গান্ধী জয়ন্তী‌তে রেলযাত্রীদের শুধুই নিরামিষ খাবার!‌ | বিশ্ব | DW | 23.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

গান্ধী জয়ন্তী‌তে রেলযাত্রীদের শুধুই নিরামিষ খাবার!‌

আগামী তিন বছর গান্ধী জয়ন্তী পালন করতে চেয়ে কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রককে প্রস্তাব দিয়েছে রেল মন্ত্রক৷ প্রস্তাবে ২ অক্টোবরকে ‘‌ভেজিটেরিয়ান ডে’ হিসেবে পালন করার কথা বলা হয়েছে৷ ঐ দিন রেলে কোনো আমিষ খাবার পরিবেশন করা হবে না৷

মহাত্মা গান্ধী নিজে নিরামিষ খেতেন৷ ফলে গোটা দেশ নিরামিষ খাবার খেয়ে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করবে!‌ হ্যাঁ, বিজেপি এবং আরএসএস-কে খুশি করতে এমন আজগুবি ও অবাস্তব প্রস্তাব পেশ করেছিল ভারতীয় রেল বোর্ড৷

ভারতে প্রতিদিন গড়ে দু'হাজার ট্রেন চলাচল করে৷ গড়ে প্রতিদিন আড়াই কোটি যাত্রীর ভরসা ভারতীয় রেল৷ দূরপাল্লার ট্রেন যাত্রীদের চলন্ত ট্রেনে খাবার পরিবেশন করে রেলেরই অন্য একটি সংস্থা আইআরসিটিসি৷ রেল মন্ত্রকের অধীনস্থ রেলবোর্ড ক'‌দিন আগে আচমকা গান্ধীর ১৫০ তম জন্মজয়ন্তী পালনের উদ্যোগ নেয়৷

একগুচ্ছ প্রস্তাব কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রকের কাছে পাঠায় রেলবোর্ড৷ তাতে অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে বলা হয়, চলতি ২০১৮ সালের ২ অক্টোবর রেলভবনের মতো রেলের অধীন অন্যান্য ভবন এবং সমস্ত ট্রেনে শুধুমাত্র নিরামিষ খাবার পরিবেশন করা হবে৷ দেশজুড়ে সমস্ত রেল স্টেশনে শুধু নিরামিষ খাবারই মিলবে৷ এখানেই শেষ নয়, চলতি বছরের মতো আগামী তিন বছর, অর্থাৎ ২০২০ পর্যন্ত এই নিয়ম চলবে৷ যার নাম হবে, ‘ভেজিটেরিয়ান ডে’৷ কিন্তু দেশের স্বাধীন সংবাদমাধ্যমগুলিতে এ নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়৷ ঝড় ওঠে সোশ্যাল মিডিয়াতেও৷ শেষমেষ পরিস্থিতি বেগতিক দেখে পিছু হটতে বাধ্য হয় রেলবোর্ড৷

প্রস্তাবে আরও বলা হয়, গুজরাটের সবরমতী থেকে একটি ট্রেন চালু হবে৷ এর নাম হবে ‘‌স্বচ্ছতা এক্সপ্রেস’৷ ট্রেনটি গান্ধীজির সঙ্গে জড়িত প্রত্যেকটি এলাকা ছুঁয়ে গোটা দেশ পরিক্রমা করবে৷ আরও একটি ট্রেন ‘‌বিশেষ লবণ ট্রেন’ নাম নিয়ে দেশ পরিক্রমা করবে৷ গান্ধীজির ‘‌ডান্ডি অভিযান’-‌এর স্মরণে আগামী বছরের ১২ মার্চ ট্রেনটি চালু হবে৷ এছাড়া একটি বিশেষ ডাক টিকিট চালুর প্রস্তাবও দিয়েছে রেলবোর্ড৷

ভারতীয় রেলের শীর্ষ কর্মকর্তা আর ডি বাজপেয়ী বলেন, ‘‌‘‌কয়েকটি সংবাদমাধ্যম প্রচার করছে যে, ২ অক্টোবর গান্ধী জয়ন্তীর দিন নিরামিষ দিবস পালন হবে৷ এ খবর ঠিক নয়৷ আমিষ খাবার পরিবেশনের ক্ষেত্রে এমন কোনো নির্দেশিকা জারি করা হয়নি৷ যাত্রীরা ঐ দিন নিরামিষ ও আমিষ যে কোনো খাবার পেতে পারেন৷’’

প্রথমে খবর আসে ভারতীয় রেল ‘ভেজিটেরিয়ান ডে’-র মোড়কে গান্ধী জয়ন্তী পালনের প্রস্তাব দিয়েছে৷  ঐ দিন রেলে কোনো আমিষ জাতীয় খাবার পরিবেশন করা হবে না৷ আর ২রা অক্টোবর থেকে লাগাতার তিন বছর পালিত হবে দিনটি৷ চলতি মাসের প্রথম দিকে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এ বিষয়ে প্রথম মিটিং করেন৷ রেলমন্ত্রীও ছাড়পত্র দেন৷ যদিও তা অস্বীকার করেছেন রেলবোর্ডের কর্তারা৷

অডিও শুনুন 03:58
এখন লাইভ
03:58 মিনিট

‘সম্ভবত মোদী সরকারকে খুশি করার উদ্দেশ্যে এমন উদ্ভট প্রস্তাব এনেছিলেন রেলের কর্তারা’

বিগত কয়েক দশক ধরে একটি প্রথম সারির হিন্দি দৈনিকের জন্য ভারতীয় রেলের সংবাদ সংগ্রহ করেন গুলশন খাতরি৷ আচমকা আমিষ-‌নিরামিষ বিতর্কে ব্যক্তিগত ভাবে বেশ বিরক্ত তিনি৷ ডয়চে ভেলেকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বললেন, ‘‌‘‌রেলওয়ে বোর্ড ঠিক করেছিল আগামী তিন বছর গান্ধীজির জন্মজয়ন্তী পালন করবে৷ এতে কারও কোনো আপত্তি ছিল না৷ কিন্তু সরকারের অপর মন্ত্রককে পাঠানো প্রস্তাবের এক জায়গায় বিতর্কিত বিষয়টি লেখা ছিল৷ সেটা হলো, চলতি বছরে তো বটেই, আগামী পরপর তিন বছর ২ অক্টোবর সমস্ত ট্রেন এবং রেলের অধীনে থাকা ভবনগুলিতে কোথাও আমিষ খাবার পরিবেষন হবে না৷ পাওয়া যাবে শুধুমাত্র নিরামিষ খাবার৷ সম্ভবত নরেন্দ্র মোদী সরকারকে খুশি করার উদ্দেশ্যে এমন উদ্ভট প্রস্তাব এনেছিলেন রেলের কর্তারা৷ তবে খবরটা প্রথমে সাংবাদিকরা পান৷ আর সঙ্গে সঙ্গেই ওঠে নিন্দার ঝড়৷ ফলে তড়িঘড়ি বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিষয়টি স্থগিত করতে হয় রেল কর্তৃপক্ষকে৷’’

রেলের এই প্রস্তাব আপাতত স্থগিত করা হয়েছে৷ অর্থাৎ ভবিষ্যতে আবারও এই নিয়ম চালু করা হতেই পারে৷ কেউ কেউ আশঙ্কা করছেন, আগামী ২ অক্টোবরের আগে নতুন নির্দেশিকা জারি হয়৷ এ বিষয়ে খাতরি মনে করেন, এমন ঘটনা আসলে সাধারণ মানুষের ওপর রেল কর্তৃপক্ষের ‘‌মরাল পুলিশিং’ ছাড়া আর কিছুই নয়৷ কারণ গান্ধীজিকে সম্মান দেখানোর পাশাপাশি রেলযাত্রীদেরও সম্মান দেখানো উচিত৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়