গ্রেটা বললেন, কী সাহস আপনাদের! | বিশ্ব | DW | 24.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জলবায়ু পরিবর্তন

গ্রেটা বললেন, কী সাহস আপনাদের!

জাতিসংঘের জলবায়ু সংক্রান্ত শীর্ষ সম্মেলনে গ্রেটা টুনব্যার্গের ভাষণ আলোড়ন তুলেছে৷ ৭৭টি দেশ স্পষ্ট লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছে৷ জার্মান চ্যান্সেলর ম্যার্কেল তাঁর ভাষণে জার্মানির পদক্ষেপ তুলে ধরেন৷

জলবায়ু পরিবর্তনের মারাত্মক প্রভাব নিয়ে প্রায় সবার মনে সংশয় কেটে গেলেও সরকারি পর্যায়ে তার মোকাবিলা করার যথেষ্ট উদ্যোগ এখনো দেখা যাচ্ছে না৷ চুক্তি, ঘোষণাপত্র, সদিচ্ছার মতো আনুষ্ঠানিকতার মধ্যেই গোটা প্রক্রিয়া থমকে রয়েছে৷ অনেক রাজনৈতিক নেতা অর্থনৈতিক স্বার্থের দোহাই দিয়েও পরিবেশ সংরক্ষণের গুরুত্ব কমিয়ে দেখাচ্ছেন৷ ঠিক এই মনোভাবের বিরুদ্ধেই আবার গর্জে উঠলেন সুইডেনের কিশোরী গ্রেটা টুনব্যার্গ৷ মোট ১৫ জন তরুণ জলবায়ু অ্যাকটিভিস্ট তাঁদের বক্তব্য রাখেন৷

সোমবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের জলবায়ু সংক্রান্ত শীর্ষ সম্মেলনে আবেগভরা ভাষণ দেন টুনব্যার্গ৷ বিশ্বনেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘‘আমরাবিশাল মাত্রায় বিলুপ্তির পথে চলতে শুরু করেছি৷ আর আপনারা শুধু টাকাপয়সা আর অনন্তকাল ধরে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির রূপকথার কাহিনি শুনিয়ে চলেছেন৷ কী সাহস আপনাদের!'' রাজনৈতিক নেতাদের ব্যর্থতার অভিযোগ করে গ্রেটা আরও বলেন, ‘‘আমাদের কাছে আপনারা ব্যর্থ হচ্ছেন৷ কিন্তু তরুণ প্রজন্ম আপনাদের বিশ্বাসঘাতকতা বুঝতে পারছে৷''

উপস্থিত রাজনৈতিক ও শিল্পজগতের নেতারা গ্রেটা টুনব্যার্গের আবেগময় ভাষণ শুনে জলবায়ু পরিবর্তনের মোকাবিলা করতে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেবেন কিনা, তা এখনো স্পষ্ট নয়৷ বিশেষ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যেভাবে বৈশ্বিক উষ্ণায়ন প্রক্রিয়ায় মানুষের ভূমিকা মানতে অস্বীকার করে চলেছেন, তার ফলে প্যারিস চুক্তি রূপায়নের উদ্যোগ ধাক্কা খাচ্ছে৷ সোমবার ট্রাম্প কোনো ঘোষণা ছাড়াই ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে সঙ্গে নিয়ে কিছু সময়ের জন্য সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছিলেন৷ তিনি জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভাষণের অংশবিশেষ শোনেন৷ জলবায়ু সম্মেলন সম্পর্কে আগ্রহ দেখিয়ে ট্রাম্প বলেন, তিনি পরিষ্কার বাতাস ও পরিষ্কার পানিতে বিশ্বাস করেন৷

জার্মান চ্যান্সেলর ম্যার্কেল তাঁর ভাষণে বলেন, মানুষের কারণেই যে জলবায়ু পরিবর্তন ঘটছে, সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷ তাঁর মতে, আন্তর্জাতিক সমাজকে গোটা বিশ্বের বিজ্ঞানী ও তরুণতরুণীদের বার্তা শোনা উচিত৷ তিনি এ প্রসঙ্গে জার্মান সরকারের সাম্প্রতিক পদক্ষেপগুলি তুলে ধরেন৷ এর আওতায় ২০২৮ সালের মধ্যে কয়লার ব্যবহার বন্ধ করার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করা হয়েছে৷ জার্মানি এছাড়া ‘সবুজ জলবায়ু তহবিল'-এ ১৫০ কোটি মার্কিন ডলার চাঁদা দেবে বলে জানিয়েছে৷ অপেক্ষাকৃত দরিদ্র দেশগুলিকে জলবায়ু পরিবর্তনের কুপ্রভাব মোকাবিলা করতে সাহায্য করতে এই তহবিল সৃষ্টি করা হয়েছে৷

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিয়ো গুতেরেস সম্মেলনের ফলাফল সম্পর্কে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন৷ তিনি আগেই বিশ্বনেতাদের উদ্দেশ্যে ‘সুন্দর ভাষণের বদলে স্পষ্ট পদক্ষেপ' ঘোষণার আহ্বান করেছিলেন৷ গুতেরেস বলেন, শিল্পোন্নত বিশ্বের কয়েকটি দেশ সহ মোট ৭৭টি দেশ ২০৫০ সালের মধ্যে কার্বন নির্গমন সম্পূর্ণ বন্ধ করতে স্পষ্ট উদ্যোগের অঙ্গীকার করেছে৷

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন