গাজায় ইসরায়েলের হামলা | বিশ্ব | DW | 20.04.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইসরায়েল

গাজায় ইসরায়েলের হামলা

ইসরায়েলের দাবি, একদিন আগে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করেছিল হামাস। তারই জবাবে তারা গাজা স্ট্রিপে হামলা করেছে।

গাজায় ইসরায়েলি বিমান হামলার পরের ছবি।

গাজায় ইসরায়েলি বিমান হামলার পরের ছবি।

জেরুসালেমে আল-আকসা মসজিদ চত্বরে সহিংসতা নিয়ে এমনিতেই প্রবল উত্তেজনা ছিল। তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে এই আক্রমণ ও প্রতি-আক্রমণের ঘটনা।

ইসরায়েলের সেনার দাবি, সোমবার হামাস ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করে। সেই ক্ষেপণাস্ত্র নিস্ক্রিয় করে দিতে সক্ষম হয় সেনা। সেনা জানিয়েছে, এরই জবাবে গাজা ভূখণ্ডে অস্ত্র তৈরির কারখানার উপর আঘাত হানা হয়।

হামাস মুখপাত্র জানিয়েছেন, ইসরায়েলের আক্রমণ ব্যর্থ হয়েছে। যেখানে ইসরায়েল আক্রমণ করেছে, সেটা পুরোপুরি খালি ছিল। এই হামলায় কেউ হতাহত হয়নি।

উত্তেজনা বাড়ছে

জেরুসালেমে পবিত্র আল-আকসা মসজিদ চত্বরে ফিলিস্তিনিদের ঢুকতে বাধা দেয়া হয়েছিল। ইসরায়েলের নিরাপত্তা বাহিনীর তত্ত্বাবধানে মুসলিম কর্তৃপক্ষ ওই চত্বরের দেখভাল করেন। ওই জায়গাকে টেম্পল মাউন্টও বলা হয়।

ফিলিস্তিনিদের অভিযোগ, ইসরায়েল ওই চত্বরে ইহুদিদের অধিকার বাড়াতে চাইছে। কিন্তু তারা তা মেনে নিতে রাজি নন। গত কয়েকসপ্তাহে সহিংসতার বলি হয়েছেন ২৬ জন ফিলিস্তিনি ও ১৪ জন ইসরায়েলের মানুষ।

মঙ্গলবারও ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে ইসরায়েলিদের বসতি বিস্তার করা নিয়ে সংঘর্ষ হয়েছে। ফিলিস্তিনি চিকিৎসাকর্মীরা জানিয়েছেন, অন্তত আটজনের শরীরে রবার বুলেটের আঘাত ছিল। তাছাড়া কাঁদানে গ্যাসের প্রকোপে কয়েকজন অসুস্থ হয়ে পড়েন।

অ্যামেরিকার প্রতিক্রিয়া

মার্কিন সেক্রেটারি অফ স্টেট ব্লিংকেন জানিয়েছেন, আল আকসায় স্থিতাবস্থা বজায় রাখা উচিত।

সংযুক্ত আরব আমিরাতও ইসরায়েলের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে পাঠিয়ে অবিলম্বে আল-আকসায় সহিংসতা বন্ধ করতে এবং প্রার্থনাকারীদের নিরাপত্তা দেয়ার দাবি করেছে।

জিএইচ/এসজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)