহ্নিত করেছেন৷ তবে গণপরিবহনে বেশি হয়রানি করে ১৯ থেকে ২৫ বছর বয়সি পুরুষ৷

অডিও শুনুন 02:34
এখন লাইভ
02:34 মিনিট

আমাদের পারিবারিক কালচার ও কাঠামো ঘরে নারী নির্যাতনকে উৎসাহিত করে: সুলতানা কামাল

নারীনেত্রী এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক সুলতানা কামাল ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমাদের পারিবারিক কালচার এবং কাঠামো ঘরে নারী নির্যাতনকে উৎসাহিত করে৷ নারীদর পুরুষ কর্তৃত্ব শাসন করার নামে মারধর যেন স্বাভাবিক নিয়ম৷ ভাত রান্না থেকে শুরু করে সন্তান পালন সবক্ষেত্রেই কোনো ব্যত্যয় হলে নারীকে দায়ী করা হয়৷ আমরা ২০১০ সাল পর্যন্ত ডমেস্টিক ভায়োলেন্সকে অপরাধ হিসেবেই আইনি প্রক্রিয়ার মধ্যে আনতে পারিনি৷ তখন বলা হতো, এটা পরিবারের নিজস্ব ব্যাপার৷’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘আরো একটি ব্যাপার ঘটেছে, তা হলো, পরিবর্তনের কারণে নারী এখন ঘরে অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হচ্ছে৷ এই প্রতিবাদ মেনে নিতে পারছে না পুরুষ৷ ফলে ঘরে নির্যাতন আরো বেড়ে যাচ্ছে৷’’

তবে বাইরেও নারী নিরাপদ নয়৷ বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির তথ্যমতে, সারা দেশে গত ১৩ মাসে গণপরিবহনে ২১ নারী ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন৷ যাত্রী কল্যাণ সমিতি বলছে, গত ১৩ মাসে বাস চালক-হেলপার ও তাদের সহযোগীরা ৯টি সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, ৮টি ধর্ষণ ও ৪টি যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটিয়েছে৷ এসব ঘটনায় ৫৫ জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে৷

আর ‘এস্টেট অব রাইটস ইমপ্লিমেন্টেশন অব ওম্যান রেডিমেড গার্মেন্টস ওয়াকার্স’ শিরোনামে এক গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশের তৈরি পোশাক কারখানায় কর্মরত নারী শ্রমিকদের শতকরা প্রায় ১৩ ভাগ যৌন হয়রানির শিকার৷ শারীরিক নির্যাতনের শিকার ২০ ভাগ৷ নারী শ্রমিকদের ৮৪ দশমিক ৭ ভাগ মৌখিক হয়রানির শিকার হন৷ ৭১ দশমিক ৩ ভাগ শিকার হন মানসিক নির্যাতনের৷ আর এই নির্যাতনের কাজে শীর্ষে রয়েছেন সুপারভাইজাররা৷

অডিও শুনুন 01:13
এখন লাইভ
01:13 মিনিট

আসলে সমস্যা হচ্ছে নারীর কর্তৃত্ব না থাকা: শিরিন আক্তার

বাংলাদেশে রপ্তানি আয়ের ৮০ ভাগেরও বেশি আসে তৈরি পোশাক খাত থেকে৷ আর এই খাত মূলত টিকে আছে নারী কর্মীদের ওপরই৷ এছাড়া বাংলাদেশে বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে নারীদের হয়রানি এবং যৌন হয়রানির অভিযোগ পাওয়া যায় নিয়মিত৷ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও এক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই৷

নির্যাতনের বড় একটি কারণ হিসেবে বাল্য বিবাহকেও চিহ্নিত করা হয়৷ বাংলাদেশের নতুন আইনে আইনগতভাবেই ‘বিশেষ পরিস্থিতি’ বিরচেনায় ১৮ বছরের  কম বয়সি মেয়েদের বিয়েকেও বৈধতা দেয়া হয়েছে৷ আর ইউনিসেফের সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, সারাবিশ্বে বাল্যবিবাহের হার কমলেও বাংলাদেশে শতকরা ৫২ ভাগ থেকে বেড়ে ৫৯ ভাগ হয়েছে৷

বাংলাদেশে নারী নির্যাতনের ঘটনায় যাঁরা সাহস করে মামলা করেন তাঁরাও বিচার পান না৷ শতকরা ৯৭ ভাগ মামলায়ই আসামিরা সাজা পান না৷

সংসদ সদস্য এবং নারী নেত্রী শিরিন আক্তার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আসলে সমস্যা হচ্ছে নারীর কর্তৃত্ব না থাকা৷ যে নারী নির্যাতন করে সে পুরুষ৷ আইন যে করে সে পুরুষ৷ বিচার যে করে সে-ও পুরুষ৷ ফলে নির্যাতনের বিচার হয় না৷ নারীর ক্ষমতায়ন এবং সমাজের সবক্ষেত্রে তাঁদের প্রতিনিধিত্ব সমান করা প্রয়োজন৷’’

তিনি বলেন, ‘‘কর্মক্ষেত্রে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ নেয়ার জন্য সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশ থাকলেও  তা কার্যকর হচ্ছে না৷ নারী অভিযোগ করতে গিয়ে উল্টো হয়রানির মুখে পড়ছে৷ আইন আছে৷ কিন্তু তা বাস্তবায়নেই সমস্যা৷ যাঁরা বাস্তবায়ন করেন, তাঁদের মধ্যেই সমস্য৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন