গুমোট হাওয়া কাটিয়ে স্বস্তির জয় | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 23.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

গুমোট হাওয়া কাটিয়ে স্বস্তির জয়

ঢাকায় এখন ভ্যাপসা গরম৷ শ্রীলঙ্কা শিবিরে করোনার হানার খবরে ম্যাচ নিয়েও দেখা দিয়েছিল অনিশ্চয়তা৷ তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথমটিতে অবশ্য সব কাটিয়ে মিলেছে ৩৩ রানের জয়ের স্বস্তি৷

ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ দল

ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ দল

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হয়েছে লঘুচাপ, যা রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড়ে৷ বাংলাদেশের বন্দরে বন্দরে উঠেছে তাই ১ নম্বর সতর্ক সংকেত৷

বাংলাদেশ ক্রিকেটের হালফিল ‘লঘু চাপ’ এর চেয়ে একটু বেশিই বরং৷ সর্বশেষ ১০ আন্তর্জাতিক ম্যাচে ৯ পরাজয় তো তৈরি করে রীতিমতো ‘গুরু চাপ’! শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে হেরে গেলে সেটি রূপান্তরিত হতে পারতো ক্রিকেট বিপর্যয়ের ‘ঘূর্ণিঝড়’-এ৷ সতর্ক সংকেত লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে যেতো ৫, ৭ কিংবা ৯-এ৷

ভাগ্যিস, তা হয়নি! ৩৩ রানের জয়ে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ৷ ২০২৩ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে যোগ করলো আরো ১০ পয়েন্ট৷ এবং সবচেয়ে বড় ব্যাপার, চাপ সরিয়ে স্বস্তির হিমেল হাওয়া ফিরলো খানিক৷ ক্ষণিকের জন্য হলেও!

টস জিতে আগে ব্যাটিং করে ৬ উইকেটে ২৫৭ রান বাংলাদেশের৷ খুব সহজেই তা ২৭০-২৮০ হতে পারতো৷ কারণ, ৪০ ওভার শেষে দলের রান ছিল ৪ উইকেটে ১৯৩৷ উইকেটে দুই সেট ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদ উল্লাহ৷ প্রথম জনের ব্যাটে সেঞ্চুরির সৌরভ; পরের জনের ফিফটির৷ হাতে ৬ উইকেট নিয়ে শেষ ১০ ওভারে ৮০-৯০ রান তো হতেই পারতো৷

হয়নি বাংলাদেশ হঠাৎ খেই হারিয়ে ফেলায়৷ রিভার্স সুইপের চেনা চোরাবালিতে ডুবে মুশফিক হারিয়ে আসেন প্রাপ্য সেঞ্চুরি৷ ৮৭ বলে ৮৪ রানের ইনিংসেও তাই হতাশা না থেকে পারে না৷ মাহমুদউল্লাহ ফিফটি পেলেও সময়ের দাবি মেটানো ব্যাটিং করতে পারেননি৷ ৭৬ বলে ৫৪ রানের ইনিংসেও তাই আক্ষেপ না থেকে পারে না৷ শেষ ১০ ওভারে মাত্র ৬৪ রান করে বাংলাদেশের ইনিংস থেমে যায় ছয় উইকেটে ২৫৭ রানে৷

Bangaldesch Dhaka | Cricket | Bangladesch vs. Sri Lanka | Mushfiqur Rahim

ম্যান অব দ্য ম্যাচ মুশফিকুর রহিম

থেমে থেমে বল আসা মিরপুরের চিরাচরিত উইকেটের জন্য এটিই পরবর্তীতে যথেষ্ট বলে প্রমাণিত৷ আর শ্রীলঙ্কার ১০২ রানে ছয় উইকেট তুলে নিয়ে তা তো একরকম নিশ্চিত করে ফেলেন বাংলাদেশের বোলাররা৷ আরো নির্দিষ্ট করে বললে মেহেদী হাসান মিরাজ৷ নতুন বলে প্রথম ব্রেক থ্রু এই অফ স্পিনারের; ৪ ওভারের প্রথম স্পেলে খরচ মোটে ১১ রান৷ ফিরে এসে আরো তিন উইকেটে৷ শ্রীলঙ্কার প্রথম ৬ ব্যাটসম্যানের চারজনই মিরাজের শিকার৷ বোলিং ফিগার তখন দেখাচ্ছিল ৮.৩ ওভারে ১৪ রানে ৪ উইকেট৷

শেষে ১০-২-৩০-৪ বোলিং ফিগারটায় রান তাই একটু বেশি দেখাচ্ছে বটে, তবে ততক্ষণে বাংলাদেশের জয়ের ভিতটা তৈরি করে দিয়েছেন মিরাজ৷

সেটি আবার আরেক দফা অনিশ্চয়তায় হাসারাঙ্গা ডি সিলভার ব্যাটে৷ ‘ইয়াস’ ঘূর্ণিঝড়ের মতো ঝড় ওঠে তার ব্যাটে৷ দারুণ সাহসী এক ইনিংস খেলেন তিনি ৮ নম্বরে নেমে৷ মাত্র ৩১ বলে ফিফটিতে পৌঁছে যান৷ তিন উইকেটের পুঁজিতে শেষ ৬০ বলে ৬৭ রানের প্রয়োজনীয়তার সামনে নিয়ে আসেন শ্রীলঙ্কাকে৷ আবার চাপে তাই বাংলাদেশ৷

সে চাপ কেটে যায় সাইফউদ্দিনের বলে৷ তার করা ৪৪তম ওভারের শেষ বলে পুল করতে গিয়ে হাসারাঙ্গা (৬০ বলে ৭৪) আউট হলে শেষ আশাটাও শেষ হয়ে যায় সফরকারীদের৷ তাদের ৪৮.১ ওভারে ২২৪ রানে অলআউট করে বাংলাদেশ ম্যাচ জেতে ৩৩ রানে৷

দিনের শুরুতে ম্যাচ মাঠে গড়ানো নিয়েই তৈরি হয়েছিল সংশয়৷ কারণ, শ্রীলঙ্কার দুই ক্রিকেটার ইসুরু উদানা, শিরান ফার্নান্ডো এবং বোলিং কোচ চামিন্ডা ভাস আগের দিনের কোভিড পরীক্ষায় হন পজিটিভ৷ ম্যাচের ঘন্টা দুয়েক আগে পাওয়া দ্বিতীয় কোভিড টেস্টের ফলে অবশ্য উদানা-ভাস নেগেটিভ হয়ে যান৷ আইসিসির প্রটোকল মেনে খেলা চালিয়ে যাওয়া নিয়ে কোনো বাধা থাকে না৷

কিন্তু মাঠের ক্রিকেটে বাংলাদেশের সামনে ‘বাধা’ আসে বেশ কয়েকবার৷ শুরুতে লিটন দাসের শূন্য রানে আউট হওয়া, ধুঁকতে থাকা সাকিবের (৩৪ বলে ১৫) রান বাড়ানোর মরিয়া চেষ্টায় লং অনে ধরা পড়ায় ৪৩ রানে দুই উইকেট হারায় বাংলাদেশ৷

তামিম অন্য প্রান্তে খেলছিলেন তামিমের মতোই৷ ব্যাটিং অ্যাপ্রোচ নিয়ে প্রশ্ন না করার অনুরোধ ছিল ম্যাচের আগের দিনের সংবাদ সম্মেলনে৷ ইনিংস ‘অ্যাংকর’ করার সেই অ্যাপ্রোচেই ৬৬ বলে ফিফটিতে পৌঁছে যান বাংলাদেশ অধিনায়ক৷ এরপর যখন আরো বড় ইনিংসের প্রতিশ্রুতি, তখনই শাফল করতে গিয়ে এলবিডাব্লিউ তামিম। ৭০ বলে ৫২ রান করে৷

ঠিক পরের বলেই মোঃ মিঠুন (০) প্যাডেল সুইপ করতে গিয়ে এলবিডাব্লিউ৷ ৯৯ রানে চার উইকেট হারিয়ে আরেকটি মিনি-বিপর্যয়ের মুখে বাংলাদেশ

এরপর মুশফিক-মাহমুদউল্লাহর ১০৯ রানের জুটি৷ শেষ দিকে প্রত্যাশিত রান না হওয়া৷ তবু আড়াই পেরোনো মিরাজের ঘূর্ণিজাদু৷ হাসারাঙ্গার প্রতিরোধ ভেঙে বাংলাদেশের জয়৷

ঢাকায় এখনো জৈষ্ঠ্যের ভ্যাপসা গরম৷ তবে বাংলাদেশ ক্রিকেটের গুমোট হাওয়া কাটিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়টি যে ‘আরাম’ হয়ে এসেছে, তা আর বলতে!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়