গোপনে চীন সফর করে গেলেন কিম | বিশ্ব | DW | 28.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

গোপনে চীন সফর করে গেলেন কিম

বাবার মতোই বিমানের বদলে বিলাসবহুল ট্রেনে করে চীন সফর করলেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন৷ দক্ষিণ কোরিয়া ও অ্যামেরিকার সঙ্গে শীর্ষ বৈঠকের প্রস্তুতি হিসেবেই গোপন এই সফরকে গণ্য করা হচ্ছে৷

গত সপ্তাহে রবিবার থেকে বুধবার পর্যন্ত বেইজিং সফর করেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন৷ অথচ কেউ ঘুণাক্ষরেও তা টের পায়নি৷ দেশে ফেরার পথে তাঁর ট্রেনের গতিবিধি দেখে প্রথম আভাস পাওয়া গিয়েছিল৷ তারপর দুই দিন ধরে জল্পনাকল্পনার শেষে পাকা খবর পাওয়া গেল৷

সরকারি সফরের স্বীকৃতি না থাকা সত্ত্বেও উত্তর কোরিয়ার নেতার সফরসূচিতে সরকারি সফরের প্রায় সব লক্ষণই দেখা গেছে৷ গার্ড অফ অনার থেকে শুরু করে তাঁর সম্মানে গ্রেট হল অফ দ্য পিপল-এ বিশেষ ভোজের আয়োজন করা হয়েছিল৷ চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং দিয়াওইউতাই গেস্ট হাউসে কিম জন উনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন৷ সেখানে ১৯৫৯ সালে কিম-এর পিতামহ কিম ইল সুং একটি বৃক্ষরোপণ করেছিলেন৷ সেই গাছটি আজও সেখানে রয়েছে৷ রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেখানো দৃশ্যে শি ও কিমের মধ্যে উষ্ণ সম্পর্ক লক্ষ্য করা গেছে৷ দুই নেতার স্ত্রীদের মধ্যেও সেই রসায়ন দেখা গেছে৷

উত্তর কোরিয়ার নেতা দেশে ফিরে যাবার পর মুখ খোলে চীনা নেতৃত্ব৷ সে দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক বজায় রাখতে চীন বদ্ধপরিকর৷ উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে জাতিসংঘের একাধিক নিষেধাজ্ঞার প্রতি সমর্থন সত্ত্বেও চীন সে দেশের সঙ্গ ছাড়েনি৷ কোরীয় উপদ্বীপে উত্তেজনা কমাতে চীন জোরালো উদ্যোগ নিচ্ছে৷ কিমের সফরের পর চীনা নেতৃত্ব সরাসরি মার্কিন প্রশাসনকে সে বিষয়ে জানিয়েছে এবং প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জন্য কিমের ব্যক্তিগত বার্তা হাতে তুলে দিয়েছে৷ বৃহস্পতিবার চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা দক্ষিণ কোরিয়া গিয়ে সে দেশের নেতৃত্বকে এই সফর সম্পর্কে জানাবেন৷

কিম চীনা নেতৃত্বকে বলেছেন, তিনি পরমাণু নিরস্ত্রিকরণ ও মার্কিন প্রতিনিধিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে প্রস্তুত৷ উত্তর কোরিয়ার সরকারি সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ সর্বোচ্চ নেতার চীন সফরের খবর দিলেও পরমাণু অস্ত্র বর্জনের অঙ্গীকারের কোনো উল্লেখ করেনি৷ চীন অবশ্য কিম জং উনের একটি দীর্ঘ বিবৃতি প্রকাশ করেছে৷ তাতে বলা হয়েছে, উত্তেজনা কমাতে এবং শান্তি আলোচনার ক্ষেত্রে উত্তর কোরিয়ার উদ্যোগের ফলেই কোরীয় উপদ্বীপে পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে৷ কিম বংশের অতীত দুই নেতাও কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্র মুক্ত করতে চেয়েছিলেন বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে৷ কিম বলেছেন, দক্ষিণ কোরিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই উদ্যোগে ইতিবাচক সাড়া দিয়ে শান্তি ও স্থিতিশীলতার পরিবেশ সৃষ্টি করলে সেটা সম্ভব হবে৷

২০১১ সালে ক্ষমতায় আসার পর কিম জং উন প্রকাশ্যে এই প্রথম দেশের বাইরে গেলেন৷ সম্ভবত দক্ষিণ কোরিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে শীর্ষ বৈঠকের প্রস্তুতি নিতেই তিনি চীনের নেতৃত্বের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন বলে অনেক রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মনে করছেন৷ উল্লেখ্য, বর্তমান পরিকল্পনা অনুযায়ী আগামী মে মাসে কিম ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সরাসরি সাক্ষাৎ করতে চলেছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়