গর্ভাবস্থায় মদ্যপানের কুফল বইতে হয় সন্তানকে | অন্বেষণ | DW | 26.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

গর্ভাবস্থায় মদ্যপানের কুফল বইতে হয় সন্তানকে

গর্ভাবস্থায় হবু মাকে কতটা সাবধানে থাকতে হয়, তা সবাই জানে৷ ভুল আচরণ সন্তানের মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে৷ বিশেষ করে মদ্যপান বা ধূমপানের প্রভাব সুদূরপ্রসারী হতে পারে৷ একটি দৃষ্টান্ত তার কুফল স্পষ্ট দেখিয়ে দিচ্ছে৷

প্রাণীদের সঙ্গে কাটারিনার এক বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে৷ বান্ধবীর কুকুরের সঙ্গে খেলার সময় সে আনন্দে উৎফুল্ল হতে ওঠে৷ কিন্তু মানুষের সঙ্গে তার প্রায়ই সমস্যা হয়৷ সে তাদের অসম্মান করে বসে৷ কাটারিনা বলে, ‘‘বাকি মানুষের তুলনায় আমার স্বভাব একটু বেশি রুক্ষ৷ ফলে আমার খারাপ লাগে৷ ভালো আচরণ করতে চাইলেও সব সময়ে পারি না৷''

কাটারিনার ফিটাল অ্যালকোহল সিন্ড্রোম রয়েছে৷ তাকে দেখলে অবশ্য সেটা চট করে বোঝা যায় না৷ তার আসল মা গর্ভাবস্থায় মদ্যপান করতেন৷ সুসানে ফালকে মা হিসেবে তাকে পালন করেছেন, তিনিও অনেককাল এই সমস্যার কারণ বুঝতে পারেননি৷ বরং তিনি সবসময়ে নিজের আচরণে ত্রুটি খুঁজতেন৷ সুসানে বলেন, ‘‘বিষয়টা বোঝা খুব কঠিন ছিল৷ কিছু শিখেও সে কেন বুঝতে পারছে না? কেন সে আবার ভুলে যাচ্ছে? অথবা কেন সে কোনো পরিস্থিতিতে তা প্রয়োগ করতে পারছে না? কিছু ক্ষেত্রে সে বুদ্ধিমত্তা ও আবেগ দেখাচ্ছে৷ অন্যক্ষেত্রে একেবারেই নয়৷''

কাটারিনা তিন মাস বয়সে সুসানে-র কাছে এসেছিল৷ পরিবারে আগেই স্বামী ও নিজস্ব কন্যা ডেবোরা ছিল৷ শুরু থেকেই কাটারিনা অতি সক্রিয়৷ ফলে নতুন মাকে বেশ বেগ পেতে হয়েছে৷ সুসানে ফালকে বলেন,  ‘‘মনেই করতে পারি না, কবে তার হাত ধরে টেনে রাস্তা পার করাতে হয় নি৷ অন্যদিকে কিন্তু সে আবার খুবই আন্তরিক ছিল৷''

স্কুলেও বেশ সমস্যা দেখা দিচ্ছে৷ কাটারিনা মনোযোগ দিয়ে কিছুই করতে পারে না৷ সব সময়ে সে মধ্যমণি হয়ে থাকতে চায়, সবার মনোযোগ আকর্ষণ করতে চায়৷ কাটারিনার মা সুসানে বলেন, ‘‘সে অনেক কথা বলে৷ কথার মাঝে সে বার বার বাধা দেয়৷ বিরক্ত করা, চিৎকার করা, হাত-পা ছোড়া, মাথা চেপে ধরে তার দিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা – এই সব চলতে থাকে৷''

কাটারিনা বার বার একই ভুল করে৷ সে হয় নিয়ম বোঝে না, অথবা ভুলে যায়৷ নামতাও ভুলে যায়৷ শিক্ষকেরা ভাবতেই পারেন না, যে সে সত্যি সব শিখেছিল৷ তাঁদের মনে হয়, কাটারিনা নিশ্চয় কুঁড়ে ও বিদ্রোহী স্বভাবের মেয়ে৷ আত্মপক্ষ সমর্থনে কাটারিনা বলে, ‘‘আমি শিক্ষককে বেশ কয়েকবার বলেছি৷ তিনি কয়েকদিন আসেন, অন্য দিনে আসেন না৷ তখন তিনি বলেন, ঠিক আছে৷ পরের দিন আবার ভুলে যান৷ তিনি আমার উপর চোটপাট করলে খুব খারাপ লাগে৷ তিনি বলেন, তুমি অবশ্যই পারবে৷ যদিও আমি কতবার বলেছি, এমনটা সম্ভব নয়৷ কিন্তু তিনি নাছোড়বান্দা থাকেন৷ তখন আমার মাথায় রাগ চড়ে যায়৷''

দুজনেরই ক্রোধ ও হতাশা বেড়ে চলেছে৷ তাঁরা দুজনেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন৷ কিন্তু তাতে কাজ হচ্ছে না৷ কাটারিনাকে বার বার স্কুল বদল করতে হচ্ছে৷

সিবিলে শুলৎস/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন