গান বাজানোয় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা | বিশ্ব | DW | 05.08.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

গান বাজানোয় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা

অনুমতি না নিয়ে নির্বাচনি প্রচারে গান ব্যবহারের জন্য ডনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ক্যানাডিয়ান-অ্যামেরিকান গায়ক নিল ইয়ং৷ দুটি গানের জন্য তিন লাখ ডলারের ক্ষতিপূরণ চেয়েছেন শিল্পী৷

ক্যানাডিয়ান-অ্যামেরিকান গায়ক নিল ইয়ং

ক্যানাডিয়ান-অ্যামেরিকান গায়ক নিল ইয়ং

২০১৫ সালেও বিষয়টি নিয়ে তার আপত্তির কথা জানিয়েছিলেন ইয়ং৷ সেই বছর, অর্থাৎ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডনাল্ড ট্রাম্প প্রথমবারের মতো অংশ নেয়ার সময়ও নির্বাচনি প্রচারে ৭৫ বছর বয়সি শিল্পীর গান বাজানো হয়৷

তবে শিল্পীর আপত্তি সত্ত্বেও ট্রাম্পের প্রচারবাহিনী তাতে কান দেয়নি৷

নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্রে আবার শুরু হয়েছে প্রচারের তোড়জোর৷ সমর্থকদের আকৃষ্ট করতে গত মাসে ওকলাহোমার তুলসা অঞ্চলে বাজানো হয়েছিল নিল ইয়ংয়ের ‘রকিন ইন দ্য ফ্রি ওয়ার্ল্ড’ এবং ‘ডেভিলস সাইডওয়াক’ গান দুটি৷ প্রতিটি গানের জন্য দেড় লাখ ডলার করে মোট তিন লাখ ডলারের ক্ষতিপূরণ দাবি করে তাই মামলা ঠুকে দিয়েছেন ইয়ং৷ 

যুক্তরাষ্ট্রে কপিরাইট আইনে শিল্পীকে তার গান সজ্ঞানে অজ্ঞতা এবং ঘৃণা প্রকাশ করা হয় এমন ‘অ-যুক্তরাষ্ট্রীয়’ নির্বাচনি প্রচারের থিমসং হিসেবে ব্যবহারে সম্মতি দিতে বারণ করা হয়েছে৷

এ কারণে গত ৩ জুলাই নিজের ওয়েবসাইটে নিল ইয়ং লিখেছিলেন, ‘‘এই প্রেসিডেন্টের কথা শেষ হওয়ার পরই ‘রকিন ই দ্য ফ্রি ওয়ার্ল্ড’ বাজালে কেমন লাগতে পারে ভাবুন একবার৷ মনে হয় গানটা যেন তারই থিমসং৷ কিন্তু আমি তো এজন্য গানটা লিখিনি৷’’

নিল ইয়ংয়ের মামলার বিষয়ে ট্রাম্প বা তার নির্বাচনি দলের কোনো প্রতিক্রিয়া এখনো জানা যায়নি৷

ট্রাম্পের কাছে খোলা চিঠি

অনুমতি ছাড়া গান ব্যবহারের জন্য ট্রাম্পের নির্বাচনি দলের প্রতি নিল ইয়ং একা অসন্তুষ্ট নন৷এর আগে গান ব্যবহারের আগে শিল্পীদের অনুমতি নেয়ার আহ্বান জানিয়ে খোলা চিঠি লিখেছে ‘আর্টিস্টস রাইট অ্যালায়েন্স’৷ সেই চিঠিতে মিক জ্যাগার, কিথ রিচার্ডস, এল্টন জন, লায়নেল রিচি, সিয়া, মাইকেল স্টাইপ, স্টিভেন টাইলার, শেরিল ক্রোর মতো শিল্পীরাও স্বাক্ষর করেছেন৷

এসিবি/ কেএম (এপি, রয়টার্স, এএফপি)

২০১৬ সালের এপ্রিলের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন