গোপনে সিরিয়ায় কাজ করছেন জার্মানি প্রবাসী চিকিৎসকরা | জার্মানি ইউরোপ | DW | 13.06.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

গোপনে সিরিয়ায় কাজ করছেন জার্মানি প্রবাসী চিকিৎসকরা

গোপন সেলারে অ্যানাস্থেশিয়া ছাড়াই অপারেশন, নেই পর্যাপ্ত ওষুধপত্র ও স্বাস্থ্যকর্মী৷ ঝুঁকি সত্ত্বেও যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় মানুষকে সহায়তা করতে এগিয়ে এসেছেন জার্মানি-প্রবাসী সিরীয় ডাক্তাররা৷

‘‘ব্যথার ওষুধটা যখন শেষ হয়ে গেল, রোগী তখন যন্ত্রণায় কাতরাতে শুরু করলেন৷ কিন্তু সেলারের ধূসর আলোতেই আমরা অপারেশন চালিয়ে যেতে লাগলাম৷'' নীচুস্বরে বললেন ডা.ওমর৷ ‘‘আমাদের কোনো উপায় ছিল না৷ নয়তো মানুষটি রক্তপাত হতে হতেই মারা যেতো৷ গ্রেনেডের টুকরা লেগে তার পেট ছিন্নভিন্ন হয়ে গিয়েছিল৷'' সিরিয়া থেকে জার্মানিতে ফিরে আসার অনেক দিন পরও এই দুঃস্বপ্ন কাটেনি ডা. ওমরের৷

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চিকিত্সাসেবা

তাঁর আসল নাম অবশ্য ওমর নয়৷ সিরীয় এই চিকিত্সক জার্মানির একটি ক্লিনিকে কাজ করেন৷ মা বাবা ভাই বোন রয়েছেন সিরিয়ার আলেপ্পো শহরে৷ তাদের কোনো বিপদ ঘটতে পারে, এই আশঙ্কায় নিজের নামটি গোপন রাখতে চান তিনি৷

ফেসবুকে সিরিয়ার উত্তরে পাহাড়ি অঞ্চলের এক গ্রামে অপারেশনের জন্য একজন অভিজ্ঞ শৈল্যচিকিৎসক খোঁজা হচ্ছিল হন্যে হয়ে৷ আর সেই ডাকে সাড়া দিয়ে এক শীতের রাতে তুরস্কের সীমানা পার হয়ে সিরিয়া ঢুকে পড়েন ওমর৷ তাঁকে সাহায্য করেছেন জার্মানি ও ফ্রান্সে বসবাসকারী সিরীয় ডাক্তাররা৷ যাঁরা একটি নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছেন৷ সবাই মিলে ওষুধপত্র ও ডাক্তারি যন্ত্রপাতি সংগ্রহ করে শত বিপদ সত্ত্বেও সীমানা পার হয়ে সিরিয়ায় পৌঁছে দেন৷

Aleppo Anschlag chemische Waffen

প্রবাসজীবনের নিরাপত্তা ছেড়ে সিরীয় চিকিৎকরা কাজ করছেন যু্দ্ধবিধ্বস্ত দেশে

সেলারে ক্লিনিক

ডা. ওমর যে এক সপ্তাহ ধরে বোমায় বিধ্বস্ত বিভিন্ন বাড়িঘরে ও সেলারে রোগীদের চিকিৎসা করেছেন, তা জানাজানি হলে পরিবারের জন্য বিরাট বিপদ হতো৷ কয়েক সপ্তাহ আগে তাঁর এক চিকিত্সক বন্ধুকে আলেপ্পোতে খুন করা হয়৷

ওমর জানান, পুলিশ তাঁর ডাক্তারখানায় এসে সরাসরি তাঁকে গুলি করে৷ তিনি আলেপ্পোর নিরাপত্তা কর্মীদের সঙ্গে একসাথে কাজ করতে অস্বীকার করেছিলেন৷

জার্মানির ‘ডক্টরস উইদাউট বর্ডার্স'-এর প্রধান টাংকরেড স্ট্যোবে বলেন, ‘‘সিরিয়ায় হাসপাতাল ও অ্যাম্বুলেন্সগুলিকে সুপরিকল্পিতভাবে লক্ষ্য করে গুলি করা হয়৷ প্রায় ৬০ শতাংশ হাসপাতাল ও ৮০ শতাংশ রোগী পরিবহনকারী যান বিদ্রোহী ও সিরীয় সেনাবাহিনীর যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ এতেই বোঝা যায়, এ সব ইচ্ছাকৃতভাবেই ঘটানো হয়েছে৷''

এই আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থাটি সিরিয়ায় পাঁচটি ক্লিনিকে চিকিত্সা দিচ্ছে৷ সবগুলিই বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে অবস্থিত৷ সরকার নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে যাওয়ার অনুমোদন তারা পায়নি৷

গোপনে চিকিৎসা

জার্মানির ‘ডক্টরস উইদাউট বর্ডার্স'-এর টিমটিকে রাতে গোপনে তুরস্কের সীমানা পার হতে হয়৷ মাঝে মাঝেই গাড়ি বদলাতে হয়৷ অপারেশনের টেবিল থেকে শুরু করে ব্যান্ডেজ, ওষুধপত্র সবই সাথে নিতে হয়৷

সিরিয়ার ওষুধপত্র উত্পাদন স্থবির হয়ে পড়েছে৷ অভাব দেখা দিয়েছে ব্যান্ডেজ সামগ্রীর৷ অনেক ডাক্তার ও নার্স পালিয়ে গেছেন৷ বাচ্চাদের টিকা দেওয়া হচ্ছে না৷

অনেক আহত ব্যক্তি রক্তপাত হতে হতে মারা গেছে৷ কেননা গ্রেনেড ও গোলাগুলির আঘাত হলে প্রতিটি মিনিটই গুরুত্বপূর্ণ৷ সাথে সাথে অপারেশন করা না গেলে জীবন বাঁচানো অসম্ভব হয়ে পড়ে৷

রোগীরা স্ট্যোবে-র ক্লিনিকে রাতে আসেন৷ অনেককে ছোট গাড়িতে বাতি নিভিয়ে আনা হয়৷ কেউ কেউ আবার হেঁটেও আসেন৷ উত্তর সিরিয়ার যাতায়াত ব্যবস্থা প্রায় ধ্বংস হয়ে গিয়েছে৷ অনেক রাস্তাঘাট মাইন ও গ্রেনেডের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে৷ ব্যারিকেড দেওয়ায় গ্রামগুলি বড় বড় শহর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে৷ বিধ্বস্ত বাড়িঘরের গোপন স্থানে খোলা ক্লিনিকগুলিই অনেক মানুষের চিকিত্সা নেওয়ার একমাত্র পথ৷ ‘‘আসলে এইগুলিকে ক্লিনিক না বলে সেলারের একটি ঘর বলাই ভাল৷'' বলেন ডা. ওমর৷ বিদ্যুৎ মাঝে মাঝেই থাকে না৷ প্রায়ই তাঁকে টর্চের আলোতে অপারেশন করতে হয়৷

অপ্রতুল সাহায্য

ডা. ওমরকে ডাক্তারির ছাত্র ও নার্সদের নিয়ে কাজ করতে হয়েছে৷ যাদের চিকিত্সা ক্ষেত্রে সেরকম কোনো প্রস্তুতি নেই৷ প্রতি রাতেই বোমায় আহত অনেক মানুষ, সন্তানসম্ভবা নারী কিংবা হাঁপানির রোগীরা চিকিত্সার আশায় তাঁদের কাছে আসতেন৷ কিন্তু কিছুদিন পরই তুরস্কে কেনা ওষুধপত্র শেষ হয়ে যায়৷ ওমর জানান, ‘‘আমাদের চিকিত্সার যন্ত্রপাতি খুব কমই ছিল৷ অনেক কিছু জীবাণুমুক্ত করার জন্য আমরা ওভেনে গরম করতাম, এমনকি রক্তপাত বন্ধ করার জন্য রক্তনালীতে চুলের ক্লিপ দিয়ে আটকাতে হয়েছে৷'' করুণ হাসি দিয়ে তাঁর অবস্থাটা বর্ণনা করেন ডা. ওমর৷ কেনো প্রস্তুতি ছাড়াই সিরিয়ায় গিয়েছিলেন তিনি৷ অবস্থা যে এতটা খারাপ তা তাঁর জানা ছিল না. অল্পের জন্য বোমার আঘাত থেকে বেঁচে গিয়েছেন তিনি৷ তাঁর ভাষায় ‘‘মৃত্যু থেকে মাত্র ২০ সেকেন্ডের ব্যবধান৷'' পরের দিনই তুরস্ক হয়ে জার্মানিতে রওনা হয়ে যান তিনি৷

বিবেকের তাড়া

একটি ছয় বছরের মেয়ের চেহারা ভেসে ওঠে তাঁর মনে৷ যন্ত্রপাতির অভাবে যার পা-টাকে রক্ষা করা যায়নি, কেটে ফেলতে হয়েছে৷ যন্ত্রণাকাতর সেই মানুষটির কান্নাও ভুলতে পারেন না ওমর, যার জন্য যথেষ্ট ব্যথার ওষুধ ছিল না৷

গ্রীষ্মে তাঁর আরো এক সপ্তাহ ছুটি আছে৷ সেই ছুটিতে আবার সিরিয়ায় যাওয়ার ইচ্ছা আছে তাঁর৷ কিন্তু স্ত্রী কান্নাকাটি করেন, কাকুতিমিনতি করেন সেই বিপজ্জনক অঞ্চলে আবার না যেতে৷ পরিবার ও দুই ছেলেমেয়ের মুখ চেয়ে জীবনের ঝুঁকি না নিতে৷

ডা.ওমরের নিজেরও ভয় কম নয়৷ তিনি বলেন, ‘‘কিন্তু আমি যদি জার্মানিতে থেকে যাই, তাহলে এমন সব মানুষ মারা যাবে, যাদের আমি বাঁচাতে পারতাম৷ এই সব মানুষের জন্য আমারও তো দায়িত্ব রয়েছে৷ আমি তো ডাক্তার৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন