গণধর্ষণের শিকার নারীকে দেখে কাঁদলেন ফখরুল | বিশ্ব | DW | 05.01.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

গণধর্ষণের শিকার নারীকে দেখে কাঁদলেন ফখরুল

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে গণধর্ষণের শিকার নারীকে দেখতে গিয়েছেন বিএনপি এবং ঐক্যফ্রন্টের প্রতিনিধিদল৷ রাজনীতিতে এ মুহূর্তে আলোচিত চরিত্র হিরো আলমও গিয়েছেন সেখানে৷ এদিকে, জাতিসংঘ নির্বাচনকেন্দ্রিক সহিংসতার তদন্ত দাবি করেছে৷

একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ধানের শীষে ভোট দেয়ায় এক নারীকে রাতের আঁধারে গণধর্ষণের খবর আলোড়ন সৃষ্টি করেছে৷ সেই ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ইতোমধ্যে ৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ৷ আওয়ামী লীগের এক স্থানীয় নেতাকেও ইতিমধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ তাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে আওয়ামী লীগ৷ 

শনিবার বাংলাদেশের অন্যতম বড় রাজনৈতিক দল বিএনপি এবং রাজনৈতিক জোট ঐক্যফ্রন্টের একদল রাজনীতিবিদ গণধর্ষণের শিকার নারীকে দেখতে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে যান৷ বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম জানিয়েছে, ‘‘দল ও জোটের শরিক নেতাদের নিয়ে শনিবার সকালে ঢাকা থেকে রওনা হয়ে নোয়াখালীতে যান বিএনপি মহাসচিব৷'' 

‘‘তিনি প্রথমেই যান নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে; সুবর্ণচরের চরজুবলী ইউনিয়নে ধর্ষণের শিকার চল্লিশোর্ধ্ব ওই নারী হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন,'' লিখেছে অনলাইন পত্রিকাটি৷

সেখানে ফখরুল ওই নারীর মাথায় হাত বুলিয়ে আবেগ আপ্লুত কণ্ঠে ফখরুল বলেন,‘‘বোন, আমরা তোমার পাশে আছি৷ তোমার কোনো ভয় নেই৷ এই নির্মমতার অবশ্যই একদিন বিচার হবে৷ আল্লাহ বিচার করবেন৷''

ধর্ষণের শিকার নারীকে সান্ত্বনা জানাতে গিয়ে মির্জা ফখরুল কেঁদে ফেলেন বলেও লিখেছে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম৷ সেসময় বিএনপি মহাসচিবকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকেন ওই নারীর অটোচালক স্বামী৷

ফখরুলের সঙ্গে ঢাকা থেকে নোয়াখালী যাওয়া দলে অন্যান্যদের মধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগের সভাপতি আব্দুল কাদের সিদ্দিকীও ছিলেন৷ 

ভিডিও দেখুন 02:13

সৌদি আরবে ধর্ষণের শিকার নারী

এদিকে, ইউটিউবে অসংখ্য মিউজিক ভিডিও প্রকাশ করে আলোচিত চরিত্র আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমও গণধর্ষণের শিকার নারীকে দেখতে শনিবার নোয়াখালীতে গিয়েছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম৷ এসময় তিনি নির্যাতনকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন৷ সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বগুড়ার একটি আসনে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন আলম৷ কিন্তু নির্বাচনের দিন প্রতিপক্ষের হামলার শিকার হয়ে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন তিনি এবং জামানতের অর্থ ফেরত চান৷

ভোটকেন্দ্রিক সহিংসতার তদন্তের আহ্বান

বাংলাদেশে ৩০শে ডিসেম্বেরের নির্বাচন নিয়ে স্বাধীন এবং নিরপেক্ষ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ শুক্রবার এক বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানটি লিখেছে, ‘‘আমরা নির্বাচনকেন্দ্রিক সকল ধরনের সহিংসতার এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের দ্রুত, স্বাধীন, নিরপেক্ষ এবং কার্যকর তদন্তের জন্য সংশ্লিষ্ট সব কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি৷'' এক্ষেত্রে দোষীদের রাজনৈতিক পরিচয় যা-ই হোক না কেন তাদের বিচারের মুখোমুখি করার কথাও বলা হয়েছে বিবৃতিতে৷

জাতিসংঘের বিবৃতিতে নির্বাচনের পর বিরোধী দলের নেতা-কর্মীসহ সংখ্যালঘুরাও প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন বলে বিভিন্ন প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে৷ ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা বিরোধীদের উপর নিপীড়নের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের পরোক্ষ এবং প্রত্যক্ষ সহযোগিতা পাওয়ার ঘটনাও বিভিন্ন প্রতিবেদনে উঠে এসেছে বলে লিখেছে প্রতিষ্ঠানটি৷

এআই/এসিবি (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন