খুললো বিডিনিউজের ওয়েবসাইট | বিশ্ব | DW | 18.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

খুললো বিডিনিউজের ওয়েবসাইট

আকস্মিকভাবে বন্ধ করে দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের ওয়েবসাইটটি খুলে দেওয়া হয়েছে। ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের ওয়েবসাইটে এ খবর প্রকাশিত হয়েছে৷

আকস্মিকভাবে বন্ধ করে দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে খুলে দেওয়া হয়েছে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের ওয়েবসাইট।

এর আগে, বাংলাদেশের অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম জানায়, তাদের ওয়েবসাইট বন্ধের ‘নির্দেশ' দিয়েছে বিটিআরসি৷ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার৷

খবরে বলা হয়,  বিটিআরসি থেকে সোমবার বিকালে মোবাইল ফোন ও আইআইজি অপারেটরগুলোকে ওয়েবসাইট বন্ধ করার এ নির্দেশ দেয়৷ বিটিআরসির জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক তৌসিফ শাহরিয়ারের পাঠানো এ সংক্রান্ত ই-মেইলের স্ক্রিনশটও ছেপেছে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম৷ তবে নির্দেশ সম্বলিত ই-মেলে ওয়েবসাইট বন্ধের সিদ্ধান্তের কোনো কারণ বলা হয়নি৷

Schließung der Website bdnews24.com, dem Partner der DW in Bangladesch (bdnews24)

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে প্রকাশিত বিটিআরসির চিঠি

ই-মেলে https://www.bdnews24.com এবং https://m.bdnews24.com, অর্থাৎ নিউজপোর্টালটির দু'টি (ডেস্কটপ এবং মোবাইল) সংস্করণই বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়৷

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির কোনো বক্তব্য পায়নি৷ সরকারি কোনো ভাষ্যও তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি বলে নিউজ পোর্টালটির দাবি৷

রাত সাড়ে  ৮টার দিকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম-এর বার্তা সম্পাদক মুনীরুল ইসলাম এক লিখিত বিবৃতিতে জানান, ‘‘বিটিআরসির সিদ্ধান্তে আমরাও অবাক হয়েছি। বন্ধের পর আমরা বিটিআরসির বক্তব্য জানার চেষ্টা করেছি। বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেছেন, “বিটিআরসি নির্দেশনা দিয়েছে সরকারের উপর মহলের নির্দেশে।” কিন্তু তিনি কোনো কারণ বলেননি। আমরাও কারণটা জানতে চাই।’’

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশেরসভাপতি আমিনুল হাকিম ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘‘আমরা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের সাধারণ এবং মোবাইল দু'টি ওয়েবলিঙ্কই বন্ধের নির্দেশ পেয়েছি৷ নির্দেশ পাওয়ার পর তা কার্যকরের কাজ শুরু করেছি৷ বিটিআরসি পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ রাখতে বলেছে৷ নির্দেশে কোনো কারণ বলা হয়নি৷''

বিটিাআরসি'র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হকের সঙ্গেও যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়েছিল৷ কিন্তু তাঁকে ফোনে পাওয়া যায়নি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন