1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
Bangladesch Terror Polizei Restaurant Holey Artisan Bakery
ছবি: Getty Images/AFP

গুলশান হামলার চূড়ান্ত রায় আটকে গেছে করোনায়

১ জুলাই ২০২১

গুলশান হামলার মামলার পেপারবুক প্রস্তুত হয়েছে প্রায় এক বছর আগে৷তবে চূড়ান্ত নিষ্পত্তির শুনানিসহ আনুষঙ্গিক কাজ শেষ না হওয়ায় হাই কোর্টের বেঞ্চ এখনও নির্ধারণ হয়নি৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%97%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A6%A8-%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%9A%E0%A7%82%E0%A7%9C%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%86%E0%A6%9F%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%97%E0%A7%87%E0%A6%9B%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A7%9F/a-58116573

ডয়চে ভেলের কনটেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সংশ্লিষ্টরা এর জন্য করোনাভাইরাস মহামারীকে দায়ী করেছেন৷ অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন বলছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এ বছরই শুনানির জন্য ‘সর্বোচ্চ' চেষ্টা চালাবেন তিনি৷

দেশে নজিরবিহীন ওই হামলার পঞ্চম বার্ষিকীর আগের দিন বুধবার তিনি সাংবাদিকদের বলেন, "মামলাটি সুপ্রিম কোর্টের হাই কোর্ট বিভাগে আছে৷মামলার পেপারবুক রেডি হয়ে গেছে৷ যেহেতু এটি ডেথ রেফারেন্সের মামলা৷ ডেথ রেফারেন্সের মামলাগুলো তালিকা অনুযায়ী শুনানির জন্য আসে৷ কোভিডের কারণে মামলাগুলো শুনানির জন্য উঠতে দেরি হচ্ছে৷''

তবে বিচারিক আদালতেখালাস পাওয়া একজনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করবে কি না, সে বিষয়ে রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা স্পষ্ট করে কিছু বলেননি৷

মামলাটির গুরুত্ব তুলে ধরে আমিন ‍উদ্দিন বলেন, কতিপয় বিপথগামী মানুষ কতিপয় তরুণকে বিপথে নিয়ে এ ধরনের কাজ করিয়েছিল৷ বাংলাদেশের ইতিহাসে ভয়াবহতম জঙ্গি হামলার ঘটনাটি ঘটেছিল ২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে৷

পাঁচ তরুণ জঙ্গি রোজার ঈদের এক সপ্তাহ আগে পিস্তল, সাব মেশিনগান আর ধারালো অস্ত্র হাতে ঢুকে পড়েছিল সেই রেস্তোরাঁয়৷ তারা জবাই ও গুলি চালিয়ে ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ ২০ জনকে হত্যা করে৷ হামলা ঠেকাতে গিয়ে নিহত হন দুই পুলিশ কর্মকর্তা৷ পরে কমান্ডো অভিযানে ওই জঙ্গিদের হত্যা করা হয়৷ গুলশান হামলার পর জঙ্গিদমন অভিযান গতি পায়৷ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধারাবাহিক অভিযানে অনেক জঙ্গি গ্রেপ্তার হওয়ার পাশাপাশি শীর্ষনেতাদের প্রায় সবাই মারা যান৷

হামলার ঘটনায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে করা মামলায় রায়ে ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর আদালত সাত জঙ্গিকে মৃত্যুদণ্ড দেয়৷ একজন খালাস পান রায়ে৷ রায় ঘোষণার পর নিয়ম অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ডাদেশ অনুমোদনের জন্য মামলার ডেথ রেফারেন্স ওই বছরের ৫ ডিসেম্বর বিচারিক আদালত থেকে হাই কোর্টে আসে৷

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ও হাই কোর্টের বিশেষ কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুর রহমান বুধবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, "পেপারবুক প্রস্তুত আছে৷ কিছু আনুষাঙ্গিক কাজ শেষ হলে ডেথ রেফারেন্সটি শুনানির জন্য বিধি অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷''

ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান রায়ে নব্য জেএমবির সাত সদস্যকে সন্ত্রাসবিরোধী আইনের ৬(২)(অ) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড করেছিলেন ৷ আরও দুটি ধারায় তাদের কয়েকজনকে দেওয়া হয় বিভিন্ন মেয়াদের কারাদণ্ড ৷

মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্তরা হলেন- জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে রাজীব গান্ধী, আসলাম হোসেন ওরফে র‌্যাশ, হাদিসুর রহমান, রাকিবুল হাসান রিগ্যান, আব্দুস সবুর খান, শরিফুল ইসলাম ওরফে খালেদ ও মামুনুর রশিদ রিপন ৷

মৃত্যু নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার আদেশ দিয়ে বিচারক তার রায়ে বলেন, হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার মধ্য দিয়ে আসামিরা ‘জঙ্গিবাদের উন্মত্ততা, নিষ্ঠুরতা ও নৃশংসতার জঘন্য বহিঃপ্রকাশ' ঘটিয়েছে ৷ সাজার ক্ষেত্রে তারা কোনো অনুকম্পা বা সহানুভূতি পেতে পারে না ৷

হামলা থেকে মামলা

বিশ্বজুড়ে উগ্রপন্থার প্রসারের মধ্যে বাংলাদেশে বিচ্ছিন্ন কিছু হামলা ঘটলেও জঙ্গিরা তাদের সামর্থ্যের সর্বোচ্চ প্রকাশ ঘটিয়েছিল হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার মধ্য দিয়ে ৷ তার আগ পর্যন্ত এই ধরনের হামলার দৃশ্য কেবল টেলিভিশনেই দেখে আসছিল বাংলাদেশের মানুষ ৷

গুলশান-২ এর ৭৯ নম্বর সড়কের শেষ মাথায় লেকের তীরে হলি আর্টিজান বেকারির সবুজ লন ছিল বিদেশিদের কাছে খুবই জনপ্রিয় ৷ বিদেশিদের নিয়মিত আনাগোনা এবং শিথিল নিরাপত্তার কারণেই ওই রেস্তোরাঁকে জঙ্গিরা হামলার জন্য বেছে নিয়েছিল বলে মনে করা হয়৷

এই নৃশংস ঘটনাটি ঘটার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ওই হামলার খবর আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর শিরোনামে চলে আসে৷ তখনও অনেকে হলি আর্টিজানের ভেতরে কার্যত জিম্মি হয়ে ছিলেন৷

রুদ্ধশ্বাস রাত পেরিয়ে ভোরে সেনাবাহিনীর কমান্ডোরা নামে অভিযানে; ‘থান্ডারবোল্ট' নামের সেই অভিযানে হামলায় সরাসরি অংশ নেওয়া পাঁচ তরুণের সবাই মারা পড়েন৷ ভেতর থেকে উদ্ধার করা হয় মোট ১৩ জনকে৷ এরপর দুই বছরে হামলায় জড়িত আরও অনেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে নিহত হন৷ গুলশান হামলার তদন্তে মোট ২১ জনকে চিহ্নিত করা হলেও তাদের মধ্যে জীবিত অবস্থায় গ্রেপ্তার আটজনকেই কেবল বিচারের মুখোমুখি করা সম্ভব হয়৷

দুই বছরের বেশি সময় ধরে তদন্তের পর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের পরিদর্শক হুমায়ুন কবির ২০১৮ সালের ২৩ জুলাই ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে এ মামলার অভিযোগপত্র দেন৷

২০১৮ সালের ২৬ নভেম্বর আট আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে এ মামলার বিচার শুরু হয়৷ রাষ্ট্রপক্ষে ২১১ জন সাক্ষীর মধ্যে ১১৩ জনের সাক্ষ্য শুনে বিচারক রায় দেন৷

এনএস/কেএম (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম) 

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

Bangladesch Gewalt unter Studentengruppen

মাঠে লাঠি, কথায় লাঠি কোন দিকে যাচ্ছে রাজনীতি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান