গুলাবের তাণ্ডব, মৃত দুই মৎসজীবী | বিশ্ব | DW | 27.09.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

গুলাবের তাণ্ডব, মৃত দুই মৎসজীবী

রোববার রাতে অন্ধ্রপ্রদেশের স্থলভাগে পৌঁছায় সাইক্লোন গুলাব। সমুদ্রে মৃত দুই মৎসজীবী। সতর্ক প্রশাসন।

প্রশাসনের তৎপরতায় বেঁচে গেলেন বহু মানুষ। সাইক্লোন গুলাব স্থলভাগে পৌঁছে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর। তবে তার আগেই অন্ধ্রপ্রদেশ এবং ওড়িশার উপকূলভাগ থেকে কয়েক লাখ মানুষকে সরিয়ে নিয়েছে প্রশাসন। ফলে গুলাবের দাপটে বাড়ি ঘর ভাঙলেও প্রাণহানির ঘটনা সেভাবে ঘটেনি। তবে অন্ধ্রের উপকূলে গভীর সমুদ্রে দুই মৎসজীবীর মৃত্যু হয়েছে বলে প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গেও ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস।

অন্ধ্র এবং ওড়িশার পাশাপাশি তেলেঙ্গানাতেও লাল সংকেত জারি করা হয়েছে। রোববার রাত থেকে সেখানে ক্রমশ বৃষ্টির দাপট বাড়ছে। খোলা হয়েছে বিশেষ কন্ট্রোল রুম। দক্ষিণ তেলেঙ্গানায় কমলা সংকেত জারি করা হয়েছে।

প্রশাসন জানিয়েছে, রোববার রাতে তাদের কাছে খবর আসে গভীর সমুদ্রে বেশ কয়েকটি নৌকো ঝড়ের দাপটে উল্টে গেছে। একাধিক মানুষ নিখোঁজ বলেও জানা যায়। সোমবার সকাল পর্যন্ত দুইজন মৎসজীবীর দেহ উদ্ধার করা গেছে। বাকিদের খোঁজে তল্লাশি চলছে। সতর্কবার্তা সত্ত্বেও কেন ওই মৎসজীবীরা সমুদ্রে গিয়েছিলেন, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

ওড়িশা সরকার জানিয়েছে, এখনো পর্যন্ত ১৬ হাজার মানুষকে উপকূল থেকে সরিয়ে ত্রাণ শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাদের খাওয়াদাওয়ার দায়িত্বও সরকার নিয়েছে। তবে ওড়িশা উপকূলে ঝড়ের তাণ্ডব যতটা হবে বলে মনে করা হয়েছিল, বাস্তবে তা ঘটেনি। সাইক্লোন গভীর নিম্নচাপে পরিণত হওয়ায় উপকূল অঞ্চলে ব্যাপক বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টি চলবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর।

অন্ধ্রের শ্রীকাকুলামে ঝড় প্রথম স্থলভাগে প্রবেশ করে। শ্রীকাকুলাম এবং কলিঙ্গপত্তনমে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে খবর মিলেছে। অন্ধ্রের সরকার জানিয়েছে, কলিঙ্গপত্তনমের কাছে মোট ৬১টি ত্রাণ শিবির তৈরি করে উদ্ধারকাজ চলছে।

ঝড়ের দাপট কমলেও আগামী ২৪ ঘণ্টা অন্ধ্র, ওড়িশা এবং তেলেঙ্গানায় বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। অন্যদিকে, ঝড়ের দাপট পশ্চিমবঙ্গের উপকূলভাগে সে ভাবে পড়েনি। পশ্চিমবঙ্গ এবং ওড়িশার উপকূল অঞ্চলে সেভাবে বৃষ্টিপাতও হয়নি। তবে আগামী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। সতর্ক প্রশাসনও।

এসজি/জিএইচ (পিটিআই, এএনআই)