গৃহহীনদের জন্য ছাত্রদের চিকিত্সাসেবা | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 10.03.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞান পরিবেশ

গৃহহীনদের জন্য ছাত্রদের চিকিত্সাসেবা

জার্মানিতে ডাক্তারের ফি, ওষুধ ইত্যাদি বাবদ কম খরচ হয় না৷ তাই বহু মানুষ অসুস্থ হলেও ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে দ্বিধা বোধ করেন৷ এদের সাহায্যের জন্য এগিয়ে এসেছে ভিটেন হের্ডেকে ইউনিভার্সিটির চিকিত্সা বিজ্ঞানের একদল ছাত্রছাত্রী৷

ভিটেনের পাশের শহর হাগেনে প্রটেস্টান্ট গির্জার পক্ষ থেকে গৃহহীন ব্যক্তিদের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য একটি প্রক্ষালন কেন্দ্র খোলা হয়েছে, যেটির নাম ‘লুথার্স ভাশ সালোন'৷ সেখানে গৃহহীন ও বেকার মানুষরা তাদের নোংরা কাপড় চোপড় ধুতে পারেন৷ কাপড় ধোয়া শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় তাদের৷ এই ফাঁকে তারা স্নান ও প্রাতঃরাশ সেরে নেন৷ কেউ কেউ ছোট খাটো চিকিত্সাও করিয়ে নিতে পারেন৷ এই সব অবহেলিত মানুষকে সপ্তাহে দুই দিন চিকিত্সা দিতে উদ্যোগী হয়েছেন দন্ত চিকিত্সাসহ চিকিত্সা বিজ্ঞানের কয়েক জন ছাত্রছাত্রী৷

দন্ত রোগ এক বড় সমস্যা

দাঁত পরীক্ষা করার এক দৃশ্য: ৫১ বছর বয়সি উভে বাউয়ার-এর মুখে একটি দাঁতও নেই৷ কৃত্রিম দাঁত তাঁর মুখে বসানো খুব একটা সহজ কাজ নয় দন্ত চিকিত্সা বিভাগের ছাত্র কোরবিনিয়ান বেন্স'এর পক্ষে৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘আমি সপ্তম সেমিস্টারের ছাত্র৷ এই প্রথম আমি প্র্যাকটিকাল কাজ করছি, বসাচ্ছি নকল দাঁত৷ এটি এক উত্তেজনাকর মুহূর্ত৷''

একটি যন্ত্র দিয়ে ২৪ বছর বয়স্ক কোরবিনিয়ান কৃত্রিম দাঁতের অসমতা দূর করেন, যাতে এটি চাপ সৃষ্টি না করে৷ একজন অভিজ্ঞ অবসরপ্রাপ্ত দন্তচিকিত্সক তাকে সাহায্য করেন৷ বছর খানেক ধরে লুথার্স ভাশ সালোনে গৃহহীনদের চিকিত্সায় সাহায্য করছে কোরবিনিয়ান৷

কোরবিনিয়ান জানান, ‘‘গৃহহীনদের নিয়ে আগে আমি তেমন মাথা ঘামায়নি৷ বলা যায়, নেতিবাচক একটা ধারণাই ছিল৷ এখানে কাজ করে সেটা একেবারেই দূর হয়েছে৷ শত দুরবস্থার মধ্যেও যে, তারা জীবনের আনন্দ, সাহস হারিয়ে ফেলেননি, সেটা অত্যন্ত প্রশংসাযোগ্য৷''

GMF Klick! Fotowettbewerb 2011 Flash-Galerie

জার্মানির ট্রিয়ার শহরের এই গৃহহীন বয়স্ক মানুষটি পথেই বাস করেন

একটুখানি সহানুভূতি

দৈনিক প্রায় ১৩০ জন গৃহহীন ব্যক্তি লুথার্স ভাশসালোনে আসেন৷ কাপড় ধোয়া, স্নান ও নাস্তা খাওয়ার ফাঁকে ফাঁকে পাশের দুই কক্ষে মেডিকেলের ছাত্রদের কাছ থেকে চিকিত্সা নেন৷ দাঁতের সমস্যা থেকে শুরু করে, ক্ষত, অ্যালার্জি, ছোটখাট হাড়ভাঙা ইত্যাদির জন্য শরণাপন্ন হন তাদের৷

গৃহহীনদের জন্য এই প্রকল্পটি পরিচালনা করছেন হাইকে শ্পিলমান৷ প্রথমে পাঁচ জন স্বেচ্ছাসেবী নিয়ে শুরু করেছিলেন তিনি৷ আজ কর্মী সংখ্যা ২৫৷ শ্পিলমান বলেন, ‘‘আমাদের রোগীরা প্রশ্ন করেন না, চিকিত্সকরা কোথা থেকে এসেছেন৷ কতগুলি ডিগ্রি তাদের রয়েছে, তাও জানার আগ্রহ নেই তাদের৷ তারা প্রশ্ন করেন, তিনি কি দরদী? ছাত্রদের সম্পর্কে বলা হয়, তারা এত ভাল৷ তাদের কাছে নিরাপদ বোধ করেন গৃহহীন মানুষরা৷''

প্রকল্পে অংশগ্রহণকারী ছাত্রদের একজন সুজানে গ্রাইশেল৷ এক রোগীর ক্ষতের চিকিত্সা করছেন তিনি৷ ২ বছর ধরে পায়ে এক ক্ষতের যন্ত্রণা ভোগ করছেন এই ব্যক্তি৷ ২৩ বছর বয়সি ছাত্রী ঘা'টি ভালভাবে পরিষ্কার করে মলম লাগিয়ে দেন৷ তারপর ব্যান্ডেজ বেঁধে দেন৷ সুজানে বলেন, ‘‘এই মানুষরা বেশ ধৈর্যশীল৷ সাধারণত তারা এত বড় স্বাস্থ্যগত সমস্যা নিয়ে আসেন না৷ ব্যান্ডেজ বদলানোর মত সামান্য কাজ, একটুখানি কথাবার্তা, এটার মূল্য দেন রোগীরা৷ এ এক সুন্দর অনুভূতি৷''

দূর হয় নেতিবাচক ধারণাটা

চিকিত্সার দিক দিয়ে বিরাট কোনো চ্যালেঞ্জ নয় বরং এই সব মানুষের জীবন কাহিনিই হৃদয় ছুঁয়ে যায় ছাত্রদের৷ কোরবিনিয়ানের ভাষায়, ‘‘তাদের করুণ জীবনকথা শুনলে মাঝে মাঝে চোখের পানি রোধ করা যায় না৷ রাজনীতির প্রতি খানিকটা ক্ষোভও জন্মে৷ এই অসহায় মানুষগুলি বড় বড় মালিক পক্ষের বিরুদ্ধে কিছু করতে পারেন না৷ রাতারাতি চাকরিচ্যুত হয়ে সামলাতে পারেন না অনেক কিছু৷''

বেকারত্ব, একাকিত্ব, হতাশা, নেশা, লুথার্স ভাশসালোন-র রোগীদের এসব কিছুর বিরুদ্ধে লড়াই করতে হচ্ছে৷ সমাজের এই প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য অনেক ডাক্তারের দ্বারও রুদ্ধ৷ হাইকে শ্পিলমান আশা করেন, এই পরিস্থিতির উন্নতি হবে এবং চিকিত্সা বিজ্ঞানের ছাত্ররা ভবিষ্যতে এক্ষেত্রে তাদের ভূমিকা রাখবে৷

শ্পিলমান বলেন, ‘‘আমার বিশ্বাস, যে সব ছাত্রছাত্রী সমাজের এই দিকটার সঙ্গে পরিচিত হয়েছে, পেশাগত ক্ষেত্রেও তাদের চিন্তাধারা ভিন্ন রকম হবে৷ সন্ধ্যার দিকে মাতাল ও দুর্গন্ধযুক্ত কোনো রোগী এসে পড়লে তাদের সঙ্গে অন্যরকম আচরণ করবে তারা৷''

প্রতিবেদন: রায়হানা বেগম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন