খোলা মাঠে ঈদ জামাত নয় | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 23.05.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

খোলা মাঠে ঈদ জামাত নয়

বাংলাদেশে খোলা মাঠ বা ঈদগাহে এবার ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে না৷ করা যাবে না কোলাকুলি৷ মানতে হবে সামাজিক দূরত্ব৷ এ বিষয়ে নির্দেশনা জারি করেছে সরকার৷

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বাংলাদেশের জাতীয় ঈদগায়ে ময়দানে এবার ঈদের প্রধান জামাত হবে না৷ তবে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ঈদের প্রধান জামাত হবে, সকাল ৮টা থেকে মোট পাঁচটি৷ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের নির্দেশনা অনুযায়ী ঈদগাহ বা খোলা মাঠে কোনো ধরনে জামাতের আয়োজন করা যাবে না৷ তবে মসজিদে জামাতে কোন বাধা নেই৷ ঈদের জামাতে মুসল্লিদের দাঁড়াতে হবে সামাজিক দূরত্বের নিয়ম মেনে৷ মাঝখানে এক কাতার বাদ দিয়ে তিন ফুট দূরত্ব রাখতে হবে৷ মসজিদে কোনো কার্পেট ও ম্যাট ব্যবহার করা যাবে না৷ প্রয়োজনে মুসল্লিরা জায়নামাজ নিয়ে যেতে পারবেন৷ মসজিদে সংরক্ষিত টুপি ও জায়নামাজ ব্যবহার করা যাবে না৷ ঈদের নামাজের আগে বা পরে কোনো ধরনের কোলাকুলি বা হাত মেলানো যাবে না৷ নামাজ শেষে দ্রুত বাসায় চলে যেতে হবে৷

নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে যেতে হবে৷ ব্যবহার করতে হবে মাস্ক৷ মসজিদে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হাত ধোয়ার ব্যবস্থা ও সাবান রাখতে হবে৷ মসজিদে প্রবেশের আগে কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে৷ সম্ভব হলে সবাইকে বাসা থেকে ওজু করে আসতে বলা হয়েছে৷ 

অডিও শুনুন 00:50

‘ইসলামি চিন্তাবিদদের সাথে কথা বলেই আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি’

ইসলামিক ফাউন্ডেশন দেশের বিশিষ্ট আলেমদের মতামত নিয়ে ঈদের নামাজের ব্যাপারে এই সিদ্ধান্ত দিয়েছে৷ ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক আনিস মাহমুদ জানান, ‘‘করোনার সময়ে মানুষের জীবনের কথা চিন্তা করে আমরা ঈদের নামাজের ব্যাপারে এইসব সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং সারাদেশে তা জানিয়ে দেয়া হয়েছে৷ আশা করি সবাই এটা মানবেন৷’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘দেশের ইসলামি চিন্তাবিদদের সাথে কথা বলেই আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি৷ এতে ধর্মীয় বিধি বিধানের কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না৷’’ 

এদিকে পুলিশের পক্ষ থেকে ঈদের জামাত ও ঈদ উদযাপনের ব্যাপারে ১৪ দফা নির্দেশনা জারি করা হয়েছে৷ ঈদের জামাতের ব্যাপারে ইসলামিক ফাউন্ডেশন যে নির্দেশনা দিয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকেও একই নির্দেশনা দেয়া হয়েছে৷ তবে এর বাইরে দেশবাসীকে ঈদের দিনও জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের না হওয়ার জন্য বলা হয়েছে৷ বিশেষ করে বিনোদন কেন্দ্র বা খোলা জায়গায় না যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে৷ সামাজিক দূরত্ব মেনে ঘরেই পরিবার পরিজনের সঙ্গে ঈদ করতে বলা হয়েছে৷

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ডেপুটি কমিশনার (মিডিয়া) ওয়ালিদ হোসেন বলেন, ‘‘বিনোদন কেন্দ্র আগে থেকেই বন্ধ আছে৷ ঈদেও বন্ধ থাকবে৷ তাই অযথা সেখানে যেন নগরবাসী ভিড় না করেন৷ আমরা ঘরেই সামাজিক দূরত্ব মেনে আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে বলছি৷ করোনা চলে গেলে, দেশের পরিস্থিতি ভালো হলে তখন আনন্দ করা যাবে৷’’

অডিও শুনুন 03:12

‘মসজিদে পুলিশ মোতায়েন করা হবে’

তিনি বলেন, ‘‘খোলা জায়গা বা মাঠে ঈদের জামাত তো হবেই না৷ মসজিদগুলোতে ঈদের জামাতে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি যাতে মানা হয় তা নিশ্চিতে আমরা সতর্ক থাকবো৷ মসজিদে পুলিশ মোতায়েন করা হবে৷ আমরা  প্রয়োজনে এটা মানতে বাধ্য করব৷ দরকার হলে মসজিদে একাধিক জামাত হবে৷’’

নগরীতেও পুলিশ মোতায়েন থাকবে যাতে কেউ ঈদ উদযাপনের নামে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধির লংঘন করতে না পারে, জানান পুলিশের এই উপ কমিশনার৷

ব্যক্তিগত ব্যবস্থাপনায় বাড়ি যাওয়া

ব্যক্তিগত গাড়ির পর পুলিশ এখন বলছে ব্যক্তিগত ব্যবস্থাপনায় যে কেউ ঈদে গ্রামে যেতে পারবেন বা ঢাকা আসতে পারবেন৷ ফলে প্রাইভেট কার বা মাইক্রোবাসে ঢাকা ছাড়ছেন অনেকেই৷ আবার কেউ কেউ ব্যক্তিগত গাড়ি ভাড়া করেও গ্রামে যাচ্ছেন৷ ঢাকা থেকে দুই ফেরিঘাট মাওয়া পাটুরিয়া পর্যন্ত ভাড়ায় ব্যক্তিগত যানবাহন চলাচলও শুরু হয়েছে শনিবার থকে৷ জন প্রতি ভাড়া নেয়া হচ্ছে ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা৷ কিন্তু গণপরিবহন পুরোপুরি বন্ধ আছে৷

তবে গত তিন-চার দিন সড়ক মহাসড়কে মানুষের যে চাপ ছিলো এখন তা নেই৷ জানা গেছে, ২০ মের পর ‘কারফিউর মত অবস্থা হবে’- এমন গুজবে যারা ঈদে ঢাকার বাইরে যেতে চান তারা যেকোনো উপায়ে ঢাকা ছেড়েছেন৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন